ভারতের অক্সফোর্ডের টিকায় গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২১ | ১৪ মাঘ ১৪২৭

ভারতের অক্সফোর্ডের টিকায় গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ১০:৫৬ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ০২, ২০২০

print
ভারতের অক্সফোর্ডের টিকায় গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

ভারতের সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির সঙ্গে আলাপকালে এক নারী দাবি করেন, অক্সফোর্ডের টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগের পর থেকে তার স্বামীর দেহে গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। তিনি নিজের সৃজনশীলতা হারিয়ে ফেলেছেন। এতে তার কর্মক্ষমতাও কমে গেছে।

ভারতে সেরাম ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়া (এসআইআই) তৈরি করছে অক্সফোর্ড ভ্যাকসিন গ্রুপের করোনা টিকা। এই টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে জানিয়ে পাঁচ কোটি রুপি দাবি করেছিলেন চেন্নাইয়ের এক স্বেচ্ছাসেবক। ওই ব্যক্তির স্ত্রী বলেছেন, টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় তার স্বামী সৃজনশীলতা হারিয়ে ফেলেছেন। একই কারণে কাজও হারিয়েছেন তিনি। ফলে তার আয়রোজগারেও প্রভাব পড়েছে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ওই নারী এই দাবি করেছেন।

তিনি বলেছেন, অক্সফোর্ডের টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগের পর থেকে তার স্বামীর দেহে গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। তিনি নিজের সৃজনশীলতা হারিয়ে ফেলেছেন। এতে তার কর্মক্ষমতাও কমে যায়। ফলে যুক্তরাষ্ট্রের কোম্পানি থেকে পাওয়া কাজ ফসকে গেছে। কারণ ওই কাজটি করার জন্য যে মনোযোগ ও সৃজনশীলতা প্রয়োজন ছিল, তা তিনি দেখাতে পারছিলেন না। বর্তমানে অনলাইনে অর্থ লেনদেনের মতো তুলনামূলক সহজ কাজও তিনি করতে পারছেন না।

সেরাম ইনস্টিটিউটকে গত ২১ নভেম্বর আইনি নোটিশ পাঠিয়ে ভুক্তভোগী ওই স্বেচ্ছাসেবক দাবি করেছেন, সেরামের উৎপাদিত ‘কোভিশিল্ড’ টিকা নেওয়ার পরে তার স্নায়ুতন্ত্র প্রায় সম্পূর্ণ অকেজো হয়ে পড়ে। আচরণগত নানা পরিবর্তন আসে। এ কারণে ক্ষতিপূরণ হিসেবে তিনি পাঁচ কোটি রুপি সেরামের কাছে দাবি করেন। এছাড়া অবিলম্বে টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগ বন্ধ রাখার আবেদন জানিয়েছেন।

অবশ্য শুরু থেকেই এমন অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে সেরাম ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়া। ওই স্বেচ্ছাসেবকের দাবি ‘মিথ্যা’ আখ্যা দিয়ে ১০০ কোটি রুপির মানহানির মামলাও করেছে সেরাম। প্রতিষ্ঠানটির বক্তব্য, ওই ব্যক্তির অভিযোগগুলো বিপজ্জনক ও ভ্রান্ত ধারণাভিত্তিক। প্রতিষ্ঠানের সুনাম নষ্ট করার উদ্দেশ্যে এমন অভিযোগ করা হচ্ছে। সেরাম আরও বলেছে, অক্সফোর্ডের করোনা টিকা ‘নিরাপদ ও এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করতে সক্ষম।’

তবে ৪০ বছর বয়সী ওই স্বেচ্ছাসেবকের স্ত্রী বলেছেন, অর্থনৈতিক বা অন্য কোনো অসৎ উদ্দেশ্য থেকে এসব অভিযোগ করা হয়নি। তিনি বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে আমরা পুরো বিষয়টি সম্পর্কে সাধারণ মানুষকে জানাতে চেয়েছি। ভারত এই টিকাকে বিকল্প হিসেবে দেখছে। আমরা চুপ থাকতে পারি না। আমরা চুপ থেকে আর্থিকভাবে লাভবান হতে পারতাম...কিন্তু আমাদের মন বলেছে যে এটা করা উচিত।’

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও অ্যাস্ট্রাজেনেকা সংস্থার তৈরি কোভিশিল্ড টিকা ভারতে উৎপাদন করছে সেরাম ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়া। এর পৃষ্ঠপোষকতা করছে আইসিএমআর। টিকার তৃতীয় পর্যায়ের পরীক্ষামূলক প্রয়োগের ক্ষেত্রে ওই স্বেচ্ছাসেবককে গত ১ অক্টোবর টিকা দেওয়া হয়েছিল। তামিলনাড়ুর রাজধানী চেন্নাইয়ের শ্রীরামচন্দ্র ইনস্টিটিউট অব হায়ার এডুকেশন অ্যান্ড রিসার্চ কেন্দ্রে টিকাটি দেওয়া হয়।

ভুক্তভোগী ওই স্বেচ্ছাসেবক এর আগে দেওয়া নোটিশে বলেছিলেন, শরীরে কোভিশিল্ডের ডোজ প্রবেশ করার পরই তিনি নানা উপসর্গে আক্রান্ত হন। এর জেরে মস্তিষ্কে প্রভাব পড়ে। তার দাবি, স্বাস্থ্য পরীক্ষায় জানা গেছে, টিকা নেওয়ার কারণেই তার শারীরিক সমস্যা দেখা দিয়েছে।

এদিকে সেরাম ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়া বলেছে, যতক্ষণ না পর্যন্ত করোনা টিকাটির কার্যকারিতা প্রমাণিত না হবে, ততক্ষণ পর্যন্ত এটি জনসাধারণের ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত করা হবে না। এ ব্যাপারে ‘নিশ্চয়তা’ দিচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। তবে একই সঙ্গে ভুক্তভোগী ব্যক্তির দাবিকেও নাকচ করেছে সেরাম ইনস্টিটিউটি অব ইন্ডিয়া।