পশ্চিমবঙ্গে নিলামে উঠছে ‘শত্রু সম্পত্তি’

ঢাকা, সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ৫ ফাল্গুন ১৪২৬

পশ্চিমবঙ্গে নিলামে উঠছে ‘শত্রু সম্পত্তি’

ডেস্ক রিপোর্ট ১:০৫ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০২০

print
পশ্চিমবঙ্গে নিলামে উঠছে ‘শত্রু সম্পত্তি’

ভারতে ‘শত্রু সম্পত্তি’ হিসেবে চিহ্নিত বিভিন্ন জমি-বাড়ির প্রথম দফার নিলামের প্রস্তুতি শুরু করেছে দেশটির কেন্দ্রীয় সরকার। দিল্লিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্রের বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, যেসব শত্রু সম্পত্তিতে মামলার জটিলতা নেই- প্রথমে পশ্চিমবঙ্গে সেগুলোর তালিকা তৈরি করে নিলামে তোলা হচ্ছে। এই ‘পাইলট প্রোজেক্ট’ সফল হলে অন্যান্য রাজ্যেও একই প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হবে।

১৯৪৭ সালে দেশভাগের পর বা পঁয়ষট্টি ও একাত্তরের যুদ্ধের সময় যারা ভারত ছেড়ে পাকিস্তানে চলে যান তাদের ফেলে যাওয়া জমি-বাড়িকেই ভারত সরকার শত্রু সম্পত্তি হিসেবে অধিগ্রহণ করে থাকে। তিন বছর আগে পার্লামেন্টে আইন সংশোধন করে শত্রু সম্পত্তির ওপর ওয়ারিশদের দাবি জানানোর অধিকারও অনেকটাই কেড়ে নেওয়া হয়েছে।

দিল্লিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের শত্রু সম্পত্তির হেফাজতকারী বিভাগের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, দেশে এই ধরনের সম্পত্তির সংখ্যা সবচেয়ে বেশি উত্তরপ্রদেশে- প্রায় হাজার পাঁচেক। এরপরই সবচেয়ে বেশি শত্রু সম্পত্তি আছে পশ্চিমবঙ্গে, ২৭৩৫টি। ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ বা ভারত-চীন যুদ্ধের সময় দেশত্যাগীদের ফেলে যাওয়া এসব সম্পত্তি বেচে সরকার অন্তত এক লক্ষ কোটি রুপি তুলতে পারবে বলে ধারণা করা হয়- যার প্রথম পদক্ষেপ পশ্চিমবঙ্গ থেকে শুরু হচ্ছে।

এই ধরনের পরিস্থিতি এড়াতেই নরেন্দ্র মোদি সরকার বছর তিনেক আগে শত্রু সম্পত্তি আইন সংশোধন করে। নতুন আইনে বলা হয়, সরকার কোনো শত্রু সম্পত্তির দখল নিলে তার দাবিদার বা উত্তরাধিকারীরা আপিল করার জন্য মাত্র দুমাস সময় পাবেন- তাও সেটা হতে হবে সরাসরি কোনো হাইকোর্টে।

সংবিধান বিশেষজ্ঞ দর্শনা মিত্র বলছিলেন, এ ধরনের সম্পত্তির দখল ফিরে পাওয়া ভারতের আইনে ক্রমশই কঠিন করে তোলা হয়েছে। মানে দেশভাগের কারণে এই মুলুক ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন - এই দৃষ্টিতে আগে যাদের দেখা হত, একটার পর একটা ইন্দো-পাকিস্তান যুদ্ধের জেরে তাদেরকেই এখন সরাসরি শত্রু বলে চিহ্নিত করা হচ্ছে। আগে যত সহজে নিজেদের সম্পত্তি ফিরে পেতে পারতেন, এখন সেটাকে ক্রমশ অনেক অনেক বেশি কঠিন করে তোলা হয়েছে।