গ্যেটে ইনস্টিটিউটে শর্টফিল্ম প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত

ঢাকা, শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯ | ৩ কার্তিক ১৪২৬

গ্যেটে ইনস্টিটিউটে শর্টফিল্ম প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত

বিনোদন প্রতিবেদক ১০:০৮ অপরাহ্ণ, জুন ১৬, ২০১৯

print
গ্যেটে ইনস্টিটিউটে শর্টফিল্ম প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত

পরিচালক তাসমিয়া আফরিন মৌ এর তিনটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র টোকাই (২০১২), কবি স্বামীর মৃত্যুর পর আমার জবানবন্দি (২০১৬) ও নায়িকার এক রাত (২০১৯) প্রদর্শিত হয়েছে। রোববার বিকেলে গ্যেটে ইন্সটিটিউটে নারী চলচ্চিত্র নির্মাতাদের প্ল্যাটফর্ম ‘থ্রো হার আইস’ আয়োজিত এ প্রদর্শনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট চলচিত্র নির্মাতা ফৌজিয়া খান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও চলচিত্র সমালোচক মোহাম্মদ আযম, ছবির শিল্পী ও কলাকুশলীরা। এছাড়া তরুণ নির্মাতা, শিক্ষার্থী এবং সাংবাদিকগণ উপস্থিত ছিলেন।


প্রদর্শনী শেষে মুক্ত আলোচনা ও প্রশ্নোত্তর পর্বে পরিচালক তার চলচ্চিত্র নির্মাণের পেছনের অনেক অভিজ্ঞতা বিনিময় করেন। তিনি নারীর চোখে নারীর সমস্যা দেখানোর চেষ্টা করেছেন। তার মতে একজন নারীর সমস্যা অন্য নারীই সবথেকে ভাল উপলব্ধি করতে পারে। নারী প্রধান তার গল্পগুলোতে শৈল্পিক ও সামাজিক দুই গুরুত্বই প্রাধান্য পেয়েছে।


টোকাই স্বল্পদৈর্ঘ্য ছবির গল্পে তিনি তিনি মেয়ে টোকাইদের চিত্রায়ণ করেছেন যা দর্শকদের মুগ্ধ করেছে। পরিচালক জানান, আমরা টোকাইদের থেকে শ্রেণীগত দুরত্বের কারণে আলাদা এবং তারা ছোট শরীরে আটকে পড়া প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ যাদের তিনি মধ্যবিত্তের চোখ দিয়ে দেখেছেন।
কবি স্বামীর মৃত্যুর পর আমার জবানবন্দিতে তিনি দেখিয়েছেন অতি অবহেলা আর উদাসীনতার কারণে একজন নারীর প্রতি ভালবাসার যে অপমৃত্যু ঘটে এবং দৈহিক মৃত্যুর আগেই কিভাবে অস্তিত্বের মৃত্যু হয় তার চিত্রায়ণ করার চেষ্টা করেছেন। নায়িকার এক রাত গল্পে তিনি একজন নায়িকার দর্শকপ্রিয়তা ধরে রাখতে নিজের সঙ্গে প্রতিনিয়ত করে যাওয়া সংগ্রামকে তুলে ধরেছেন।


সর্বোপরি তিনি তার নির্মাণকালীন বিভিন্ন অভিজ্ঞতা এবং চলচিত্র নিয়ে তার ভবিষ্যত পরিকল্পনা তুলে ধরেন। নিজের গল্পের চিত্রায়ন ও পরিচালনা করে তিনি সকলের অনেক প্রশংসা কুড়িয়েছেন। তরুণ নির্মাতা ও সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি ফিল্মের বাজেট পাওয়া নিয়ে তার অভিজ্ঞতা জানান। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন সময় থেকেই পরিচালক বিভিন্ন বুদ্ধিবৃত্তিক চর্চার সাথে জড়িত ছিলেন বলে জানান। অনুষ্ঠানের সঞ্চালক ড. মোহাম্মদ আযম তার অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, তাসমিয়া আফরিন মৌ আইডিয়া নিয়ে কাজ করতে পছন্দ করেন এবং তিনি আইডিয়াকে সিম্বোলিক রুপ দিতে পারেন। যা তার কাজগুলোতে ফুটে উঠেছে।