বন্যার্তদের পাশে সবাই

ঢাকা, সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯ | ৪ ভাদ্র ১৪২৬

বন্যার্তদের পাশে সবাই

শফিক হাসান ২:২১ অপরাহ্ণ, আগস্ট ০৮, ২০১৯

print
বন্যার্তদের পাশে সবাই

অকস্মাৎ দুর্যোগ যেন হয়ে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশের ‘নিয়তি’। কিন্তু যতই দুর্যোগ-বাধা আসুক, এ দেশের মানুষ তাৎক্ষণিক মোকাবেলায়ও পারঙ্গম। যে কারণে বাংলাদেশ এখনো বিশ্বের বিস্ময়। তারা যেখানে যৌক্তিক সমীকরণ বা ‘তল’ খুঁজে পায় না, সেখানে বাংলাদেশের মানুষ জানে ঘুরে দাঁড়ানোর শক্তি ও দুর্বার মনোবলই আসলে সমস্যা মোকাবেলার চাবিকাঠি। সমস্যাকে সমস্যা মনে না করে মোকাবেলায় উদ্যোগী হয়েছে আপামর মানুষ।

একটি বন্যার ক্ষত পুরোপুরি কাটিয়ে ওঠার আগে চলতি বছর দেখা দিয়েছে আরেকটি বন্যা। এ বন্যাকেও ‘বৃদ্ধাঙ্গুলি’ দেখিয়ে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে দামাল জনতা। বন্যার্তদের পায়ের তলার মাটি তথা দাঁড়ানোর জায়গা করে দেওয়ার জন্য সরকারের পাশাপাশি এগিয়ে এসেছে সাধারণ মানুষ। সামর্থ্য অনুযায়ী দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছে বন্যার্তদের পাশে, সহমর্মী হয়ে।

খোলা কাগজও এগিয়ে এসেছে বন্যার্তদের দুর্দশা লাঘবে। পত্রিকার প্রথম পাতায় ঘোষণা দিয়ে, বিকাশ নম্বর ছেপে বন্যার্তদের সহযোগিতায় এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছে প্রতিদিন। এ ত্রাণ তহবিলের সমন্বয়ক খোলা কাগজের পাঠক সংগঠন এগারজন।

একের পাশে এক দিলে কত হয়- দুই নাকি এগার? এ প্রশ্নের জবাব ব্যক্তিভেদে ভিন্ন হবে। অতি বড় যুক্তিবাদীরা দুই দেখলেও আশাবাদীরা এখানে খুঁজে পাবেন এগার’র অস্তিত্ব। একে অন্যের পাশে দাঁড়িয়ে, একের সঙ্গে মিলিয়েই আমরা এগারজন! এগারজনের নানা শ্রেণি-পেশার সদস্যরা এগিয়ে এসেছেন বন্যার্তদের সাহায্যে। এ পাঠক সংগঠনের বড় একটি অংশই কলেজ-বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে শিক্ষকসহ সতীর্থদের কাছ থেকে ত্রাণ সংগ্রহ করেছেন।

সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় উত্তোলনকৃত টাকা পাঠিয়েছেন ত্রাণ তহবিলে। এভাবেই বিন্দু থেকে সিন্ধু হয়। ১০ কিংবা ১০০ টাকা থেকেই সৃষ্টি হাজার টাকার। পৃথিবী যেখানে ক্রমশ আত্মকেন্দ্রিক হয়ে যাচ্ছে সেখানে শিক্ষার্থীদের মানবতার দীক্ষা এখনো আশা জাগায়, স্বপ্ন দেখতে বাধ্য করে। বর্তমান প্রজন্ম হরেক প্রলোভন এড়িয়েও চেষ্টা করে সত্যিকারের মানুষ হওয়ার, আর্ত-মানবতার সেবার পথযাত্রী তারা।

এগারজনের আরও সংগঠকসহ আমাদের পাশে ছিলেন সারা দেশের খোলা কাগজ প্রতিনিধিরাও। পেশাগত কাজের বাইরে তারা এগিয়ে এসেছেন মানবতার কল্যাণে। সম্মানিত প্রতিনিধিরা শুধু লিখেই সমাজ বদলের চিন্তা করেননি, অন্যভাবেও অংশ নিয়েছেন। ধন্যবাদ তাদের, বিভিন্নভাবে ত্রাণ সংগ্রহ করে তহবিলে পাঠানোর জন্য।
বন্যার্ত এলাকার প্রতিনিধিরা একদিকে পাঠিয়েছেন ভুক্তভোগীদের সংবাদ, অন্যদিকে সচেষ্ট ছিলেন দুঃখ-লাঘবে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপে।

এ পর্যন্ত অর্থ সাহায্য উঠেছে ৭২,৪৭০ টাকা। অর্থ সাহায্যদাতা ও সংগ্রহকারীদের নাম ছাপা হয়েছে প্রতিদিনের খোলা কাগজে, বিস্তারিত রয়েছে ফেসবুক পেজে। আরও কিছু জায়গা থেকে অর্থ সাহায্য আসার কথা রয়েছে। সেগুলো চলে এলেই সমাপ্তি ঘটবে সংগ্রহ তৎপরতার। এবার বিতরণের পালা।

উত্তোলনকৃত টাকায় ক্রয় করা হবে প্রয়োজনীয় ত্রাণসামগ্রী, সেগুলো কখন বিলি হবে, বেছে নেওয়া হবে কোনো দুর্গত এলাকাকে- সংশ্লিষ্ট এবং উপদেষ্টাম-লীর সিদ্ধান্তে নির্ধারণ করা হবে আগামী দুই তিন দিনের মধ্যে। বিতরণের সচিত্র সংবাদও পাঠক জানবেন।

আমরা কৃতজ্ঞ, আমরা অভিভূত- শ্রেণি-বর্ণ নির্বিশেষে অনেকেই এগিয়ে এসেছেন, সাড়া দিয়েছেন আমাদের আহ্বানে। আস্থা রেখেছেন আমাদের ওপর। যে কোনো দুর্যোগে শেষপর্যন্ত মানবতার জয় হয়। মানবতার সেবার গর্বিত অংশীদারদের অভিবাদন।
জয়তু এগারজন!

প্রচার সম্পাদক
এগারজন কেন্দ্রীয় কমিটি