ভাষা আন্দোলনের প্রতিচ্ছবি

ঢাকা, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯ | ২ শ্রাবণ ১৪২৬

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

ভাষা আন্দোলনের প্রতিচ্ছবি

আলী ইউনুস হৃদয় ১:০৮ অপরাহ্ণ, জুলাই ০৭, ২০১৯

print
ভাষা আন্দোলনের প্রতিচ্ছবি

আবহমান গ্রাম-বাংলার প্রকৃতি। ছনের ঘরের খোলা জানালার পাশে মায়ের কাছে পড়ছে শিশু। ঘরের চারপাশজুড়ে প্রদীপ্ত সূর্যের আলো। ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে মাতৃভাষা বাংলার মর্যাদা রক্ষার দাবিতে রাজপথে নেমে আসা একদল তরুণ-তরুণীর মিছিল। হাতে ব্যানার-প্ল্যাকার্ড। পুলিশের গুলিতে মিছিলে অংশ নেওয়া তরুণের মৃত্যু। শাসক শ্রেণির পায়ের জুতায় লেপ্টে আছে তরুণ প্রাণের বুকের তাজা রক্ত। ভাষার দাবিতে নিহতদের স্মরণে নির্মিত শহীদ মিনারে বাঙালি জাতির পুষ্পস্তবক অর্পণ। দীর্ঘ লড়াই-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে বাংলা ভাষার মর্যাদা অর্জন। ফিরে পায় বাঙালির সম্প্রীতির বন্ধন। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার প্রাঙ্গণের পশ্চিম কোণের দেয়ালে ভাষা আন্দোলনের এমনই চিত্র রঙ-তুলির আঁচড়ে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের আর্থিক সহযোগিতায় কাজটি করেছেন চারুকলা অনুষদের বিভিন্ন বিভাগের একদল শিক্ষার্থী। এই দলে রয়েছেন মৃৎশিল্প ও ভাস্কর্য বিভাগের সঞ্জয় কুমার সূত্রধর, সুবাস পাল এবং চিত্রকলা, প্রাচ্যকলা ও ছাপচিত্র বিভাগের রায়হান আহমেদ, সৌমিত্র কান্তি রয়, শামিমা বন্যা ও নুর আলম মিয়া। তত্ত্বাবধানে ছিলেন মৃৎশিল্প ও ভাস্কর্য বিভাগের সহকারী অধ্যাপক কনক কুমার পাঠক। শিক্ষার্থীদের একজন সুবাস পাল কাজের ফাঁকে বললেন, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নিয়েছে কাজটি করার। খুব ভালো লাগছে আমরা কাজটি করার সুযোগ পেয়েছি। এতবড় ক্যানভাসে কাজ করার অভিজ্ঞতা প্রথম এবং অন্যরকম। প্রথমে মনে হয়েছে- কি কাজ করছি, কেমনই বা হবে? চারুকলা অনুষদের ছোট ভাই বন্ধু ও শিক্ষকের সহযোগিতায় কাজটি করেছি। তবে অল্প সময়ে শিক্ষার্থীদের যেমন সাড়া পেয়েছি মনে হচ্ছে আমরা কিছু একটা করতে পেরেছি। আশা করি, প্রশাসন আগামীতেও এই ধরনের কাজের সুযোগ করে দেবে আমাদের।

বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী শাহিনুর ইসলাম দেয়ালচিত্র ঘুরে দেখেছেন। জানতে চেয়েছিলাম দেয়ালে আঁকা ভাষা আন্দোলন দেখে কিছু বুঝছেন? তিনি বলেন, দেয়ালচিত্রটি আমাদের গভীর তাৎপর্যপূর্ণ বার্তা জানাচ্ছে। এতে আমাদের জীবনের একেকটি পর্যায়কে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। এদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, স্নেহভরা মায়ের কোল সবই যেন হৃদয়কে নাড়া দিচ্ছে। চিত্রে জুলুম নির্যাতনের বিরুদ্ধে তরুণ সমাজের ঐক্য প্রতিরোধ, আর রক্তঝরা আত্মত্যাগ বারবার আমাদের পরিচয় জানান দিচ্ছে। যেন আমরা নিজেদের সঙ্গেই পরিচিত হচ্ছি। জানান দিচ্ছে শেকড় ভুলে গেলে চলবে না। আমাদের সমৃদ্ধ ইতিহাস, শেকড়কে ধারণ করে এগিয়ে যেতে হবে।

দেওয়ালচিত্রের সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়ে প্রাণিবিদ্যা বিভাগের শিক্ষার্থী কানিজ বিনতে জামান সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবিটি শেয়ার করছেন। কানিজ জামান বলেন, দেয়ালে আঁকা ভাষা আন্দোলনের কাজকে আমি মহৎ উদ্যোগ মনে করি। দেয়ালচিত্রে আমাদের মহান ভাষা আন্দোলনকে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। যা নতুন প্রজন্মকে ভাষা শহীদদের আত্মত্যাগ এবং সেই পটভূমি স্মরণ করিয়ে দেবে। একই সঙ্গে জাতি, ধর্ম ও বর্ণ নির্বিশেষে সবাইকে মাতৃভাষা বাংলার প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শনে উৎসাহিত করবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা বলেন, ভাষা আন্দোলন আমাদের সব আন্দোলন সংগ্রামে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে। শহীদ মিনারের দেয়ালটি অযত্নে ছিল। এছাড়া আমাদের তরুণ প্রজন্মের শিক্ষার্থীরা জানে ভাষা আন্দোলনের গুরুত্ব। সে জায়গা থেকে আমরা গ্রাম-বাংলার সুন্দর প্রকৃতি, ভাষা আন্দোলন ও সম্প্রীতির বাংলাদেশের চিত্র দেখানোর চেষ্টা করেছি।