সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার সুযোগ

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল ২০২১ | ৭ বৈশাখ ১৪২৮

সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার সুযোগ

আবিদ আনোয়ার ৩:১৪ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০২১

print
সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার সুযোগ

সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বা পুরকৌশল একটি পেশাদার শিল্প, যার দ্বারা নকশা প্রণয়ন, নির্মাণ এবং রক্ষণাবেক্ষণ কাজে একজন শিক্ষার্থী সুশিক্ষিত হয়ে উঠবে। তাই বর্তমান বিশ্বে শিক্ষাদীক্ষার বিষয়ে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বা পুরোকৌশল বিদ্যা গুরুত্ব বহন করছে এবং এর চাহিদাও উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ চাহিদার কথা মাথায় রেখে এ কোর্স চালু করেছে ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ।

এ ইউনিভার্সিটির গ্রীন রোড ও বনানীতে ১৫ লাখ বর্গফুটের কয়েকটি সুরম্য অট্টালিকায় ক্লাস পরিচালিত হলেও সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ-এর ক্ষেত্রে ক্লাসের জন্য আলাদা ব্যবস্থা করা হয়েছে। এ কোর্সটি বাড্ডার সাতারকুলে এক মনোরম পরিবেশে এবং একটি নান্দনিক ভবনে শুরু করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির স্থায়ী ক্যাম্পাসের কাজ সেখানে প্রায় শেষ হয়েছে। তাই ইংরেজি ও সমাজ বিজ্ঞানসহ অন্যান্য কোর্সগুলোও সেখানে চালু হয়েছে।

কোর্সটির তত্ত্বাবধানে রয়েছেন প্রখ্যাত অধ্যাপক ড. গণেশচন্দ্র রায়। তিনি জানান, এ কোর্সের জন্য উন্নত গ্রন্থাগার ম্যাটেরিয়ালস ল্যাব, সার্ভেইং ল্যাব, কম্পিউটার ল্যাব, ইনভায়রনমেন্ট ল্যাব চালু করা হয়েছে।
তিনি আরও জানান, ছাত্র-ছাত্রীরা যাতে একজন পেশাদার প্রকৌশলী হিসেবে গড়ে উঠতে পারে তার জন্য এখানে সবধরনের শিক্ষাদান দেওয়া হয়। যাতে তারা বর্তমান কর্মক্ষেত্রের প্রতিযোগিতার বাজারে টিকে থাকতে পারে।

ইউনিভার্সিটির ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. কে এম মহসীন বলেন, ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা মরহুম অধ্যাপক ড. মফিজুল ইসলাম পাটোয়ারী নিম্নবিত্ত পরিবারের ছেলেমেয়েদের উচ্চশিক্ষার কথা চিন্তা করেই প্রতিষ্ঠা করেছেন। তাই অন্যান্য ইউনিভার্সিটির কোর্স ফির চেয়ে তুলনামূলক এখানে কম।

উল্লেখ্য, বিএসসি ইন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স ফি ধরা হয়েছে ২ লাখ ৩১ হাজার ৫০০ টাকা। ডিপ্লোমাধারীদের জন্য সান্ধ্যকালীন কোর্সের জন্য টিউশন ফি ১ লাখ ৯৯ হাজার ৫০০ টাকা।
বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী এমপি জানান, যেসব কোর্স এখানে চালু রয়েছে সেগুলো আমরা সুনামের সঙ্গে পরিচালনা করে আসছি। সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স এর ব্যতিক্রম হচ্ছে না।

বোর্ড অব ট্রাস্টিজের ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এস. কাদির পাটোয়ারী বলেন, ১৯৯৫ সালে ‘জ্ঞানই শক্তি’ স্লোগানকে সামনে রেখে এ ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এ স্লোগানের গুরুত্ব বহন করে পাঠ্যক্রম চালু রয়েছে।

এ ইউনিভার্সিটির বিশেষত্ব হলো, বিভিন্ন সামাজিক ও মানব কল্যাণকর কাজে অংশগ্রহণ। যেমন সামাজিক ব্যবসা, অ্যান্টি ট্যোবাকো সেলের কার্যক্রম পরিচালিত করছে। পাশাপাশি উন্নত মানসিকতা গড়ে তুলতে ছাত্র-ছাত্রীরা বিভিন্ন সেমিনার ও সিম্পোজিয়ামে অংশগ্রহণ করে থাকে দেশে এবং দেশের বাইরে। মুক্তবুদ্ধি চর্চার জন্য তারা বিতর্ক প্রতিযোগিতায়ও অংশগ্রহণ করে থাকে। যেমন, ২০১৭ আন্ত:বিশ্ববিদ্যালয় এটিএন বাংলা পার্লামেন্ট ডিবেট প্রতিযোগিতায় ফাইনালে বিজিএমইএ বিশ্ববিদ্যালয়কে হারিয়ে ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি চ্যাম্পিয়ন হয়।

সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং কোসের্র ছাত্র সাদেকুল ইসলাম জানায়, এখানে ভর্তি হয়ে সব দিক থেকে খুবই ভালো লাগছে। আরও ভালো লাগছে, স্থায়ী ক্যাম্পাস ও তার মনোরম পরিবেশ। এ কোর্সের অপর ছাত্র নাইমুর রহমান জানায়, এখানে টিউশন ফি কম নিলেও লেখাপড়ার মান ভালো।

বিস্তারিত তথ্যের জন্য যোগাযোগ : স্থায়ী ক্যাম্পাস, সাতারকুল, বাড্ডা, ঢাকা। ০১৯৩৯৮৫১০৬০

E-mail: admission@diu.net.bd, Website: www.diu.ac