সিএসই বিষয়ে পড়াশোনা

ঢাকা, সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১ | ৬ বৈশাখ ১৪২৮

সিএসই বিষয়ে পড়াশোনা

নূর আলম ১:৩১ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২১

print
সিএসই বিষয়ে পড়াশোনা

সময়োপযোগী পড়াশোনা ছাড়া চাকরির বাজারে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করা সম্ভব নয়। এক্ষেত্রে তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর শিক্ষা কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিষয়ে উচ্চশিক্ষা অর্জন করতে পারেন। ১৯৯৬ সালে ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে চালু হয় কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ। বর্তমানে এ বিভাগে ইউনিভার্সিটিতে প্রায় ২ হাজার শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত। এখানকার পাসকৃত এসব শিক্ষার্থী দেশ ও বিদেশের নামীদামি বিভিন্ন সরকারি এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মে নিয়োজিত রয়েছেন। এরা প্রত্যেকেই নিজ নিজ কর্মস্থলে অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে সাফল্যের স্বাক্ষর রাখছেন। এ ইউনিভার্সিটির গর্ব হলো এখানে রয়েছে মানসম্পন্ন অত্যাধুনিক ল্যাবরেটরি এবং মাল্টিমিডিয়া সুবিধাসহ সুসজ্জিত ক্লাসরুম।

এ বিভাগের অধীনে রয়েছে আটটি সুবৃহৎ কম্পিউটার ল্যাবরেটরি। ল্যাবরেটরিতে রয়েছে প্রায় ৩০০টি অত্যাধুনিক কম্পিউটার। রয়েছে যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলা গতি সম্পন্ন ইন্টারনেট ও ফ্রি ওয়াইফাই সার্ভিস। এ বিভাগের অধীনে তিনটি কোর্স পরিচালনা করা হয়। কোর্সগুলো হলো বিএসসি ইন সিএসই (দিবা/সান্ধ্যকালীন), এমএসসি ইন সিএসই। এ ছাড়া ৪টি শর্ট সার্টিফিকেট কোর্স পরিচালনা করা হয়। কোর্সগুলো হলো ওয়েব ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট, এন্ড্রয়েড, নেটওয়ার্কিং এবং ডাটাবেজ ম্যানেজমেন্ট।

উপদেষ্টা হিসেবে এই বিভাগের দায়িত্ব পালন করছেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক প্রো-ভিসি অধ্যাপক ড. হাফিজ মো. হাসান বাবু। তিনি বলেন, অন্যান্য ইউনিভার্সিটির তুলনায় এখানে টিউশন ফি অনেক কম। তবে লেখাপড়ার মান উন্নত। কোয়ালিটির ব্যাপারে ছাড় দেওয়া হয় না। তাই এখানকার শিক্ষার্থীরা পরবর্তীতে গবেষণায় এবং তাদের কর্মস্থলে সফলতা দেখাতে পারে। এ বিভাগের ডিন অধ্যাপক ড. এটিএম মাহবুবুর রহমান সরকার বলেন, এ ইউনিভার্সিটি থেকে পাসকৃত শিক্ষার্থীরা বিদেশে উচ্চতর শিক্ষা নিচ্ছেন এবং দেশ-বিদেশে বিভিন্ন সফটওয়ার ফার্ম, নেটওয়ার্কিং ফার্মসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে উচ্চপদে কর্মরত রয়েছেন। এখানে অধ্যয়ন করলে, অত্যাধুনিক ল্যাবরেটরি, সমৃৃদ্ধ লাইব্রেরি, বাস্তবভিত্তিক পড়ালেখার পদ্ধতি এবং সর্বোপরি পাস করে চাকরির নিশ্চয়তা পাওয়া যায়। বোর্ড অব স্ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী এমপি বলেন, যে লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে আমার বাবা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের খ্যাতিমান অধ্যাপক ড. এ.বি.এম. মফিজুল ইসলাম পাটোয়ারী ১৯৯৫ সালে এই ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠা করেন, তা অটুট রেখেই আমরা এ ইউনিভার্সিটি পরিচালনা করে আসছি। মূলত নিম্নবিত্ত পরিবারের ছেলেমেয়েদের লেখাপড়ার জন্যই তিনি এটি প্রতিষ্ঠা করেন। উল্লেখ্য, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দিবা শাখার জন্য এখানে টিউশন ফি নেওয়া হয় ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা। ডিপ্লোমাধারীদের জন্য সান্ধ্যকালীন কোর্স ফি নেওয়া হয় ১ লাখ ৯৮ হাজার টাকা।

এমএসসি ইন সিএসই কোর্সের জন্য টিউশন ফি নেওয়া হয় ৮৫ হাজার টাকা। বোর্ড অব স্ট্রাস্টিজের ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এস কাদির পাটোয়ারী জানান, এখানকার পাসকৃত শিক্ষার্থীরা বিদেশে এবং দেশের নামীদামি বিভিন্ন সরকারি এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মে নিয়োজিত রয়েছেন। এরা প্রত্যেকেই নিজ নিজ কর্মস্থলে অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে সাফল্যের স্বাক্ষর রাখছেন। কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী সামিনা আখতারের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির এই গ্রীন রোড ক্যাম্পাসের সুযোগ-সুবিধার কথা। ক্যান্টিন সুবিধা থাকায় খাওয়ার সমস্যা নেই। তাই এখানে দিনভর পড়ালেখা, শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কাউন্সেলিং, আড্ডা, বিনোদন সবই এ ক্যাম্পাসে করা সম্ভব।

কথা হয় কম্পিউটার সায়েন্স ও ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চতুর্থ সেমিস্টারের শিক্ষার্থী হামিদুল হকের সঙ্গে। সে জানায়, এখানে রয়েছে মানসম্পন্ন অত্যাধুনিক ল্যাবরেটরি এবং মাল্টিমিডিয়া সুবিধাসহ সুসজ্জিত ক্লাসরুম। এ ছাড়া এখানে ছাত্র, শিক্ষক এবং সিনিয়র ও জুনিয়র শিক্ষার্থীর মধ্যে অত্যন্ত সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে। ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে ইনস্টিটিউশনাল কোয়ালিটি এডুকেশন সেল (আইকিউএসি) রয়েছে।
এটি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের অধীনে ‘হায়্যার এডুকেশন কোয়ালিটি এনহেন্সমেন্ট প্রজেক্ট (হেকেপ)’ ও ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির মধ্যে সমঝোতা স্মারক অনুযায়ী ৭টি বিভাগের সেলফ অ্যাসেসমেন্ট কমিটি ১ জুলাই ২০১৫ থেকে যথারীতি কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। বিস্তারিত তথ্যের জন্য যোগাযোগ : স্থায়ী ক্যাম্পাস, সাতারকুল, বাড্ডা, ঢাকা। ০১৯৩৯৮৫১০৬০
E-mail: admission@diu.net.bd, Website: www.diu.ac