‘কষ্টের পুরস্কার পেয়েছি’

ঢাকা, সোমবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২১ | ৫ মাঘ ১৪২৭

‘কষ্টের পুরস্কার পেয়েছি’

মৃন্ময় মাসুদ ৮:৪০ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০৪, ২০২০

print
‘কষ্টের পুরস্কার পেয়েছি’

মুক্তির আগে সৃষ্টি হয়েছিল নানা জটিলতা, ছিল সেন্সর বোর্ডের আপত্তি। তারপরও মুক্তির প্রথম দিনেই হলে দর্শকদের উপচেপড়া ভিড়ই ইঙ্গিত দিয়েছিল দেশীয় সিনেমায় সুবাতাসের। অবশেষে সবাইকে অবাক করে সুনেরাহ বিনতে কামাল অভিনীত ‘ন ডরাই’ সেরা চলচ্চিত্রসহ ছয়টি ক্যাটাগরিতে পুরস্কার জয় করেছে।

সাগরপাড়ের অকুতোভয় এক কিশোরীর সার্ফার হয়ে ওঠার গল্প নিয়ে নির্মিত সিনেমাটি সেরা চলচ্চিত্র, সেরা পরিচালক, সেরা অভিনেত্রী, সেরা চিত্রনাট্য, সেরা সাউন্ড ডিজাইন, সেরা সিনেমাটোগ্রাফি ক্যাটাগরিতে পুরস্কার পাচ্ছে।

এই ছবির মধ্য দিয়ে প্রথমবার বড় পর্দায় অভিনয় করেই বাজিমাত করেছেন অভিনেত্রী ও মডেল সুনেরাহ। নৃত্যশিল্পী হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন তিনি। এরপর মডেলিং। সেখান থেকে নাম লিখিয়েছেন সিনেমাতে। আর অভিষেক সিনেমাতেই জয় করেছেন বিনোদন অঙ্গনের সর্বোচ্চ অর্থাৎ রাষ্ট্রীয় সম্মান- জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার।

গত বছরে স্টার সিনেপ্লেক্স প্রযোজিত ও তানিম রহমান অংশু পরিচালিত ‘ন ডরাই’ সিনেমার মাধ্যমে বড় পর্দায় অভিষেক ঘটে তার। সেখানে একজন সার্ফারের চরিত্রে উপস্থিত হয়ে সবার প্রশংসা পান। প্রথমবারের মতো বড় পর্দায় অভিনয় করেই জয় করে নেন জাতীয় পুরস্কার। ছবিতে অভিনয়ের জন্য ২০১৯ সালের শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী হিসেবে সম্মাননা পেতে যাচ্ছেন সুনেরাহ।

এ প্রসঙ্গে সুনেহরা খোলা কাগজকে বলেন, ‘অনুভূতি তো একটাই- ভালো লাগছে। আমার প্রথম সিনেমাতেই জাতীয় পুরস্কার! আসলে স্বপ্নের মতো লাগছে। সিনেমাটি করতে গিয়ে যে কষ্ট করেছি, তার পুরস্কার পেয়েছি। সবাই আমাকে অভিনন্দন জানাচ্ছেন। খুব ভালো লাগছে।’

তিনি আরও বলেন, অনেকেই মনে করছেন, প্রথমেই জাতীয় পুরস্কার পেয়ে গেছি। কেউ হয়তো বুঝতে পারছেন না আমাদের পরিশ্রমটা। ‘ন ডরাই’র জন্য যে কষ্ট করেছি সেটাও একটু বলতে চাই- শুটিংয়ের আগ দিয়ে টানা ৩ মাস কক্সবাজারে আমরা সার্ফিংয়ের অনুশীলন করেছিলাম। স্থানীয় ভাষাও শিখতে হয়েছিল। এ দুটো কাজই ছিল চ্যালেঞ্জিং। এটা করার পর অভিনয়টা আমাদের জন্য সহজ হয়ে যায়।

একটি ছবির জন্য আমাদের যে পরিমাণ কষ্ট করতে হয়েছিল, তা অনেক কাজের সমানও বলা যায়। সব মিলিয়ে ‘ন ডরাই’ আমাকে অনেক কিছু শিখিয়েছে। আর প্রাপ্তিটাও অনেক। জাতীয় পুরস্কারের মতো সবচেয়ে কাক্সিক্ষত সম্মান আমি আমার প্রথম ছবির মাধ্যমেই পেলাম। এজন্য পুরো টিমকে আমি ধন্যবাদ দিতে চাই।

প্রসঙ্গত, মাত্র আড়াই বছর বয়সে বুলবুল ললিতকলা একাডেমিতে (বাফা) নাচ শেখা শুরু করেন সুনেরাহ। স্কুলে থাকতে থিয়েটারেও অভিনয় করেছেন। পাশাপাশি খেলাধুলার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন তিনি। তখন বাস্কেটবল ও ভলিবল ছিল তার পছন্দের খেলা। বিটিভির তালিকাভুক্ত নৃত্যশিল্পী ছিলেন সুনেরাহ। সেখান থেকে এক পরিচিতজনের মাধ্যমে র‌্যাম্পে পথচলা শুরু তার। তখন তিনি নবম শ্রেণিতে পড়তেন।

র‌্যাম্পে তার নজরকাড়া পারফরমেন্সের জন্য দেশের একটি বড় ফ্যাশন হাউসের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর হিসেবে সুযোগ পান এই তরুণী। দাপিয়ে কাজ করছেন ফ্যাশন দুনিয়ায়। তবে প্রীতমের ‘রাজকুমার’ মিউজিক ভিডিওতে কাজের সুবাদেই অভিনয় প্রস্তাব পান তিনি। এরপরই ‘ন ডরাই’ সিনেমায় অভিনয় করেন সুনেরাহ।