ভারতে বন্যায় অন্তত ৩২ জনের মৃত্যু

ঢাকা, বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯ | ৫ ভাদ্র ১৪২৬

ভারতে বন্যায় অন্তত ৩২ জনের মৃত্যু

ডেস্ক রিপোর্ট ১০:৩০ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ০৯, ২০১৯

print
ভারতে বন্যায় অন্তত ৩২ জনের মৃত্যু

গত কয়েক দিনের লাগাতার বর্ষণে ভারতের মহারাষ্ট্র, কর্ণাটক, কেরল, তামিলনাড়ু ও ওড়িশা রাজ্যে প্রবল বন্যা শুরু হয়েছে। বন্যার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে অন্ধ্রপ্রদেশ, রাজস্থান, ছত্তিশগড়, উত্তরপ্রদেশেও। এসব রাজ্যে গত এক সপ্তাহে অন্তত ৩২ জনের মৃত্যু হয়েছে। রাজ্যটিতে অন্তত দেড় লাখ পানিবন্দি মানুষকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। কেরালা রাজ্যে রেড এলার্ট জারি করা হয়েছে। মুম্বাই ও ব্যাঙ্গালোরের মধ্যবর্তী মহাসড়কের কয়েকটি অংশ ডুবে যাওয়ায় হাজার হাজার ট্রাক আটকে রয়েছে। বন্ধ রয়েছে বিভিন্ন রুটের ট্রেন চলাচল। বন্যা প্লাবিত জেলাগুলোর স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। গৃহহীন ও নিখোঁজের সংখ্যাও প্রতিদিনই বাড়ছে।

বন্যায় সবচেয়ে করুণ অবস্থা মহারাষ্ট্রে। সেখানে প্রায় দেড় লাখ মানুষকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। রাজ্যের বহু গ্রাম, শহর তলিয়ে গিয়েছে।

সংবাদ সংস্থা পিটিআই জানায়, বন্যায় গত সাত দিনে পশ্চিম মহারাষ্ট্রে মৃত্যু হয়েছে অন্তত ১৬ জনের। মুম্বাই ও পুনেসহ বিভিন্ন শহরের অসংখ্য রুটে রেল চলাচল বন্ধ রয়েছে। এদিকে ইদুক্কি, মালাপ্পুরম ও কোঝিকোড় জেলাসহ কেরলের একটি বিস্তীর্ণ অংশ ডুবে গেছে। ওই তিনটি জেলায় জারি হয়েছে রেড অ্যালার্ট। কয়েকটি জেলায় অরেঞ্জ অ্যালার্ট জারি রয়েছে। তামিলনাড়ুতেও বন্যায় দু’জনের মৃত্যু হয়েছে। জখম হয়েছেন তিনজন।

ওড়িশার বন্যা পরিস্থিতিও ভয়াবহ। বন্যায় রাজ্যের বড় একটা অংশ ডুবে গেছে।

এদিকে উত্তরপ্রদেশ সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, গত কয়েক দিনের প্রবল বর্ষণে রাজ্যে অন্তত ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। বেশির ভাগেরই মৃত্যু হয়েছে বজ্রপাতে, হারদোয়েইয়ে। একজনের মৃত্যু হয়েছে গোরক্ষপুরে। গৌতম বুদ্ধ নগরে জলে ডুবে মৃত্যু হয়েছে চারজনের। বুলন্দশহর ও কানপুরেও মৃত্যু হয়েছে দু’জনের।

ছত্তিশগড়েও অন্তত পাঁচটি জেলায় বন্যা দেখা দিয়েছে। রায়পুর, মহাসমুন্দ, গরিয়াবান্দ, ধামতারি ও বালোদাবাজারেও পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে। আবহাওয়া অফিসের পূর্বাভাস অনুযায়ী, আগামী ২৪ ঘণ্টায় ভারী বর্ষণ হতে পারে নারায়ণপুর, বস্তার, বিজাপুর, সুকমা ও দন্তেওয়াড়া জেলায়।