আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ সমীপেষু

ঢাকা, বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ২ আশ্বিন ১৪২৬

আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ সমীপেষু

খোলা কাগজ ডেস্ক ৯:৫৪ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০৬, ২০১৯

print
আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ সমীপেষু

শাড়িছাড়া মাকে ভাবতে পারি কী, যায় কী সে-ছবি আঁকা?
মায়ের মায়াবী আঁচলে আহা কী স্নেহের গন্ধ মাখা!
যখনি হাঁটতে হোঁচট খেয়েছি, পড়ে গেছি পিছলিয়ে
ছুটে এসে মা-যে করেছে আদর আঁচলে জড়িয়ে নিয়ে।

ঘোমটা-নোলকে কীযে মায়াময়ী লাগতো আমার মাকে
জননী ললনা রমণী অর্থ-শাড়িতে মূর্ত থাকে।
বাঙালি জননী, বাঙালি ভগিনী, বাঙালি দুহিতা, জায়া
শাড়িতেই তার চিরপরিচিতি-শাশ্বত প্রতিছায়া।

শাড়ি ভালোবাসা, শাড়ি স্নেহমাখা, শাড়িই নারীর শোভা...
বাঙালি কবির কবিতা হয়েছে শাড়িতেই মনোলোভা!
কবির আবেগে নীলিমা হয়েছে মায়ের নীলাভ শাড়ি
মাঠের সবুজে মায়ের শাড়ির তুলনা না-করে পারি!

একদা দুনিয়া অবাক হয়েছে মসলিন শাড়ি দেখে
সোনার গাঁয়ের ইতিহাসে সেই কাহিনি রয়েছে মেখে।
জামদানি, ডুরে, চাপাডাঙা আরো কত যে নামের শাড়ি
লাল বেনারসি না পরে কন্যা যাবে কী শ্বশুরবাড়ি?
নীলাম্বরীর নাম কে শোনেনি, ঢাকাই বুটিকও সেরা
সবুজ কাতানে অপরূপা বঁধু-মুখটি ঘোমটাঘেরা।

বাঙালি নারীর শাশ্বত-রূপ শাড়িতেই শোভনীয়
জননী-জায়ার প্রিয় পরিধান-যুগযুগ তুমি জিও।

ফারুক নওয়াজ
ছড়াকার