অষ্টমবর্ষে কুবিসাস

ঢাকা, মঙ্গলবার, ৯ মার্চ ২০২১ | ২৪ ফাল্গুন ১৪২৭

অষ্টমবর্ষে কুবিসাস

হাবিবুর রহমান ৪:৫২ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৩, ২০২০

print
অষ্টমবর্ষে কুবিসাস

কুমিল্লা শহর থেকে ৯ কি.মি পশ্চিমে কুমিল্লার ময়নামতি সংলগ্ন লালমাই পাহাড়ের পাদদেশে প্রকৃতির আপনকোলে সবুজের অভয়ারণ্যে অবস্থিত দেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ কুমিল্লা বিশ^বিদ্যালয়। ৫০ একর ভূমির ওপর স্বগৌরবে মাথা উঁচু করে তীর্যক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে বিশাল আকাশের পানে।

এর কোল ঘেঁষে রয়েছে নব শালবন বিহার, শালবন, কুমিল্লা ক্যাডেট কলেজ, ময়নামতি জাদুঘর এবং সামাজিক বনায়ন। এটি দেশের ২৬তম পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করে ২০০৬ সালে। প্রতিষ্ঠার সূচনালগ্ন থেকে বিভিন্ন স্থান থেকে আগত শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে ওঠে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস।

আগত শিক্ষার্থীদের মধ্যে একদল সংবাদকর্মী ‘সত্য ও ন্যায়ের পথে অবিচল’ এই মূলমন্ত্রকে ধারণ করে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৩ সালের ৬ ডিসেম্বর লাল পাহাড়ের সবুজ ক্যাম্পাসে কিছু কলম সৈনিকের হাত ধরে যাত্রা শুরু করে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি (কুবিসাস)।

প্রতিষ্ঠালগ্নে অল্প কয়েকজন সংবাদকর্মী দিয়ে যাত্রা শুরু করলেও বর্তমানে এর সদস্য সংখ্যা প্রায় ৪০ জন। মূলত সংগঠনটি ২০১৩ সালে প্রতিষ্ঠা হলেও আত্মপ্রকাশ করে ২০১০ সালের ২০ এপ্রিল একটি আহ্বায়ক কমিটি গঠনের মধ্য দিয়ে। তারা সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়কে দেশ থেকে দেশান্তরে তুলে ধরছে।

দীর্ঘ সাত বছরের পথচলার মধ্য দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরব, ঐতিহ্য ও শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবিগুলো তুলে ধরার মধ্য দিয়ে সংগঠনটি ক্যাম্পাসে আস্থার প্রতীক হিসেবে জায়গা করে নিয়েছে। প্রতি বছর বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করা হলেও এবছর করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে তা হয়ে উঠছে না।

সবার ভালোবাসায় এগিয়ে যাচ্ছে এই সংগঠনটি। প্রতিষ্ঠার পর সংগঠনটির নিজস্ব কোনো কার্যালয় ছিল না। সংগঠনের সদস্যরা তখন কাঁঠালতলা, চায়ের দোকান, শহীদ মিনার ও ক্যাম্পাসে ঘুরে ঘুরে সংবাদ সংগ্রহ করতো।

পরে প্রাণের সংগঠন কুবিসাস বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের মধ্য দিয়ে শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মনে জায়গা করে নিয়েছে। যার ফলে, দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে কুবি সাংবাদিক সমিতি।