কৃষ্ণচূড়ায় রক্তিম ক্যাম্পাস

ঢাকা, বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯ | ৫ আষাঢ় ১৪২৬

কৃষ্ণচূড়ায় রক্তিম ক্যাম্পাস

ইরফান রানা ২:০১ অপরাহ্ণ, মে ১৯, ২০১৯

print
কৃষ্ণচূড়ায় রক্তিম ক্যাম্পাস

সবুজের মাঝে টুকটুকে লাল কৃষ্ণচূড়া, হলদে রঙের সোনালু ফুল, সবুজ ঘাসের ওপর সফেদ কাশফুলে ছেয়ে গেছে প্রকৃতি। লাল কৃষ্ণচূড়া ও সোনালু ফুল সৌন্দর্য বিলিয়ে পুরো প্রকৃতিকে ধন্য করে তুলেছে। এ যেন খোঁপায় লাল বেনী পরা সবুজ শাড়িতে হলদে রং মেশানো অপ্সরী কোনো এক বধূ। এমনই প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে নয়নাভিরাম ক্যাম্পাস দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম বাংলার সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়।

মোহনীয় ফুলের সুবাস, হরেক ফলের বৃক্ষরাজি, পাখির কলকাকলিতে মুখরিত ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়। ক্যাম্পাসের প্রধান ফটকের সামনে দেখা মিলবে ডালপালা ছড়ানো বিশাল এক কৃষ্ণচূড়া গাছ। গাছটির শাখায় শাখায় শোভা পাচ্ছে রক্তিম কৃষ্ণচূড়া। দেখে মনে হবে লাল-সবুজের অভ্যর্থনা দিতে দাঁড়িয়ে আছে গাছটি। শুধু প্রধান ফটকই নয় ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরে গোলাপ, গাদা, জারুল, সূর্যমুখী, হাসনাহেনা, বকুল, ডালিয়া, বেলীসহ হৃদয়কাড়া হাজারো বাহারি ফুলের সমাহার।

এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবন, ফলিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদ ভবন, চিকিৎসার কেন্দ্র, উপাচার্যের বাসভবন, খালেদা জিয়া হল, বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল, কেন্দ্রীয় মিলনায়তন, ব্যায়ামাগারসহ গোটা ক্যাম্পাসকে রাঙিয়ে তুলেছে এই রক্তরাঙা কৃষ্ণচূড়া।

শিক্ষা ও প্রকৃতি একে অপরের সঙ্গে নিবীড়ভাবে সম্পৃক্ত। ফুলের মন মাতানো রূপ আর প্রকৃতির স্পর্শেই শিক্ষা যেন পূর্ণতা লাভ করে। ক্যাম্পাসের প্রকৃতিতে রক্তিম কৃষ্ণচূড়া নতুনত্ব এনে দিয়েছে। পিচঢালা পথে লাল কৃষ্ণচূড়ার ঝড়ে পড়া পাপড়ি দেখে মনে হয় যেন এক পুষ্পশয্যা। ক্যাম্পাসের এ রূপ দেখে মন আনন্দে ভরে ওঠে বলে অনুভূতি প্রকাশ করে জানান লোক প্রশাসন বিভাগের শিক্ষার্থী অন্তরা।

ক্যাম্পাসের ডায়না চত্বরে সবুজ গাছে হলদে রঙের সোনালু ফুল ক্যাম্পাসের সৌন্দর্য কয়েকগুণ বৃদ্ধি করেছে। সোনালু ফুলের পাপড়ি ছড়ানো নরম সবুজ ঘাসের ওপর বসে প্রেমিক প্রেমিকার জুটি। এছাড়া ওই চত্বরে ক্লাসের ফাঁকে শিক্ষার্থীরা আড্ডায় মেতে ওঠে। কেউবা অপেক্ষা করে বাস ধরার। শুধু কৃষ্ণচূড়া আর সোনালু ফুলেই নয়, রয়েছে সবুজ ঘাসে সফেদ রঙের ঘাসফুল। ক্রিকেট মাঠের পশ্চিম দিকে এসব ঘাসে বসে মধুর গোধূলি পার করে শিক্ষার্থীরা।

গ্রীষ্মের খরতাপের মধ্যে প্রকৃতির পরিবর্তনে ফোটে নানান ফুল। তার মধ্যে কৃষ্ণচূড়া একটি। প্রকৃতির সব রং কে যেন ম্লান করে কৃষ্ণচূড়া। ক্যাম্পাসে এ ফুলের হৃদয় কাড়া অগ্নিরঙ সত্যি বিমোহিত করে বলে অনুভূতি প্রকাশ করেন বায়োটেকনোলজি অ্যান্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী মুনিশা।

ক্যাম্পাসের আড্ডাবাজ আজমিরি, মিমি, ইতি, পিংকি, তিষা, শুভ জানায়, ‘গ্রীষ্ম আর কৃষ্ণচূড়া একসঙ্গে আসে ক্যাম্পাসে। ক্লাসের ফাঁকে সুযোগ পেলেই কৃষ্ণচূড়ার গাছের নিচে ছুটে আসি। সোনালু ফুল আর রক্তরাঙা কৃষ্ণচূড়াকে ঘিরে চলে সেলফিবাজি। বন্ধুরা মিলে সবুজের ছায়ায় মজা মাস্তি আর আড্ডায় দিন কাটে।’