যে কারণে তরমুজ বিক্রেতা গফুর

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০ | ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭

যে কারণে তরমুজ বিক্রেতা গফুর

বিনোদন প্রতিবেদক ১২:০৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৪, ২০২০

print
যে কারণে তরমুজ বিক্রেতা গফুর

কালো ছেলে গফুর আর সুন্দরী জুলির অদ্ভুত প্রেমের গল্প নিয়ে নাটক ‘গফুর কাকার তরমুজ’। গফুরের ভাড়াটিয়া জীবন, লুকিয়ে লুকিয়ে প্রেম এবং ফর্সা হয়ে প্রেমিকার মায়ের কাছে যাওয়ার কত না তার পরিকল্পনা।

গফুরের গায়ের রঙ বুড়িগঙ্গার পানির মতো আর জুলি ফর্সা। বিকেলে নারিন্দা লেন ধরে জুলি আসে। কালো ছেলে গফুরের মনের মধ্যে তখন ১০০ টা গিরিবাজ পল্টি খায়। জুলি খায় তরমুজ। কালো ছেলে গফুরের রেলিং-এ পা ঝুলিয়ে! গফুর জানতে চায় জুলি এত তরমুজ খায় ক্যান? জুলি বলে, তরমুজ খেলে গায়ের রঙ সাদা হয়। কালো ছেলে গফুর এবার তরমুজ খাওয়া শুরু করে। সিদ্ধান্ত নেয় তরমুজ খেয়ে খেয়ে গায়ের রঙ সাদা বানাবে। তারপর জুলির মায়ের কাছে বিয়ের প্রস্তাব দেবে!

তরমুজ কিনতে কিনতে শেষ তরমুজের দোকানই দিয়ে বসে গফুর। এতে যদি প্রেমিকা জুলি খুশি হয়। কিন্তু চতুর প্রেমিকা জুলি তবুও খুশি হয় না। হঠাৎ নিজের মায়ের পছন্দ করা পাত্রকে বিয়ে করে বসে জুলি। তারপর জামাইকে নিয়ে কিনতে যায় প্রিয় তরমুজ। গফুরের দোকান থেকেই। কালো প্রেমিক গফুর অবাক চোখে প্রেমিকা জুলির চলে যাওয়া দেখে। আর দেখে দোকানে ঝুলে থাকা বড়সড় তরমুজ!

নাটকে গফুর চরিত্রে অভিনয় করেছেন জাহিদ হাসান। তিনি বলেন, ‘কালো চেহারার চরিত্রে প্রথম কাজ করেছি। গল্পের প্রয়োজনে প্রচুর তরমুজ খেতে হয়েছে আমাকে। চমৎকার একটা অভিজ্ঞতা হল। হিমু আকরামের সঙ্গে কাজ করে মজা। হিমুর গল্প ভাবনা আলাদা হয়।’

জুলি চরিত্রে আছেন সানজিদা প্রীতি।

তিনি বলেন, ‘আমি ঈদে ৩/৪ টার বেশি কাজ করি না। করোনার কারণে এখন তো গৃহবন্দি। কিন্তু হিমু আকরামের এই গল্পটি পড়ে ভীষণ ভালো লেগেছে। কাজটা না করে পারলাম না। তাছাড়া হিমুর সঙ্গে এটাই আমার প্রথম কাজ। এটা অসাধারণ একটা নাটক হবে।’