‘জাপোরিঝজিয়া পরমাণু স্থাপনার নিয়ে উদ্বেগ রাশিয়ার’

ঢাকা, বুধবার, ৫ অক্টোবর ২০২২ | ২০ আশ্বিন ১৪২৯

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

‘জাপোরিঝজিয়া পরমাণু স্থাপনার নিয়ে উদ্বেগ রাশিয়ার’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
🕐 ১০:০৮ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ০৭, ২০২২

‘জাপোরিঝজিয়া পরমাণু স্থাপনার নিয়ে উদ্বেগ রাশিয়ার’

ইউক্রেনের জাপোরিঝজিয়া পরমাণু স্থাপনার ভবিষ্যত নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে রাশিয়া। দেশটি বলেছে, এই পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি চেরনোবিল বিপর্যয়ের ভাগ্য বরণ করতে পারে। রাশিয়া ও ইউক্রেন গত কিছুদিন ধরে ইউরোপের এই বৃহত্তম পারমাণবিক শক্তি উৎপাদন কেন্দ্রে হামলা চালানোর জন্য পরস্পরকে দায়ী করে আসছে।

রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অস্ত্র বিস্তার রোধ ও অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ বিষয়ক সিনিয়র কর্মকর্তা ইগোর ভিশনেভেতস্কি বলেছেন, ইউক্রেনের জাপোরিঝজিয়া অঞ্চলে অবস্থিত পরমাণু স্থাপনাটিতে কামানের গোলাবর্ষণ করে যাচ্ছে ইউক্রেনের সেনারা। তিনি বলেন, এভাবে গোলাবর্ষণ অব্যাহত থাকলে স্থাপনাটি... ১৯৮৬ সালের চেরনোবিল বিপর্যয়ের ভাগ্য বরণ করতে পারে। অবিলম্বে এই গোলাবর্ষণ বন্ধ করতে কিয়েভের ওপর চাপ সৃষ্টি করার জন্য তিনি আমেরিকা, ইউরোপ ও আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি সংস্থা- আইএইএ’র প্রতি আহ্বান জানান।

এর দু’দিন আগে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছিল, ‘‘ইউক্রেনের গোলাবর্ষণের কারণে জাপোরিঝজিয়া স্থাপনার কিছু যন্ত্রপাতিতে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে গেছে। বিবৃতিতে বলা হয়, ইউক্রেনের সেনাদের গোলাবর্ষণে স্থাপনাটিতে ছোটখাট আগুন ধরে গিয়েছিল যা দ্রুত নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়, ‘নিছক ভাগ্যের কারণে’ ওই আগুন একটি বড় ধরনের পারমাণবিক বিপর্যয় সৃষ্টি করেনি।

জাপোরিঝজিয়া পাওয়ার প্ল্যান্টটি ইউরোপের সর্ববৃহৎ পারমাণবিক স্থাপনা। আর পুরো পৃথিবীর মধ্যে এটি তৃতীয় সর্ববৃহৎ প্ল্যান্ট। গত ৪ মার্চ স্থাপনাটি দখল করে রুশ সেনারা...। এরপর এটি তাদের তত্ত্বাবধানেই চলছে। এই প্ল্যান্টটি থেকে ইউক্রেনে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়।

গত কয়েকদিন ধরে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউক্রেনের কর্মকর্তারা দাবি করছেন, প্ল্যান্টটিকে ঘাঁটি বানিয়ে সেখান থেকে হামলা চালাচ্ছে রুশ সেনারা। কিন্তু বিপদের কথা চিন্তা করে সেখানে পাল্টা হামলা করতে পারছে না ইউক্রেনের সেনারা।তবে রাশিয়া বলছে, ইউক্রেনের সেনারা ওই স্থাপনায় নিয়মিত গোলাবর্ষণ করে যাচ্ছে’’।

 
Electronic Paper