আমার মা

ঢাকা, বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯ | ১২ আষাঢ় ১৪২৬

আমার মা

সাজেদুর রহমান সৈকত ৪:৫২ অপরাহ্ণ, জুন ১৩, ২০১৯

print
আমার মা

মা অতি ছোট্ট একটি শব্দ হলেও এর ভালোবাসার বিশালতা সীমাহীন। আমার মা শুধু একজন মা-ই নন আমার সেরা বন্ধুও বটে। যে কথা আমি কারও কাছে বলতে পারি না! সে কথা কিন্তু আমি মাকেই বলি। পৃথিবীতে একজন নিঃস্বার্থ মানুষ থাকলে তিনি হচ্ছেন মা। বুঝতে শেখার পর থেকে তার হাতেই আমার নৈতিক শিক্ষার হাতেখড়ি। প্রথম যেদিন স্কুলের উদ্দেশ্যে বাবার সঙ্গে রওনা হবো মা আমাকে পোশাক পরিয়ে দিতে দিতে বলেছিলেন, স্যার-ম্যাডামকে সালাম দিতে হবে, ভালোভাবে পড়াশোনা করতে হবে কিন্তু! আর হ্যাঁ, কোনো দুষ্ট ছেলেদের সঙ্গে মেশা যাবে না।

প্রাথমিক শেষ করে মাধ্যমিকে পদার্পণ করার সময় মা বললেন, এখন কিন্তু আরো বেশি পরিশ্রম করতে হবে। মাধ্যমিক শেষ করে যখন কলেজ জীবন শুরু করলাম, জেলা শহরের সরকারি কলেজে। মা বললেন, এখন কিন্তু আমি দেখবো না তোমার পড়াশোনা তোমাকেই করতে হবে। কেননা, জীবনটা তো তোমার। আমার জীবনে আমার মা কত গুরুত্বপূর্ণ তা সেদিন একটু হলেও উপলব্ধি করতে পেরেছিলাম। আমার জীবনের প্রথম ও সর্বশ্রেষ্ঠ শিক্ষক আমার মা। আমার মা একজন ডাক্তারও বটে। অসুখ-বিসুখে নির্ঘুম সেবা-শুশ্রূষা করে যাওয়া মানুষটি আমার মা, যা কোনো পেশাদার নার্সও করতেন না। মজার মজার রান্না করে, নিজে না খেয়ে, আমাকে নিজের হাতে তুলে খাওয়ানোর মাঝে স্বর্গের সর্বোচ্চ সুখ খুঁজে পাওয়া নারীটি হলেন আমার মা। এখনো অনেক দূর থেকে, তার শত ব্যস্ততার মাঝেও নিয়মিত খাবার খাওয়ার জন্য তাগিদ করা মানুষটিই আমার মা।

আমাকে কোন পোশাকে ভালো মানাবে সেটিও পছন্দ করে দেন আমার মা। সেই বিবেচনায় আমার মাকে একজন সেরা ফ্যাশন ডিজাইনার বললেও ভুল হবে না। আমার জীবনের সব ক্ষুদ্র সফলতার পেছনে কোনো না কোনো দিক থেকে সবচেয়ে বেশি অবদান রাখা ব্যক্তিটি আমার মা।

মধ্যবিত্ত পরিবারের সদস্য হিসেবে, আমার মায়ের স্বপ্নের মতো বড় একজন মানুষ হওয়ার লক্ষ্যে, আমি লড়াই করছি প্রতিটি মুহূর্তে। আমার কাছে মা মানে, একরাশ অন্ধকারে এক বুক ভালোবাসা, মা মানে সুন্দর জীবন, মধু মিশ্রিত এক মহৌষধ।

সবাই বলে, আমিও গর্বের সঙ্গেই বলি, আমার মায়ের মতো মা পৃথিবীতে আর কারো নেই। আমার মা জগতের শ্রেষ্ঠ অবলম্বন।

সদস্য
এগারজন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়