লোমশ হয়ে উঠছে দেহ

ঢাকা, বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯ | ১ কার্তিক ১৪২৬

বিরল রোগে আক্রান্ত মুনিরা

লোমশ হয়ে উঠছে দেহ

ডেস্ক রিপোর্ট ১০:৫৮ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৯

print
লোমশ হয়ে উঠছে দেহ

দিন দিন নানা জটিল রোগের প্রতিষেধক এবং আধুনিক চিকিৎসা পদ্ধতি আবিষ্কার হলেও এখনো পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে অদ্ভুত রোগে মানুষকে ভুগতে দেখা যায়। চাঁপাইনবাবগঞ্জে এমনই এক বিরল রোগে আক্রান্ত তাসপিয়া জাহান মুনিরা (৪) নামে এক শিশুর সন্ধান মিলেছে। যে রোগ শিশুটি বয়ে বেড়াচ্ছে সেটি তার ছোট্ট শরীরের জন্য যেমন যন্ত্রণাদায়ক, তেমনি তার পরিবারের জন্যও মানসিক পীড়াদায়ক।

যত দিন যাচ্ছে তত লোমশ হয়ে উঠছে মুনিরার দেহ। আর শিশুটির সুস্থতার ব্যাপারেও কোনো চিকিৎসকের কাছ থেকে আশার আলোই দেখতে পাচ্ছে না তার পরিবার। 

বিবিসি বাংলা অনলাইনের প্রতিবেদন এমনই বলছে। শিশুটির পরিবার জানায়, মুনিরার জন্ম উত্তরবঙ্গের নাটোরের একটি হাসপাতালে। জন্মের সময় খুব ফুটফুটে সুন্দর ছিল সে। তাই পরিবার শখ করে তার নাম রাখে তাসপিয়া জাহান মুনিরা। কিন্তু কয়েক ঘণ্টা পর ডাক্তার জানালেন শিশুটির শরীরের পিছনে একটি কালো আকৃতির ছোট টিউমার রয়েছে। শিশুর মা তানজিলা খাতুন জানান, জন্মের ছয়দিন পর হাসপাতাল থেকে মুনিরাকে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে চলে যাই। বাড়ি নেওয়ার পর পুরো শরীর ফেটে যায়।

এরপর তাকে রাজশাহী মেডিকেলে ভর্তি করা হয়। সেখানে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ডাক্তাররা কিছু ওষুধ দিল। সেই ওষুধ সেবন চলে। কিন্তু‘ শরীরের তীব্র জ্বালা যন্ত্রণা কিছুতেই কমছিল না। দেড় বছর বয়সের সময় আবার রাজশাহী হাসপাতালে নেওয়া হলো। তখন ডাক্তাররা বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে জানালেন এই রোগের নাম ‘জায়ান্ট পিগমেন্টেড হেয়ারি এপিডার্মাল নেভাস’। এই রোগের চিকিৎসা কীভাবে করবেন তা বুঝে উঠতে পাচ্ছিলেন না ডাক্তাররা। তারপরও ডাক্তারের পরামর্শক্রমে বিভিন্ন ওষুধ দিয়ে সাধ্যমতো চিকিৎসা চালিয়ে যাচ্ছিল তার দিনমজুর পরিবার। এরই মধ্যে রোগের লক্ষণগুলো অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে মুনিরার পুরো শরীর লোমশ আকৃতির দেখা দিয়েছে।

মুনিরার মা আরও জানান, দিনের পর দিন শরীরের পুরো অংশ কালো হয়ে লোম গজাচ্ছে। রাত হলে শরীর চুলকাতে বলে খুব কান্নাকাটি করে মেয়েটি। সে সময় শরীরের তাপমাত্রাও অনেকে বেড়ে যায়। তখন ভেজা কাপড় দিয়ে শরীর মুছে দিতে হয়। এভাবে প্রতি রাতেই তিন থেকে চারবার ভেজা কাপড় দিয়ে শরীর মুছে দিতে হয় এমনকি গোসলও করাতে হয়। কোনো কাপড় পরলেই শরীর চুলকায়। তার শরীর দিনের পর দিন এভাবে অস্বাভাবিক অবস্থায় চলে যাওয়ায় পুরো পরিবার দুশ্চিন্তায় কাটাচ্ছেন প্রতি মুহূর্ত। হাস্যোজ্জ্বল দিনমজুরের সন্তান মুনিরার চিকিৎসা ব্যবস্থা হোক এটাই পরিবারের একমাত্র চাওয়া।