শিশুদের ঘন ঘন অসুখ

ঢাকা, বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮ | ৩০ কার্তিক ১৪২৫

শিশুদের ঘন ঘন অসুখ

স্বাস্থ্য কুশল ডেস্ক ১:২০ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০৬, ২০১৮

print
শিশুদের ঘন ঘন অসুখ

শিশুদের নিউমোনিয়া, সর্দি-কাশি খুব কমন একটি সমস্যা। তাই শীতের প্রকোপ থেকে রক্ষা পেতে বাবা-মাকে কিছু সুনির্দিষ্ট নিয়ম মেনে চলা উচিত। এ ছাড়া শিশুদের ত্বক হয় খুব সংবেদনশীল এবং স্পর্শকাতর। শীতের আর্দ্র আবহাওয়াতে শিশুর ত্বক হয়ে যায় শুষ্ক ও নিষ্প্রাণ। শুষ্ক চামড়ার কারণে শিশুরা আরও বেশি সমস্যার সম্মুখীন হয়। তাই অন্য ঋতুর চেয়ে শীতকালে প্রয়োজন বাড়তি সতর্কতা। আসুন তাহলে জেনে নিই এই শীতে কীভাবে নেবেন শিশুর যত্নে...

গোসল
অনেকেই শীতকালে বাচ্চাদের গোসল করাতে ভয় পান। গোসল করালে বাচ্চারা অসুস্থ হয়ে পড়বে এটাই বেশিরভাগ বাবা-মায়ের ধারণা। কিন্তু ব্যাপারটি পুরোটাই ভিন্ন। বাচ্চাদের শীতকালে আরও বেশি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। শিশুর শরীরের তেল ও ময়লা ধুয়ে ফেলতে গোসল করানো জরুরি।

গোসল করানোর সময় বাচ্চাদের উপযোগী সাবান ব্যবহার করতে হবে। কারণ, বড়দের সাবানে অনেক বেশি ক্ষার থাকে এবং এই ক্ষার শিশুদের ত্বকের জন্য ক্ষতিকারক। গোসলের জন্য কুসুম কুসুম গরম পানি ব্যবহার করা ভালো। খুব বেশি সময় ধরে শিশুকে গোসল করাবেন না। গোসল শেষে দ্রুত শরীর ও মাথা ভালোভাবে মুছে ফেলতে হবে। গোসল শেষ করে হালকা রোদে বসতে পারলে শিশু বেশ আরাম পাবে।

ময়েশ্চারাইজার
শীতে যে কোনো শিশুর ত্বকের যত্নে সব থেকে যেটি বেশি জরুরি সেটা হলো ময়েশ্চারাইজার। শিশুর ত্বক শুষ্ক থেকে আর্দ্র করার প্রক্রিয়াকে ময়েশ্চারাইজার বলে। গোসলের পর বাচ্চাদের উপযোগী অলিভ ওয়েল অথবা ময়েশ্চারাইজিং বেবি লোশন ব্যবহার করুন। শিশুকে গোসল করানোর পর নরম কোনো বেবি টাওয়েল দিয়ে শরীর মুছিয়ে তারপর ময়েশ্চারাইজার লাগাতে হয়।

শীতের পোশাক
শীত থেকে বাচ্চাদের নিরাপদ রাখার প্রথম ও প্রধান শর্ত হলো, শিশুকে পর্যাপ্ত পরিমাণ কাপড় পরানো। শীত থেকে রক্ষা করার জন্য শুধু গরম পোশাক পরালেই চলবে না। বড়দের চাইতে বাচ্চা বা অল্প বয়স্ক শিশুদের শরীরে শীতের অনুভূতি বেশি থাকে। তাই বাচ্চাদের যাতে ঠা-া লেগে না যায় তার জন্য শীতের তীব্রতা অনুযায়ী পোশাক পরাতে হবে।

বেশি শোষণ ক্ষমতার ডায়াপার ব্যবহার
শীতকালে ডায়াপার ভিজে গেলে বা লিক করলে বাচ্চার ঠাণ্ডা লেগে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এ জন্য অবশ্যই উচ্চ শোষণ ক্ষমতার এবং লিক-প্রুফ ডায়াপার ব্যবহার করতে হবে। প্রতি ছয় ঘণ্টা পরপর ব্যবহৃত ডায়াপারটি চেঞ্জ করে দিন, যদিও তা শুকনো থাকে।

শীতের খাবার
শীতে শিশুর খাবার বেছে নিতে একটু বিবেচনা করে পছন্দ করতে হয়। শীতে শিশুরা অতিরিক্ত ভিটামিন-সি পাবে এমন খাবার দিতে হবে। লেবু, কমলা, মাল্টা, আমলকি এসব ফল দেওয়া ভালো। তবে যারা চিবিয়ে খেতে পারে না, তাদের ফলের রস করে খাওয়াতে পারেন।