নতুনত্বে ভরপুর নব শিক্ষাব্যবস্থা

ঢাকা, রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪ আশ্বিন ১৪২৮

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

নতুনত্বে ভরপুর নব শিক্ষাব্যবস্থা

তুষার আহসান
🕐 ১১:৪৪ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২১

নতুনত্বে ভরপুর নব শিক্ষাব্যবস্থা

২০২৫ সাল থেকে পুরোপুরি নতুন শিক্ষাক্রমে চলবে স্কুল-কলেজ। নতুন এ শিক্ষাক্রমে শিক্ষার্থীদের ওপর থেকে নেমে যাবে পরীক্ষা নামক দুশ্চিন্তার বোঝা। পুরো শিক্ষাক্রম ‘শিক্ষার্থীকেন্দ্রিক’ ঢেলে সাজানো হয়েছে। প্রাথমিকে শিক্ষা সমাপনী ও অষ্টম শ্রেণির জেএসসি পরীক্ষা থাকছে না। তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের দিতে হবে না বার্ষিক পরীক্ষাও। উঠে যাচ্ছে নবম ও দশম শ্রেণির বিজ্ঞান, মানবিক কিংবা বাণিজ্যের মতো বিভাগ। ২০২৩ সাল থেকে ধাপে ধাপে বাস্তবায়ন শুরু হবে নতুন এ শিক্ষাক্রম। তার আগে আগামী বছর থেকে প্রাথমিক ও মাধ্যমিকের ১০০টি করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নতুন শিক্ষাক্রমের পাইলটিং শুরু হবে। গতকাল সোমবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখা উপস্থাপন করা হলে তিনি তা অনুমোদনও দিয়েছেন।

শিক্ষার রূপরেখা সাজানোর নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর : বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ও আধুনিক বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে দেশীয় শিক্ষার রূপরেখা সাজানোর নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ও বিশ্ব পরিস্থিতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যেতে শিক্ষাব্যবস্থা আরও আধুনিকায়ন করতে হবে। শিক্ষা কার্যক্রম সময়োপযোগী করা একান্তভাবে অপরিহার্য।

আমাদের যে নীতিমালা আছে, তার ভিত্তিতে আমরা করব। কিন্তু সব সময় সবার সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমাদের চলতে হবে। এবং বিশ্ব পরিস্থিতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে। বিজ্ঞান-প্রযুক্তি জ্ঞানের ক্ষেত্রে বিশ্ব যখন এগিয়ে যাচ্ছে, আমরা কোনোমতেই পিছিয়ে থাকতে পারি না।’

গতকাল সোমবার গণভবনে জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখার খসড়া উপস্থাপনা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এ নির্দেশনা দেন।

বিজ্ঞান শিক্ষার গুরুত্ব তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, আমি লক্ষ্য করেছিলাম, বিজ্ঞানের প্রতি আমাদের দেশের ছেলেমেয়েদের অনীহা। বিজ্ঞান শিক্ষা তারা নিতেই চাইতো না। বিজ্ঞান বিভাগের লোকই পাওয়া যেতো না। এরকম একটা সময় কিন্তু ছিল। পরে আমরা বিজ্ঞান শিক্ষায় গুরুত্ব দিই। আমরা দেশে ১২টা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় করেছি।

এ সময় ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলতে তার সরকারের চলমান বিভিন্ন কার্যক্রম প্রসঙ্গে কথা বলেন সরকারপ্রধান।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আলহামদুলিল্লাহ, গতকাল (রোববার) থেকে আমরা স্কুল-কলেজ খুলে দিয়েছি। ধীরে ধীরে সব খুলে দেওয়া হবে। আবার নতুনভাবে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হবে। অত্যন্ত দুর্ভাগ্য, আমরা প্রায় দেড় বছরের মতো আমাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো খুলতে পারিনি। যদিও অনলাইনে বা টেলিভিশনের মাধ্যমে বা ঘরে বসে আমরা শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রাখার বহুমুখী পদক্ষেপ নিয়েছি, কাজও করেছি। কিন্তু সশরীরে স্কুলে যাওয়ার আনন্দ, কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়ার আনন্দ থেকে শিশুরা বঞ্চিত হয়েছে।

করোনাকালীন শিক্ষা কার্যক্রম সচল রাখতে সংশ্লিষ্টদের ভূমিকার প্রশংসা করে শেখ হাসিনা বলেন, আমরা এ পর্যন্ত যথেষ্ট পদক্ষেপ নিয়েছি। যে সব এলাকায় স্কুল ছিল না, সেসব এলাকায় আমরা স্কুল তৈরি করে দিচ্ছি। ছোট ছোট শিশুদের যোগাযোগ ও যাতায়াতের ব্যবস্থা বিবেচনা করেই কিন্তু আমরা বিভিন্ন এলাকায় স্কুল তৈরির ব্যবস্থা নিয়েছি।

