নীল আকাশে সাদা মেঘের ভেলা

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০ | ১৪ কার্তিক ১৪২৭

নীল আকাশে সাদা মেঘের ভেলা

খন্দকার নাঈমা আক্তার নুন ২:০৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২০, ২০২০

print
নীল আকাশে সাদা মেঘের ভেলা

বাংলাদেশ ষড়ঋতুর দেশ। প্রত্যেকটি ঋতু তার নতুন রূপ লাবণ্য নিয়ে আমাদের সামনে হাজির হয়। নীল আকাশে খণ্ড খণ্ড সাদা মেঘ ভেসে বেড়াচ্ছে। আবার মিষ্টি রোদের পাশেই মেঘের ছায়া। দেখে মনে হয় নীল আকাশ আর সাদা মেঘ যেন লুকোচুরি খেলছে। আবার চারপাশে সাদা সাদা কাশফুল। এ যেন জানান দিচ্ছে শরৎকালের। বর্ষাকাল শেষ হয়ে শরৎকাল এসেছে।

প্রকৃতিও সেজে উঠেছে তার নতুন রূপে। শরৎতের রূপ দেখে মনে হয় শরৎকাল আমাদের জন্য নতুন দিনের আগমনী বার্তা নিয়ে এসেছে। গ্রীষ্মের কাঠফাটা রোদ, বর্ষার অবিরাম ঢলের পরে প্রকৃতিতে স্নিগ্ধতা নিয়ে আসে শরতের কাশফুল। গ্রামে আঁকাবাঁকা নদীর ধারে, নদীর চরে জেগে উঠে কাশবন। আর এই কাশবনে মৃদু বাতাসের দোলা মন কাড়ে না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুর্লভ।

তাইতো কবি মনে শরৎ আর কাশফুল বারবার এসেছে নতুন রূপে। কবিগুরু শরতের রূপে বিমোহিত হয়ে লিখেছেনÑ আজি কি তোমার মধুর মুরতি / হে রেণু শারদ প্রভাতে! হে মাতা বঙ্গ, শ্যামল অঙ্গ ঝলিছে অমল শোভাতে।

আর এ মধুর মুরতি, শারদ প্রভাতের শোভায় সেজে উঠেছে কুবি ক্যাম্পাস। সরু রাস্তার পাশে লালমাটির পাহাড়ে সাদা সাদা কাশফুল। নীল আকাশের সাদা মেঘের ভেলা আর পাহাড়ের বুকে সাদা কাশফুলের মৃদু সমীরণের দোল খাওয়া সকল বয়সের মানুষের মনকে পুলকিত করে। বর্তমান পরিস্থিতি আগের পরিস্থিতি থেকে ভিন্ন। বিকেল হলেই মুখরিত হতো ক্যাম্পাস আর ক্যাম্পাসের শিক্ষার্থীরা ব্যস্ত থাকতো কাশফুলে ছবি তোলা নিয়ে।

প্রায় সবার ফেসবুকে দেখা যেত কাশফুলের ছবি। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে গত ছয়টা মাস ধরে নেই ক্যাম্পাসের শিক্ষার্থীদের পদচারণা। তাই শিক্ষার্থীরা গত বছরের কাশফুলের স্মৃতিগুলোই স্মৃতিচারণ করছে।

আর এই গত ছয়টা মাসে কুবির ক্যাম্পাসও সেজে উঠেছে শরতের রূপে। ক্যাফেটেরিয়া থেকে শুরু করে সেন্ট্রাল ফিল্ড, শহীদ মিনারে একই চিত্র দেখা যায়। যে দিকে চোখ যায় শুধু সবুজের মাঝে শ্বেত শুভ্র কাশফুলের সমারোহ দেখা যায়।

আর এ সৌন্দর্য যে সবার নজর কাড়বে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। এই শরৎতের স্নিগ্ধতাকে বরণ করে কেটে যাক সকল অমানিশা। শুভ শক্তির উদয় হোক শরতের মধ্য দিয়ে। ক্যাম্পাস আবার মুখরিত হোক শিক্ষার্থীদের পদচারণায় এটিই এখন একমাত্র প্রত্যাশা।