পথের পাঁচালির ঈদবস্ত্র বিতরণ

ঢাকা, বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯ | ৫ আষাঢ় ১৪২৬

পথের পাঁচালির ঈদবস্ত্র বিতরণ

আফফান ইয়াসিন ১২:৫৫ অপরাহ্ণ, মে ২৬, ২০১৯

print
পথের পাঁচালির ঈদবস্ত্র বিতরণ

মানবতাই পারে পৃথিবীটাকে সুন্দর করে পরিচালনা করতে। ঘরের ছোট ছোট বাচ্চারা ঈদ এলে খাবারের তুলনায় পোশাক আর ঈদ সালামিটাকেই প্রাধান্য দেয় বেশি। বড়রা অবশ্য তাদের সহযোগিতা করে। ঠিক পৃথিবীর প্রত্যেকটা শিশুর মাঝেই এই উৎফুল্লতাটা কাজ করে। কিন্তু অবস্থান তাদের দমিয়ে রাখে।

প্রবল ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও চাপা কষ্ট সহ্য করে বছরের পর বছর ঈদ কাটিয়ে দেয় এই পথশিশুরা। যাদের মা বাবারাও অসহায়ভাবে অবলোকন করে যায় সন্তানদের দুঃখগুলো। ঈদ উপলক্ষে একটা নতুন জামা এনে দিতে পারে এই পরিবারগুলোতে আনন্দ।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের পথের পাঁচালি নামের সংগঠনটি সেই ২০১৮ সাল থেকে ঈদ এলে পথশিশুদের বিভিন্ন সাহায্য সহযোগিতা করে আসছে। সেই ধারাবাহিকতায় এবারও ঈদ সামনে রেখে সংগঠনটির প্রত্যেকটা সদস্যের জোরালো চেষ্টার কল্যাণে গত ১৬ মে ৬০ জন ছিন্নমূল শিশুর হাতে তুলে দেয় ঈদের সামগ্রী।

এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের অধ্যাপকরাও উপস্থিত ছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শ্রদ্ধেয় মাছুম স্যার বলেন, পথের পাঁচালি একটি সামাজিক সংগঠন। বিভিন্ন উৎসব বা বিশেষ দিনগুলোতে রাস্তায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা শিশুদের একত্রিত করে তাদের মাঝে সৌহার্দ্য এবং আনন্দ ভাগাভাগি করা হয়।

বিভিন্ন সময় তাদের পড়াশোনার বিষয়ে পাঠদানসহ শিক্ষা উপকরণও বিতরণ করা হয়। কিছুদিন আগে প্রায় ৪০-৪৫ জন পথশিশুর হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল ইফতার সামগ্রী। আর আজ তাদের হাতে এই সংগঠনের সদস্যদের নিরলস প্রচেষ্টায় তুলে দেওয়া হলো ঈদ সামগ্রী।

এ রকম সাড়া বাংলাদেশের প্রতিটা সংগঠন দায়িত্ব নিয়ে এই কাজগুলো করে গেলে প্রত্যেকটা শিশুই ঈদ আনন্দ উপভোগ করতে পারবে। ঈদ সামগ্রী পেয়ে প্রতিটা শিশুই ছিল উৎফুল্লিত। তাদের একজনের সঙ্গে কথা হয়।
জানতে চাইলাম-

- নাম কী?
রিফাত।
- হাতে এটা কী?
ঈদের নতুন জামা।
- কেমন লাগছে তোমার কাছে?
খুব ভালো।
- তোমার আব্বু আম্মু জানে?
না, আম্মু জেনে অনেক খুশি হবে।
- এটা কবে পরিধান করবে?
ঈদের দিন।
- প্রতি ঈদে এ রকম নতুন জামা পাও?
না, ভাইয়া-আপুরা দিলে পাই!
ওদের কোমল অন্তর থেকে বেরিয়ে আসা ‘ভাইয়া আপুরা দিলে পাই’ কথাটাই পথের পাঁচালি সংগঠনের সদস্যদের জন্য সার্থকতা বয়ে আনবে।