‘আর কোনো আবরারকে হারাতে চাই না’

ঢাকা, শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯ | ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

‘আর কোনো আবরারকে হারাতে চাই না’

আলী ইউনুস হৃদয় ১:৩০ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৭, ২০১৯

print
‘আর কোনো আবরারকে হারাতে চাই না’

‘দুর্বৃত্তরা শুধু আবরারকে পিটিয়েই হত্যা করেনি, হত্যা করেছে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মানবতাকে। তাই বাংলাদেশে আর কোনো আবরারকে হারাতে চাই না, ছাত্র নামধারী খুনীদেরও দেখতে চাই না! আবরার তুমি আমাদের হৃদয়ে বেঁচে থাকবে।’

বুয়েটের ছাত্র আবরার ফাহাদের হত্যাকা-ে জড়িত আসামীদের বিচার দাবিতে আয়োজিত মানববন্ধনে বক্তারা এসব কথা বলেন। সম্প্রতি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ সিনেট ভবনের সামনে ‘নিপীড়ন বিরোধী ছাত্র-শিক্ষক ঐক্য’ ব্যানারে এ মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। সেখানে রাবি এগারজনও অংশ নেয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের অধ্যাপক ড. ইফতিখারুল আলম মাসউদের সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সালেহ্ হাসান নকীব, অধ্যাপক আব্দুল্লাহ্ শামস্ বিন তারিক, সমাজকর্ম বিভাগের অধ্যাপক সৈয়দা আফরীনা মামুন, শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক আকতার বানু, কম্পিউটার সায়েন্স এ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ছাইফুল ইসলাম এবং শিক্ষার্থী মেহেদী হাসান।

বক্তারা আরো বলেন, আবরার হত্যাকাণ্ডের পর আর কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে যেন এরকম ন্যক্কারজনক ঘটনা না ঘটে সেজন্য দাঁড়িয়েছি। শুধু ক্লাস নেওয়াই নয় বরং প্রত্যেকটি শিক্ষার্থীকে নিরাপত্তা প্রদানও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের দায়িত্বের মধ্যে পড়ে। প্রক্টরিয়াল বডি, উপাচার্য ও উপ-উপাচার্য এসব প্রশাসনিক পদের ওপর দায়িত্ব ছেড়ে দিয়ে বসে থাকতে চাই না। নিশ্চিন্ত মনে বসে থাকার কারণেই এ ঘটনাগুলো ঘটছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পাশাপাশি শিক্ষকদের একতাবদ্ধ হওয়ার প্রয়োজন আছে। এখন নিজেদেরও ভাবতে হবে এজন্য প্রত্যেক হলে অরাজনৈতিক একটি ছাত্র-শিক্ষক সমন্বয়ে গঠিত কমিটি গঠন করা যেতে পারে যাতে হলের যেকোন ঘটনার খবর তাৎক্ষণিকভাবে ছাত্র-শিক্ষক সবাই জানতে পারে।

মানববন্ধন থেকে ছয় দফা দাবি ঘোষণা করা হয়। এছাড়া আবরার হত্যাকাণ্ডের বিচার না হলে দাবি আদায়ে আবারো আন্দোলনের নামার হুশিয়ারি দেন বক্তারা। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শতাধিক শিক্ষক-শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

সমন্বয়ক, এগারজন
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।