তারকাদের পূজা উৎসব

ঢাকা, বুধবার, ২ ডিসেম্বর ২০২০ | ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

তারকাদের পূজা উৎসব

বিনোদন রিপোর্ট ১২:২৯ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৭, ২০২০

print
তারকাদের পূজা উৎসব

গতকাল সোমবার প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো বাঙালি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গাপূজা। ঢাকাসহ সারা দেশে ছড়িয়ে আছে মা দুর্গাকে বরণ ও প্রস্থানের নানা ব্যঞ্জনা! শোবিজের সনাতন ধর্মাবলম্বী তারকারা এবারের উৎসবেও ব্যস্ত সময় পার করছেন। তবে করোনাকাল হওয়ায় সীমিত আকারে পালন করছেন এই আয়োজন। কেমন ছিল তারকাদের উৎসব আয়োজন- পাঠকদের জন্য তা তুলে ধরা হলো-

অপু বিশ্বাস
এবারের পূজাটা বিষণ কেটেছে ‘ঢালিউড কুইন’ অপু বিশ্বাসের। তিনি বলেন, এবারের পূজা আমার জন্য একেবারে অন্যরকম। এই সময়টায় মাকে নিয়ে বিভিন্ন পূজামণ্ডপে ঘুরতাম। অষ্টমীর দিন মা আর আমি একইরকম পোশাক পরতাম। মা কাশফুল ভীষণ পছন্দ করতেন। এর ফাঁকেই আমরা কাশবনেও যেতাম। পূজায় মায়ের ব্যস্ততা বেশি থাকত। তিনি সব সামলে দিতেন। এবার মা নেই, আমার সবকিছু একেবারে এলোমেলো। তাই পূজার তেমন কোনো প্রস্তুতিও নেই। এবার ছেলেকে নিয়ে কয়েকটি ম-পে গিয়েছি। আর তার জন্য পোশাক কিনেছি। এটুকুই।

বিদ্যা সিনহা মিম
ঢাকাতেই পূজা উৎসব পালন করেছেন শোবিজ জগতের জনপ্রিয় মুখ বিদ্যা সিনহা মিম। করোনার কারণে গ্রামের বাড়ি রাজশাহীতে যেতে পারেননি তিনি। মিম বলেন, প্রতি বছরই পূজার সময়টা একছুটে চলে যেতাম গ্রামে। সেখানে বিশাল নৌকাবাইচ হয়। এটা খুব মিস করি। আত্মীয়-স্বজনদের নিয়ে বেশ আনন্দ করে পূজার উৎসব পালন করতাম। এবার বাসায় বসে পূজা করছি। তবে এবারের পূজার আনন্দও বেশ টইটুম্বুর। কারণ, একগাদা উপহার পেয়েছি।

বাপ্পা মজুমদার
পূজাতে একদমই বাইরে বের হননি বাপ্পা মজুমদার। কারণ তার ছোট্ট মেয়ে পরী। বাপ্পা বলেন, ‘পরী তো ডিসেম্বরে হলো। তার তো এবারের পূজায় উড়ে বেড়ানোর কথা। ভেবেছিলাম বাবা হিসেবে সঙ্গী হবো। ঘুরে বেড়াব মণ্ডপে মণ্ডপে। কিন্তু পরিস্থিতি সহায় হলো না। তাই এবারের পূজায় একেবারে ঘরেই থেকে গেছি। কোথাও কোনো অনুষ্ঠান বা মণ্ডপে একদম বের হইনি। পরী না থাকলে হয়তো একটু সাহস করে বাইরে পা ফেলতাম। দশমীর দিন বাসায় ছোট পরিসরে আয়োজন রেখেছি। মানে আমার পরিচিতজন দু’একজন আসবেন। আত্মীয়-স্বজনদের সঙ্গে আড্ডা দেবো। পূজার রান্না হবে। সেটাই আয়েশ করে হয়তো খাব। কিন্তু একটু আফসোস থাকবে বাইরে যাওয়া হলো না।’

জ্যোতিকা জ্যোতি
জ্যোতিকা জ্যোতি পূজা উদযাপন করেছেন ময়মনসিংহে। তিনি বলেন, সবাই পূজা নিয়ে ভীষণ ব্যস্ত। ব্যস্ত আমিও। তবে এর মধ্যেই মণ্ডপে মণ্ডপে যাচ্ছি। আজ দশমীর দিন গৌরীপুরে আমার গ্রামে যাব। সেখানে আমার মা-বাবা আছেন। আর আমার খামার আছে।

বাপ্পি চৌধুরী
শুটিংয়ের ব্যস্ততার মধ্যে কেটেছে বাপ্পি চৌধুরীর এবারের পূজা। তিনি বলেন, টানা শুটিংয়ে ব্যস্ত। তবে পূজার আনন্দ মিস করছি না। সারাদিন শুটিং করি, আর মধ্য রাতের পর বেরিয়ে পড়ি। অভিনয়ে আসার পর আমি সাধারণত মণ্ডপে যাই রাত দুইটার পর। এ সময় লোকসমাগম কম থাকে। তবে দশমীর দিন অনেক বেশি আনন্দ করতে চাই। নারায়ণগঞ্জ যাব। আনন্দে মেতে উঠবো বন্ধু আর পরিবারের সঙ্গে।

পূজা চেরী
এবারের পূজা উৎসব নিয়ে এক প্রকার আক্ষেপেই প্রকাশ করলেন পূজা চেরি। তিনি বলেন, এবারের পূজায় আমার একদমই প্রস্তুতি নেই। কারণ করোনা। ছয় মাস আগেও বাসায় যেভাবে থাকতাম, পূজাটাও সেভাবে কাটাতে হচ্ছে। তবে ছোটবেলার পূজাটা খুব মিস করছি। এবারের পূজায় গ্রাম ও শহরের এ দুটি জিনিসই মিস করেছি। হয়তো আগামী পূজায় এমনটা হবে না। সবাইকে শারদীয় শুভেচ্ছা।