উঠে যাচ্ছে পাবলিক পরীক্ষা : পিইসি ও জেএসসি পরীক্ষা থাকছে কি না- জানতে চাইলে গতকাল সাংবাদিক সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘প্রাথমিকে শেষে একটি সনদ পেল, ক্লাস এইট শেষে একটি সনদ পেল। তার মানে না যে প্রত্যেক ক্ষেত্রে সনদ দিতে হবে। আমি যদি ক্লাস শেষ করি সেখানেও তো সনদ দেওয়ার ব্যবস্থা থাকতে পারে। সনদের জন্য শিক্ষা নয়, পারদর্শিতা নিশ্চিত করতে চাই।’ তিনি বলেন, ‘অষ্টম ও প্রাথমিকে পাবলিক পরীক্ষার কথা বলিনি, ক্লাস থ্রি পর্যন্ত কোনো পরীক্ষা থাকবে না এবং প্রতিটিতে সমাপনী পরীক্ষা হবে। সনদ দেওয়ার জন্য পাবলিক পরীক্ষার দরকার নেই। পিইসি এখনো ক্লাস সমাপনী পরীক্ষা, জেএসসি পাবলিক পরীক্ষা, বছর শেষে প্রতি ক্লাসে মূল্যায়ন হবে। দশম, একাদশ ও দ্বাদশে পাবলিক পরীক্ষার কথা বলেছি, এইচএসসির পরীক্ষার রেজাল্ট হবে একাদশ ও দ্বাদশ মিলিয়ে।’

জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখা অনুযায়ী পাবলিক পরীক্ষার বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘দশম শ্রেণির পাঠ্যক্রম অনুযায়ী এসএসসি পরীক্ষা হবে। একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণিতে দুটি পরীক্ষা নিয়ে সেই দুই পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে এইচএসসির ফল দেওয়া হবে। অন্য শ্রেণিতে হবে সমাপনী পরীক্ষা, সমাপনীতে ধারাবাহিক মূল্যায়নের সঙ্গে সামষ্টিক মূল্যায়ন করা হবে।’ ‘শিখন সময় কতটা হবে, তা নির্দিষ্ট করে দেওয়া হবে। সামষ্টিক মূল্যায়নের পাশাপাশি ধারাবাহিক মূল্যায়নেও গুরুত্ব দিয়েছি,’ বলেন তিনি।

তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত থাকছে না বার্ষিক পরীক্ষা : নতুন শিক্ষাক্রমে তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত বার্ষিক পরীক্ষা থাকছে না বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেন, তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পরীক্ষা থাকবে না, এ বিষয়ে আগেই প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দিয়েছিলেন। নতুন কারিকুলামে সেটা চূড়ান্ত করে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবার অনুমোদন নেওয়া হয়েছে। তাই এখন থেকে তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পরীক্ষা থাকবে না।

ধাপ উঠিয়ে মসৃণের চেষ্টা : প্রাক-প্রাথমিক থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত এই রূপরেখা করা হয়েছে জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘এর আগে প্রাথমিক, মাধ্যমিক আলাদা আলাদা ছিল। একজন শিক্ষার্থী প্রাক-প্রাথমিকে ঢুকে মাধ্যমিকে যাচ্ছে। এ জন্য এক স্তর থেকে আরেক স্তরে যাওয়া যেন খুব মসৃণ হয়, মাঝে যেন ছেদ না পড়ে, অন্য স্তরে গিয়ে যেন খাপ খাওয়াতে কোনো সমস্যা না হয়, সেটি আমরা দেখার চেষ্টা করেছি।’

যা বললেন শিক্ষামন্ত্রী : নতুন শিক্ষাক্রম সম্বন্ধে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেন, ‘আগামী বছর থেকে প্রাথমিকের প্রথম শ্রেণি এবং মাধ্যমিকের ষষ্ঠ শ্রেণিতে পাইলটিং শুরু হবে। ২০২৩ সাল থেকে প্রাথমিকের প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণি এবং মাধ্যমিকের ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণিতে শুরু হবে নতুন শিক্ষাক্রম। ২০২৪ সালে তৃতীয়, চতুর্থ, অষ্টম ও নবম শ্রেণি এবং ২০২৫ সালে পঞ্চম ও দশম শ্রেণিতে এই শিক্ষাক্রম শুরু হবে। ২০২৫ সালের মধ্যে পুরো শিক্ষাক্রম বাস্তবায়ন করা হবে।’

পুরো শিক্ষাক্রম শিক্ষার্থীকেন্দ্রিক হবে জানিয়ে দীপু মনি বলেন, ‘আনন্দময় পড়াশোনা হবে। বিষয়বস্তু ও পাঠ্যপুস্তকের বোঝা ও চাপ কমানো হবে। গভীর শেখনে গুরুত্ব দেওয়া হবে। মুখস্থ নির্ভরতার বিষয়টি যেন না থাকে, এর বদলে অভিজ্ঞতা ও কার্যক্রমভিত্তিক শেখাকে অগ্রাধিকার দেওয়া হচ্ছে। শিক্ষার্থীর দৈহিক ও মানসিক বিকাশে খেলাখুলা ও অন্যান্য কার্যক্রমকে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।’

নতুন শিক্ষাক্রম অনুযায়ী শিক্ষার্থীরা শ্রেণিকক্ষেই যেন অধিকাংশ পাঠ গ্রহণ করতে পারে, সেই ব্যবস্থা রাখা হয়েছে বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘এরপর শিক্ষার্থীরা যেন নিজেদের মতো সময় কাটাতে পারে। পড়াশোনার বাইরে খেলাধুলা বা অন্যান্য বিষয়ের সুযোগ কমে গেছে, এটা যেন না হয়। জ্ঞান, দক্ষতা, মূল্যবোধ ও দৃষ্টিভঙ্গির সমন্বয়ে যোগ্যতা অর্জন করতে হবে।’

 
Electronic Paper