ম্যাঁক্রনের মানসিক চিকিৎসা দরকার: এরদোয়ান

ঢাকা, শনিবার, ৫ ডিসেম্বর ২০২০ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

ম্যাঁক্রনের মানসিক চিকিৎসা দরকার: এরদোয়ান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ৯:৪৮ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২৫, ২০২০

print
ম্যাঁক্রনের মানসিক চিকিৎসা দরকার: এরদোয়ান

মুসলমান ও ইসলাম ধর্মের প্রতি মনোভাবের জন্য ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রনের মানসিক চিকিৎসা দরকার বলে মন্তব্য করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান। ২৪ অক্টোবর, শনিবার তুরস্কের কায়সারি শহরে নিজ দল একে পার্টির এক প্রাদেশিক সমাবেশে ফরাসি প্রেসিডেন্টকে উদ্দেশ্য করে একথা বলেন এরদোয়ান।

এক প্রতিবেদন প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, গত মাসে টেলিফোন আলাপের পরও ম্যাঁক্রনকে আক্রমণ করা অব্যাহত রেখেছেন এরদোয়ান। মতপ্রকাশের স্বাধীনতার ক্লাসে কার্টুন প্রদর্শনের জেরে এক ইসলামপন্থী উগ্রবাদী একজন ইতিহাস শিক্ষককে হত্যার পর থেকেই উত্তপ্ত হয়ে আছে ফ্রান্স। ওই ঘটনার পর ইসলামিক বিচ্ছিন্নতাবাদের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রন। তিনি বলেন, এই বিচ্ছিন্নতাবাদ ফ্রান্সের মুসলমান সম্প্রদায়গুলোতে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে চাইছে। ফরাসি প্রেসিডেন্টের এই বক্তব্যের তীব্র সমালোচনা করেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান।

একে পার্টির এক সম্মেলনে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান বলেন, ম্যাঁক্রন নামের এই লোকটির ইসলাম ও মুসলমানদের নিয়ে সমস্যা কী? মানসিক পর্যায়ে ম্যাঁক্রনের চিকিৎসা দরকার। যা বলা যেতে পারে তা হলো একজন রাষ্ট্রপ্রধান বিশ্বাসের স্বাধীনতা বুঝতে পারছেন না আর তিনি তার দেশে ভিন্ন বিশ্বাস নিয়ে বসবাস করা লাখ লাখ মানুষের সঙ্গে সেই ভাবে আচরণ করছেন।

রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান একজন মুসলমান ধর্মাবলম্বী। আর তার দল একে পার্টি ২০০২ সালে ক্ষমতায় আসার পর থেকেই তুরস্কের মূলধারার রাজনীতিতে শক্ত অবস্থান করে নিয়েছে ইসলাম। মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশটি তার নেতৃত্বে ধর্মনিরপেক্ষ পরিচয় থেকে ইসলামপন্থী হিসেবে পরিচিত হয়ে উঠতে চাইছে।

গত মাসে এক টেলিফোন আলাপে নিজেদের সম্পর্ক উন্নয়ন এবং যোগাযোগ অব্যাহত রাখার বিষয়ে একমত পোষণ করেন এরদোয়ান ও ম্যাঁক্রন।

প্রসঙ্গত, মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা:) নিয়ে বিতর্কিত কার্টুন প্রকাশের পর ফ্রান্সের পণ্য বয়কটের ডাক দিয়ে বিশ্বব্যাপী হ্যাশ ট্যাগ (#BoycottFrenceProducts) ব্যবহার করছেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারকারীরা। এতে ব্যাপকভাবে সাড়া দিচ্ছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কুয়েত। দেশটির বিভিন্ন মার্কেট থেকে ফ্রান্সের পণ্য সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে। এর নানা ছবি ও ভিডিও ছড়িয়ে পড়ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

এর আগে ১৬ অক্টোবর ফ্রান্সের প্যারিসের শহরতলী এলাকায় এক স্কুলশিক্ষককে ১৮ বছর বয়সী চেচেন জাতিগোষ্ঠীর এক কিশোর গলা কেটে হত্যা করে। নিহত ওই শিক্ষক রাষ্ট্রবিজ্ঞান পড়াতেন। ‘মতপ্রকাশের স্বাধীনতা’ ক্লাসে তিনি শিক্ষার্থীদের মহানবী মুহাম্মদ (সা.)-এর কার্টুন দেখিয়ে ছিলেন। তারপর তাকে হত্যা করা হয়।