গণভোট হলে রাশিয়ার সঙ্গে আর আলোচনা হবে না: জেলেনস্কি

ঢাকা, রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ১০ আশ্বিন ১৪২৯

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

গণভোট হলে রাশিয়ার সঙ্গে আর আলোচনা হবে না: জেলেনস্কি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
🕐 ১০:১৪ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ০৮, ২০২২

গণভোট হলে রাশিয়ার সঙ্গে আর আলোচনা হবে না: জেলেনস্কি

রাশিয়ার সঙ্গে যুক্ত করতে দখলকৃত ইউক্রেনীয় ভূখণ্ডগুলোতে মস্কো গণভোট আয়োজন করলে দেশটির সঙ্গে আর কোনো আলোচনা হবে না বলে মন্তব্য করেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জলেনস্কি। তিনি বলেছেন, মস্কো যদি রাশিয়ায় যোগদানের বিষয়ে তার দেশের দখলকৃত এলাকায় গণভোট আয়োজনে এগিয়ে যায় তবে ইউক্রেন বা তার আন্তর্জাতিক মিত্রদের সাথে কোনো আলোচনা হতে পারে না।

সোমবার (৮ আগস্ট) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাশিয়ান বাহিনী ও তাদের বিচ্ছিন্নতাবাদী মিত্ররা এখন পূর্ব ইউক্রেনের ডনবাস অঞ্চলে এবং দক্ষিণাঞ্চলের বিশাল অংশ দখল করে আছে। উভয় এলাকার কর্মকর্তারা সেখানে গণভোট অনুষ্ঠিত হওয়ার সম্ভাবনার কথা জানিয়েছেন।

রোববার রাতে দেওয়া ভিডিও ভাষণে প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি বলেন, ইউক্রেন রাশিয়ার কাছে কোনো অঞ্চল ছেড়ে দেবে না এবং এ বিষয়ে কিয়েভ তার অবস্থান ধরে রেখেছে। তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশের অবস্থান বরাবরই যা ছিল তাই রয়ে গেছে। আমরা আমাদের কোনো কিছুই (রাশিয়ার হাতে) ছেড়ে দেবো না।’

জেলেনস্কির ভাষায়, ‘যদি দখলদাররা ভুয়া-গণভোটের পথ ধরে এগিয়ে যায় তবে ইউক্রেন এবং মুক্ত বিশ্বের সাথে আলোচনার যেকোনো সুযোগ হারাবে রাশিয়া। তবে আলোচনার এই সুযোগ রাশিয়ার জন্য স্পষ্টভাবেই প্রয়োজন হবে।’

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে রাশিয়ান বাহিনী ইউক্রেনে তাদের আগ্রাসন শুরু করার পরপরই রুশ ও ইউক্রেনের কর্মকর্তারা বেশ কয়েকটি আলোচনায় অংশ নেন। কিন্তু এসব শান্তি আলোচনায় সামান্যই অগ্রগতি হয়েছে এবং মার্চের শেষের দিক থেকে এখন পর্যন্ত আর কোনো সভা অনুষ্ঠিত হয়নি। (আলোচনায় অচলাবস্থার) জন্য উভয় পক্ষই অপরকে দোষারোপ করেছে।

তবে রাশিয়ান বাহিনী দক্ষিণ ইউক্রেনের খেরসন অঞ্চলের বেশিরভাগ অংশ দখল করে আছে এবং দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা ইঙ্গিত দিয়েছেন, রাশিয়ায় যোগদানের বিষয়ে একটি গণভোট আগামী সপ্তাহ বা মাসের মধ্যে অনুষ্ঠিত হতে পারে।

এছাড়া ২০১৪ সালে রাশিয়াপন্থি বিচ্ছিন্নতাবাদীরা ডনবাসের কিছু অংশ দখল করে স্বাধীনতার গণভোট আয়োজন করে এবং লুহানস্ক ও দোনেতস্ক অঞ্চলকে ‘পিপলস রিপাবলিক’ ঘোষণা করে। গত ফেব্রুয়ারি মাসে আক্রমণের প্রাক্কালে ক্রেমলিন এই দুই প্রজাতন্ত্রকে স্বীকৃতি দেয়।

লুহানস্ক অঞ্চলের গভর্নর গত সপ্তাহান্তে ইঙ্গিত দিয়েছেন যে, রাশিয়া নতুন দখলকৃত এলাকায় একটি গণভোটের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে এবং এই ভোটে অংশ নেওয়ার জন্য বাসিন্দাদের সুবিধাও প্রদান করছে।

 
Electronic Paper