বিশ্বভ্রমণের গল্প

ঢাকা, রবিবার, ১২ জুলাই ২০২০ | ২৮ আষাঢ় ১৪২৭

বিশ্বভ্রমণের গল্প

পতাকা হাতে নাজমুন নাহার

ওয়াসিফ রিয়াদ ৩:১২ অপরাহ্ণ, মার্চ ২২, ২০২০

print
বিশ্বভ্রমণের গল্প

লাল সবুজের পতাকা হাতে বিশ্ব ভ্রমণে এ সময়ের ইতিহাস সৃষ্টিকারী বাংলাদেশের নারী নাজমুন নাহার। তিনি পাড়ি দিচ্ছেন এক দেশ থেকে আরেক দেশ। এরই মধ্যে পতাকা হাতে তিনি ১৪০টি দেশ ঘুরে বেড়িয়েছেন। তার লক্ষ্য ২০০টি দেশে বাংলাদেশের পতাকা পৌঁছে দেওয়া। এই আত্মপ্রত্যয়ী মানুষটি সর্বাধিক দেশ ভ্রমণকারী প্রথম বাংলাদেশি নারী। আর এজন্য তিনি বহু সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন।

বাংলাদেশের পতাকাবাহী প্রথম বিশ্ব পর্যটক এই নারীর নাম নাজমুন নাহার। তার জন্ম লক্ষ্মীপুর জেলায় সদর উপজেলায়। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। ২০০০ সালে আন্তর্জাতিক অ্যাডভেঞ্চার প্রোগ্রামে অংশ নেওয়ার মধ্য দিয়ে নাজমুন নাহারের বিশ্ব ভ্রমণের গল্প শুরু হয়।

ভ্রমণকালে নানা প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হয়েছেন এই পর্যটক। দুর্গম পাহাড়, তুষারে আচ্ছন্ন শহর, উত্তপ্ত মরুভূমি, বিশাল সমুদ্র, বিষাক্ত পোকামাকড় কিংবা প্রতিকূল পরিবেশ কোনো কিছুই তাকে আটকাতে পারেনি। সব প্রতিবন্ধকতা জয় করে নাজমুন নাহার অব্যাহত রেখেছেন তার বিশ্ব ভ্রমণ।

গত ২৯ জানুয়ারি ২০২০ নাজমুন নাহার পৌঁছেছেন দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার রাষ্ট্র বোর্নিও দ্বীপের উত্তর উপকূলে অবস্থিত ব্রুনাইয়ের রাজধানী বন্দর সেরি বেগাওয়ান। নাজমুন নাহার ১৪০তম দেশ ভ্রমণের ঐতিহাসিক রেকর্ড অর্জন করেন ব্রুনাইতে। একজন নারী হিসেবে শুধু বাংলার নারীদেরই নয়, বিশে^র অনেক নারীরই অগ্রযাত্রার আইকন হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন নাজমুন নাহার। ইতোমধ্যে তিনি সর্বাধিক রাষ্ট্র ভ্রমণকারী প্রথম বাংলাদেশি হিসাবে ইতিহাসে লিপিবদ্ধ হয়েছেন। ২০২০ সালের জানুয়ারি এবং ফেব্রুয়ারিতে তিনি ভ্রমণ করেছেন এশিয়ার পাঁচটি দেশ। ২০১৮ সালে ভ্রমণ করেছেন ৩২টি দেশ। আর ২০১৮ নভেম্বর থেকে ২০১৯ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত টানা ঘুরেছেন পশ্চিম আফ্রিকার ১৫টি দেশ। ২০১৯ এর এপ্রিল থেকে ২০২০ এর ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ঘুরেছেন ১৫টি দেশ।

বর্তমানে পৃথিবী যখন করোনা ভাইরাসে আতঙ্কিত, ঠিক এই মুহূর্তে এই দুঃসাহসী অভিযাত্রী মুখে মাস্ক পরে বিরামহীনভাবে পতাকা হাতে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। শুধু তাই নয় ভ্রমণকালে পাঁচবার মৃত্যুমুখে পতিত হয়েছেন নাজমুন নাহার। নাজমুন পৃথিবীর যেখানেই যান তার সঙ্গে থাকে বাংলাদেশের পতাকা। লাল-সবুজের পতাকা বহনের জন্য জাম্বিয়া সরকারের একজন গভর্নর তাকে ‘ফ্ল্যাগ গার্ল’ খেতাব দিয়েছেন। একজন নারী হয়ে এই ব্যতিক্রম কর্মের স্বীকৃতিস্বরূপ পেয়েছেন বহু সম্মাননা। ২০১৯ সালে যুক্তরাষ্ট্রে আন্তর্জাতিক ‘পিস টর্চ বিয়ারার’ আওয়ার্ড, নাসাউ কলোসিয়ামের ফোবানা সম্মেলনে ‘মিস আর্থ কুইন অ্যাওয়ার্ড’, অনন্যা শীর্ষ দশ অ্যাওয়ার্ডসহ তিনি বহু সম্মাননা অর্জন করেছেন।

বিশ্ব ভ্রমণের এ অভিযাত্রা সম্পর্কে নাজমুন নাহার বললেন আমি শুধু স্বপ্নই দেখতাম না, সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য পরিশ্রম করেছি। নিজের জমানো টাকাতেই ঘুরেছি বিশ্বের বিভিন্ন দেশ। তিনি আরও বলেন, জীবনের কোনো প্রতিবন্ধকতাই বড় কোনো সমস্যা নয়। যদি সব কঠিনকে মোকাবেলা করার মানসিক শক্তি থাকে। জীবনের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হল মানসিক চ্যালেঞ্জ, যা অতিক্রম করতে পারলেই জীবনের নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছানো সম্ভব।