নব্বই একরে ফেরার অপেক্ষায়...

ঢাকা, সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০ | ১১ কার্তিক ১৪২৭

নব্বই একরে ফেরার অপেক্ষায়...

রেজাউল ইসলাম রেজা ১২:২৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১০, ২০২০

print
নব্বই একরে ফেরার অপেক্ষায়...

উচ্চশিক্ষার জন্য বাড়ি ছেড়েছি ২০১৫ সালে। বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হবার পর, ইদ কিংবা পূজোর সরকারি ছুটি ব্যতীত বাসায় আসার তেমন সুযোগ হতো না। পরিবারের সাথে সময় কাটানো, বাবা মার সাথে দেখা করার জন্য মন ছটফট করতো সবসময়। তবুও ভবিষ্যতের আশায় নিজেকে একরকম সান্তনা দিতাম।

প্রথমদিকে জোর করে হলেও মনটাকে বুঝিয়ে রাখতাম পবিপ্রবি নামক ৯০ একর জায়গায়। শুরুতে কষ্ট হলেও একটা সময় মানিয়ে নিয়েছি, ভালোবাসতে শিখেছি। প্রাণের ক্যাম্পাসকে ছেড়ে আসতে যেন মন চাইতো না। দেখতে দেখতে চারটা বছর কেটে গেল, গ্র্যাজুয়েশনের ঠিক কাছে গিয়েও তাকে স্পর্শ করার স্বাদ থেকে বঞ্চিত হলাম। অদৃশ্য শত্রুর কাছে জিম্মি হয়ে ফিরতে হলো নিজ ঠিকানায়। করোনা সংক্রমণ কমাতে দেশের সকল শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান গত ১৭ মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে।

শুরুতে মনে হতো এই তো আর কটা দিন, তারপরই ভালোবাসার আঁতুরঘরে ফিরতে পারবো, প্রিয় মানুষগুলোর সাথে আবার দেখা হবে। আবার ক্লাস, আড্ডা, গান-বাজনা, খেলাধুলা করে সময় পার করবো। কিন্তু না, দীর্ঘমেয়াদী ছুটির মেয়াদ যেন বেড়েই চলছে। অপেক্ষার প্রহর কাটছে না। প্রিয় ক্যাম্পাস, প্রিয় মানুষগুলোর জন্য অপেক্ষায় মশগুল আমরা। আর কত অপেক্ষা? টেলিভিশন কিংবা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, চারিদিকে শত শত নেতিবাচক শব্দে সয়লাব।

আক্রান্ত ও মৃত্যুর হার কমছে না। লাশের মিছিলে যোগ হচ্ছে নতুন নতুন নাম। মাঝেমধ্যে মনে হয়, যেন নিজের নাম শোনার অপেক্ষায় আছি। তাহলে কি আর কখনো ফেরা হবে না ক্যাম্পাসে। ক্যাম্পাসে কাটানো মুহুর্তগুলোই এখন সুমধুর স্মৃতি হয়ে যন্ত্রণাগুলোকে বাড়িয়ে দেয়। মোবাইল ফোনে তোলা ছবিগুলো দেখে নিজেকে শান্ত রাখলেও, এভাবে আর কত দিন?

প্রিয় ক্যাম্পাস ছেড়ে আসার ১৮১ তম দিনেও ভালোবাসার নব্বই একরে ফেরার অপেক্ষা মনের ভেতরটাকে দুমড়ে মুচড়ে দিচ্ছে। যত তাড়াতাড়ি এ ভাইরাসের হাত থেকে রক্ষা পাবো, ততই মঙ্গল। আবার ফিরে যেতে চাই চেনা শহরে। ভালোবাসার বন্ধনে থেকে প্রিয় মুখগুলোর সাথে থাকতে চাই আরও কিছুদিন। শিক্ষার্থী, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।