দ্রুত উজাড় হচ্ছে অ্যামাজনের বনাঞ্চল

ঢাকা, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

দ্রুত উজাড় হচ্ছে অ্যামাজনের বনাঞ্চল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ৯:১৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৯, ২০১৯

print
দ্রুত উজাড় হচ্ছে অ্যামাজনের বনাঞ্চল

তাপমাত্রা বৃদ্ধি, সমুদ্রপৃষ্টের উচ্চতা বৃদ্ধি, বন্যা, হারিকেন, ভূমিকম্প, দাবানল ইত্যাদি কারণে বনাঞ্চল ধ্বংস হচ্ছে প্রতিনিয়ত। মনুষ্যসৃষ্ট প্রভাব, বিশ্বব্যাপী নগরায়ন-শিল্পায়ন এবং জ্বালানির চাহিদা মেটাতে গিয়েও বনাঞ্চল উল্লেখযোগ্যহারে হ্রাস পাচ্ছে।

গত সপ্তাহে ব্রাজিলের মহাকাশ সংস্থা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর স্পেস রিসার্স (আইএনপিই) জানিয়েছিল, ২০১৮ সালের আগস্ট থেকে এ বছরের জুলাই পর্যন্ত ‘পৃথিবীর ফুসফুস’ খ্যাত অ্যামাজনের ৯ হাজার ৭৬২ বর্গ কিলোমিটার বনাঞ্চল ধ্বংস হয়েছে। গত এক দশকে এই হার সর্বোচ্চ। তবে এখন সংস্থাটি বলছে, বাস্তবে বন ধ্বংসের হার আরও বেশি।

সংশোধিত পরিসংখ্যান অনুযায়ী বিগত এক বছরে উজাড় হয়েছে ১০ হাজার ১০০ বর্গ কিলোমিটার বনাঞ্চল। রয়টার্সের প্রতিবেদন থেকে গতকাল এসব তথ্য জানা গেছে। আগস্টে আইএনপিই জানায় প্রতিদিন রেকর্ড গতিতে পুড়ছে অ্যামাজন জঙ্গল।

পরিবেশবাদীরা বলছেন, অ্যামাজনকে বাণিজ্যের জন্য উন্মুক্ত করার সরকারি নীতির কারণেই আগুন লাগানোর মহোৎসব শুরু হয়। দেশটির বাণিজ্যপন্থী প্রেসিডেন্ট বলসোনারোর আমলে এই বনাঞ্চল ধ্বংসের গতি বেড়েছে। তবে ওই সময়ে আইএনপিই’র পরিসংখ্যানের যথার্থতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন প্রেসিডেন্ট বলসোনারো।

সর্বশেষ ২০০৮ সালে ১২ হাজার ২৮৭ বর্গ কিলোমিটার উজার হয়েছিল, যা দেশটির ইতিহাসে সর্বোচ্চ। আর ২০১৭ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত এই উজারের পরিমাণ ছিলো ৭ হাজার ৩৩ বর্গ কিলোমিটার।

এর আগের হিসেবে দেখা যায়, এ বছরের প্রথম আট মাসে আগের বছরের চেয়ে দ্বিগুণ হারে বন উজার হয়েছে। গত ১৫ আগস্ট থেকে জ্বলছে ‘দুনিয়ার ফুসফুস’ খ্যাত ব্রাজিলের অ্যামাজন জঙ্গল। আগের যে কোনও সময়ের চেয়ে এবারের আগুন সবচেয়ে ভয়াবহ।