প্রতিদিন ডার্ক চকোলেট

ঢাকা, বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮ | ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

প্রতিদিন ডার্ক চকোলেট

স্বাস্থ্য কুশল ডেস্ক ২:৪৫ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০৫, ২০১৮

print
প্রতিদিন ডার্ক চকোলেট

বাচ্চা থেকে বুড়ো চকোলেট পছন্দ করে না এমন কাউকে খুঁজে পাওয়া যাবে না! চকোলেট বার থেকে শুরু করে চকোলেট কেক, চকোলেট মিল্ক শেক, চকোলেট ব্রাউনি, চকোলেট পেস্ট্রি-নাম শুনলেই সবার জিভে জল চলে আসে। চকোলেট শুধু রসনার তৃপ্তি আনে তাই না, ডার্ক চকোলেটের আছে নানা উপকারিতা।

চকোলেট তৈরির মূল উপাদান কোকোয়া বিনে আছে প্রচুর পরিমাণ এন্টি-অক্সিডেন্ট। এন্টি-অক্সিডেন্ট আমাদের শরীরের জন্য দারুণ উপকারী। সাধারণত চকোলেটের তিতকুটে স্বাদ দূর করতে এতে চর্বি ও চিনি যোগ করা হয়। কিন্তু এতে চকোলেটের গুণাবলী অনেকটাই নষ্ট হয়ে যায়। তাই চকোলেট থেকে উপকার পেতে যেসব চকলেটে কোকোয়ার পরিমাণ অন্তত ৭০ শতাংশ বা তার ওপরে সেসব চকোলেট খেতে হবে। আসুন দেখে নিই কোন ছয়টি উপকার পেতে প্রতিদিন চকলেট খাবেন।

অ্যান্টি-অক্সিডেন্টে ভরপুর
চকোলেটে আছে প্রচুর পরিমাণ পলিফেনল, ফ্যাভানল, ক্যাটেচিন ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। অন্য অনেক ফল যেমন ব্লু বেরি, ক্রানবেরি ও বেদানার থেকেও এতে বেশি পরিমাণ অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট পাওয়া যায়। কিছু গবেষণায় দেখা গেছে চকোলেটের সঙ্গে দুধ মেশালে চকলেটে থাকা অ্যান্টি-অক্সিডেন্টগুলো শরীরে শোষিত হয় না। তাই চকোলেট থেকে উপকার পেতে Dairz Free চকলেট খান।

কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে
নানা গবেষণায় দেখা গেছে ডার্ক চকোলেট রক্তে চিনি ও কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে ভূমিকা রাখে। চকোলেটে থাকা অ্যান্টি অক্সিডেন্টগুলোই এলডিএল বা ব্যাড কোলেস্টেরল ও শরীরে ইনসুলিনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে।

অতি বেগুনি রশ্মি থেকে বাঁচায়
চকোলেট তৈরির মূল উপাদান কোকোয়া ফ্লাভিনয়েডে ভরপুর। এ উপাদানটি ত্বককে সূর্যের অতি বেগুনি রশ্মি থেকে রক্ষা করে।

হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়
চকোলেট যেহেতু কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে তাই এটা হৃদরোগের ঝুঁকিও কমায়। বেশকিছু গবেষণায় দেখা গেছে সপ্তাহে এক থেকে দুইবার ডার্ক চকোলেট খেলে তা হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে অনেকাংশেই সাহায্য করে।

মুড ভালো করে
চকোলেট খেলে নিমেষে মন ভালো হয়ে যায়। ব্যাপারটা শুধু যে আমাদের মস্তিষ্কের একটা অনুভূতি তাই নয়, চকলেটে থাকা পলিফেনল বিষণ্ণতা ও দুশ্চিন্তা দূর করে মুড ভালো করতে সাহায্য করে। চকোলেট খেলে প্রাকৃতিকভাবেই আমাদের শরীরে সেরাটনিনের মাত্রা বৃদ্ধি পায়।

মস্তিষ্কের কার্যক্রম উন্নত করে
চকোলেট আমাদের মস্তিষ্কের সক্ষমতা বাড়ায়। নিয়মিত চকোলেট খেলে আমাদের শেখার সক্ষমতা বাড়ে। এটা দীর্ঘস্থায়ী স্মৃতি ও ক্ষণস্থায়ী স্মৃতি দুটোই সংরক্ষণে সাহায্য করে। নানা গুণের কারণে চকোলেটকে বলা হয় সুপার ফুড। তাই সুস্থ থাকতেই শুধু নয় মুড ভালো করতে বা মস্তিষ্কের সক্ষমতা বাড়াতে নিয়মিত চকোলেট খান।