পরীমনির নাটকীয় বিয়ে

ঢাকা, শুক্রবার, ১০ এপ্রিল ২০২০ | ২৭ চৈত্র ১৪২৬

পরীমনির নাটকীয় বিয়ে

বিনোদন প্রতিবেদক ৩:৩৫ অপরাহ্ণ, মার্চ ২১, ২০২০

print
পরীমনির নাটকীয় বিয়ে

অনেকটা নাটকীয়ভাবেই বিয়ে করলেন ঢাকাই চলচ্চিত্রের অন্যতম নায়িকা পরীমনি। পাত্র কামরুজ্জামান রনি। তিনি নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়ের নির্দেশক ও সদস্য।

জানা গেছে, ১০ মার্চ রাতে রাজধানীর রাজারবাগ এলাকায় ছোট পরিসরে দুজনার বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়। পরী ও রনি দুজনেই তাদের বিয়ের বিষয়টি প্রথমে জানান দেন ফেসবুকে নিজেদের রিলেশনসিপ স্ট্যাটাস বদলের মাধ্যমে। তাও বিয়ে করার এক সপ্তাহ পর। তবে বিয়ের খবরটি নিশ্চিত করে রনি বলেন, পরীমনির সঙ্গে বিয়েটা হঠাৎ করে ফেলেছি। বর্তমানে দুজনে মোংলা বন্দরের পাশে করমজল এলাকায় আছি। এখানে পরীমনি ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ ছবির শুটিং করছেন।

পরীমনির সঙ্গে রনির দেখা হয় মাত্র পাঁচ মাস আগে। অভিনেত্রী ও নির্মাতা হৃদি হকের ‘১৯৭১: সেই সব দিন’ ছবির সূত্র ধরেই তাদের পরিচয়, প্রেম ও বিয়ের সিদ্ধান্ত। এই ছবির সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করছেন রনি, যাতে নায়িকা পরীমনি। এই ছবিতে কাজ করতে গিয়ে নিজেদের মধ্যে বোঝাপড়া তৈরি হয়। বিয়ে প্রসঙ্গে পরীমনি বলেন, শুটিংয়ে গিয়ে কোথায় থাকবো, কীভাবে যাবো, সেসব নিয়ে রনির সঙ্গে প্রথম আলাপ শুরু হয়।

এভাবেই একসময় আমাদের মধ্যে সখ্য গড়ে ওঠে। পরী জানান, মার্চের ৩ থেকে ৭ তারিখ তারা ঠাকুরগাঁওয়ে শুটিং করেন। মূলত এই চার দিনেই তাদের মধ্যে মন দেওয়া-নেওয়া হয়। পরী বলেন, ৮ মার্চ ঢাকায় এসে আমি তাকে খুব মিস করছিলাম। পরদিন ৯ মার্চ আমরা দেখা করি এবং সে আমাকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। আমার মন যেন কেমন করে ওঠে। ওই রাতেই আমরা বিয়ে করে ফেলি! তবে নামমাত্র টাকা দেনমোহরে কেন বিয়ে করলেন সেই প্রশ্নের জবাব অবশ্য পরীমনি নিজেই দিয়েছেন। জানেন, আমরা ৩ টাকায় বিয়ে করেছি। কি, কিউট না? আমাদের বিয়ের দেনমোহর ৩ টাকা-এভাবেই নিজের মনোভাব ব্যক্ত করেছেন তিনি।

দেনমোহরের বিষয়ে পরীমনির ভাষ্য- অনেক হিসাব-নিকাশ করে তো জীবনের পরিকল্পনা করাই যায়। কিন্তু জীবন চলে তার নিজস্ব পথে। জন্ম, মৃত্যু ও বিয়ে- সবই আল্লাহর হাতে, এটি আমি খুবই মানি। আমার কাছে মানুষের প্রতি মানুষের বিশ্বাসও অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এটির ওপর নির্ভর করে মানুষ তার জীবনকে এগিয়ে নিয়ে যায়।

তিনি আরও বলেন, এখন বিয়ের শুরুতেই বলে দেয়া হয়- দেনমোহর কত হবে? ছাড়াছাড়ি হয়ে গেলে এগুলো আবার দিতে হবে। এগুলো কিন্তু একটা মানসিক চাপ হিসেবে মাথায় ঢুকে যায়। ছাড়াছাডি নিয়ে চিন্তার চেয়ে আমার কাছে বন্ধনটা খুব জরুরি। জীবনের অনেক কিছু হিসাব-নিকাশ করে হয়; কিন্তু বিয়ের মতো বড় বিষয়ে হিসাব-নিকাশ চলে না। আমি খুবই খুশি। অভিনয়ে আসার আগে নাকি পরীমনি একবার বিয়ে করেছিলেন। তার সেই স্বামীর নাম ফেরদৌস কবীর সৌরভ। তিনি একজন ফুটবলার।

বাড়ি যশোরের কেশবপুরে। তিন বছর প্রেম করার পর ২০১২ সালের ২৮ এপ্রিল বিয়ে করেছিলেন পরীমনি ও সৌরভ। ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে পরীমনি ও সৌরভের কয়েকটি ঘনিষ্ঠ ছবি ছড়িয়ে পড়েছিল ফেসবুকে। পাওয়া গিয়েছিল বিয়ের কাবিননামার একটি কপিও। এরপরই পরীমনির বিয়ের খবর দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। পরে এটা নিয়ে খবরও প্রকাশ হয় বিভিন্ন মিডিয়ায়। সেসব খবরে সৌরভের সঙ্গে তোলা পরীমনির ছবি ও কাবিননামাও জুড়ে দেয়া হয়। এই ঘটনায় সেসময় ক্ষেপে গিয়েছিলেন পরীমনি। ক্ষোভ ঝেড়েছিলেন ফেসবুকে। তিনটি ঘনিষ্ঠ সেলফিও পোস্ট করেছিলেন। লিখেছিলেন, এমন হাজারটা ছবি আছে আমার সঙ্গে। তবে কি সবাই আমার স্বামী?