ভর্তিযুদ্ধে সফল হতে...

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯ | ৩০ কার্তিক ১৪২৬

ভর্তিযুদ্ধে সফল হতে...

প্রিয় ক্যাম্পাস ডেস্ক ১১:৪৮ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০১, ২০১৯

print
ভর্তিযুদ্ধে সফল হতে...

বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা ইতোমধ্যে তাদের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। কাক্সিক্ষত বিশ^বিদ্যালয়ে নিজের স্বপ্নের বাস্তবায়ন ঘটাতে হলে করতে হবে কঠোর পরিশ্রম। খেয়াল রাখতে হবে বিভিন্ন বিষয়। সেগুলো জানাচ্ছেন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীরা। লিখেছেন- অনিক আহমেদ

সময় নষ্ট না হোক
আবুল বাশার মিরাজ
বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়।

আমি মনে করি এ সময়টা তোমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ সারা দেশে ভালো মানের বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা কম হলেও বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীর সংখ্যা কিন্তু অনেক। তোমাদের সব সময় এটি মনে রাখতে হবে। প্রতিটি দিন প্রতিটি মুহূর্ত তোমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। তোমাদের রুটিনমাফিক পড়া থেকে একবার ছিটকে গেলে তা আর ধরতে পারবে না। এজন্য ভর্তি প্রস্তুতিকে জীবন যুদ্ধ হিসেবে নিতে হবে। তোমার পড়ার রুমে যেন আড্ডা না জমতে পারে সেজন্য তোমাকেই খেয়াল রাখতে হবে। আর এ কাজগুলো করতে পারলে তোমার চ্যান্স পাওয়াটা অনেক সহজ হবে। আর একটি কথা কেবল গদবাঁধা পড়াশোনা করলেই চ্যান্স পাবে সেটা কিন্তু না। তোমার টার্গেট বিশ্ববিদ্যালয়ের গত কয়েক বছরের প্রশ্ন দেখে বুঝতে হবে, সেখানে কেমন ধাঁচে প্রশ্ন আসে, কোন কোন টপিকে প্রশ্ন আসে। সেগুলোও কিন্তু ভালো করে পড়া খুবই জরুরি।

মনোযোগী হতে হবে
সোয়াদুজ্জামান সোয়াদ
হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

স্বপ্নের ক্যাম্পাসে ভর্তি হওয়ায় জন্য তোমাদের মনোযোগী হতে হবে। তবে মনে রাখবে, কাজের গতি বৃদ্ধির জন্য বিশ্রাম ও বিনোদন অপরিহার্য। তোমরা ইতোমধ্যেই চারটি পাবলিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে এই পর্যায়ে এসেছো। সুতরাং পরীক্ষার উপর তোমাদের যথেষ্ট অভিজ্ঞতা আছে। তাই নিজেকে প্রস্তুত করতে অন্যের উপদেশের দরকার নেই, কিন্তু প্রয়োজন আছে পরামর্শ কিংবা দিকনির্দেশনার। তোমরা হয়তো অবগত, প্রতিটি বিশ^বিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার্থীদের জন্য হেল্প ডেস্ক নামে ফেসবুক গ্রুপ কিংবা পেজ থাকে। আমি বলব, বিনা প্রয়োজনে ফেসবুক স্ক্রল করে সময় অতিবাহিত না করে সেগুলোতে কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েব সাইটে ঢুঁ মারো। ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত নোটিস, ভর্তি নির্দেশিকা ভালোভাবে পড়ো। কোন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন ইউনিটে তোমাদের পছন্দের বিষয় আছে সেটা খুঁজে নাও এবং নিজের যোগ্যতা যাচাই করো।

পরীক্ষায় গুছিয়ে লিখবে
আহসান জোবায়ের
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

পরীক্ষার ৫০ ভাগ সফলতা নির্ভর করে পরীক্ষার কৌশলের উপর। এর মধ্যে পরীক্ষার পূর্ব প্রস্তুতি ও উত্তর প্রদানের পদ্ধতি অন্তর্ভুক্ত থাকে। ভয়, জড়তা কিংবা অন্য কোনো সমস্যা থাকলে তা দূর করার চেষ্টা করবে। কেননা তাতে পরীক্ষার প্রস্তুতি ও পরীক্ষা দুটোই খারাপ হওয়ার সমূহ আশঙ্কা থাকে। পরীক্ষার কেন্দ্রে নিজের উপর আত্মবিশ্বাস তুঙ্গে রাখবে। তোমরা জানো জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা পদ্ধতি অন্য সব বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আলাদা। এবারও সম্পূর্ণ লিখিত পদ্ধতির মাধ্যমে বিশ^বিদ্যালয় তাদের আগামী প্রজন্মকে বেছে নেবে। লিখিত পরীক্ষায় অবশ্যই নিজেকে কৌশলী হিসেবে প্রমাণ করতে হবে। নিজের প্রতি বিশ্বাস রাখতে হবে। প্রতিটি প্রশ্ন পড়ে উত্তরপত্রে গুছিয়ে পরিবেশন করতে হবে। বিশ্বাস রাখতে হবে তুমি অবশ্যই পরীক্ষায় ভালো করতে পারবে। পরীক্ষার আগের রাতটি পরীক্ষার্থীদের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ এবং এর সঠিক ব্যবহার জানাও পরীক্ষার্থীর জন্য অত্যাবশ্যক। এ রাতে নতুন কিছু না পড়াই ভালো। এ সময় উচিত আগের শেখা বিষয়গুলোই মনোযোগ সহকারে দেখে নেওয়া। যাতে বানান নির্ভুল হয় সেদিকে খেয়াল রাখবে। প্রশ্ন পাওয়ার পর ঘাবড়ে যাওয়ার কোনো বিষয় নেই।