মহামারী রূপ নিতে পারে নিপা ভাইরাস

ঢাকা, বুধবার, ১২ আগস্ট ২০২০ | ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭

মহামারী রূপ নিতে পারে নিপা ভাইরাস

নিজস্ব প্রতিবেদক ১০:১৬ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১০, ২০১৯

print
মহামারী রূপ নিতে পারে নিপা ভাইরাস

খেঁজুরের রস থেকে বাদুড়ের মাধ্যমে নিপা ভাইরাস ছড়িয়ে থাকে। বাংলাদেশে সাধারণত ডিসেম্বর থেকে এপ্রিলের মধ্যে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যায়।

এ সময়টাতেই খেঁজুরের রস সংগ্রহ করা হয়। গাছে বাঁধা হাঁড়ি থেকে রস খাওয়ার সময় বাদুড়ের লালা মিশে যায়। পরে বাদুড় নিপা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে থাকে। আর সেই রস খেলে মানুষের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়তে পারে এই ভাইরাস।

এভাবে আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে ব্যাপক আকারে ছড়াতে পারে এ রোগ। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নিপা আক্রান্তদের চিকিৎসায় এখনো কোনো ওষুধ কিংবা টিকা উদ্ভাবন হয়নি। ফলে এতে মৃত্যুর হার ৪০ থেকে ৯০ শতাংশ।

১৯৯৯ সালে নিপা ভাইরাস প্রথম মালয়েশিয়ায় শনাক্ত হয়। এর দুই বছরের মধ্যেই বাংলাদেশে ছড়িয়ে পড়ে। এরপর থেকে মেহেরপুর, নওগাঁ, রাজবাড়ী, ফরিদপুর, টাঙ্গাইল, ঠাকুরগাঁও, কুষ্টিয়া, মানিকগঞ্জ ও রংপুরে নিপা ভাইরাস সংক্রমণের খবর পাওয়া যায়। চিকিৎসকরা বলছেন, এ সংক্রমণ রোধে খেজুর গুড় ও রস, আখের রস, পেঁপে, পেয়ারা, বরইয়ের মতো ফল খেতে সতর্ক থাকতে হবে।

২০১১ সালে বাংলাদেশে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ১৪ জনের মৃত্যুর খবর দিয়েছিল রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর)। আর গত বছর ভারতের কেরালায় নিপা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ১৭ জনের মৃত্যু হয়।

সিঙ্গাপুরে গতকাল সোমবার নিপা ভাইরাসবিষয়ক এক সম্মেলন শুরু হয়। এতে সহ-আয়োজক কোয়ালিয়শন ফর এপিডেমিক প্রিপেয়ার্ডনেস ইনোভেশনসের (সিইপিআই) প্রধান নির্বাহী রিচার্ড হ্যাচেট বলেন, নিপা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব এখন পর্যন্ত দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় সীমাবদ্ধ। তবে এটি মারাত্মক মহামারীর রূপ নিতে পারে।

রোগের লক্ষণ : এ ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তি জ্বর ও মানসিক অস্থিরতায় ভোগেন। এক পর্যায়ে খিঁচুনিও দেখা দিতে পারে। মস্তিষ্কে ভয়াবহ প্রদাহও দেখা দেয়।

সাবধানতা : নিপা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে খেজুর গুড় ও রস, আখের রস, পেঁপে, পেয়ারা, বরইয়ের মতো ফল খেতে সতর্র্ক থাকতে হবে।