রাবিতে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ পালিত

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২ এপ্রিল ২০২০ | ১৯ চৈত্র ১৪২৬

রাবিতে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ পালিত

রাবি প্রতিনিধি ৪:২৭ অপরাহ্ণ, মার্চ ০৭, ২০২০

print
রাবিতে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ পালিত

নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য ঐতিহাসিক ৭ মার্চ দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে শনিবার (০৭ মার্চ) সকালে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন একটি শোভাযাত্রা বের করে। শোভাযাত্রাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তনে এসে মিলিত হয়।

এর আগে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পন করে শ্রদ্ধা নিবেদন করে প্রশাসন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এম আব্দুস সোবহান, উপ-উপাচার্য আনন্দ কুমার সাহা, উপ-উপাচার্য চৌধুরী মো. জাকারিয়া, প্রক্টও লুৎফর রহমান, ছাত্রউপদেষ্টা লায়লা আরজুমান বাণু, জনসংযোগ দফতরের প্রশাসক প্রভাষ কুমার কর্মকার সহ বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষদ, বিভাগ, ইনস্টিটিউট, আবাসিক হল ও ডরমিটরি, প্রশাসনিক অফিসসমূহ থেকে শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা, কর্মচারীরা।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় উপাচার্য বলেন, ঐতিহাসিক ৭ মার্চ বাঙালি জাতির ইতিহাসের এক অবিচ্ছেদ্য দিন। ১৯৭১ সালের এই দিনে ঢাকার রেসকোর্স ময়দানের জনসমুদ্রে দাঁড়িয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এক ঐতিহাসিক ভাষণের মাধ্যমে স্বাধীনতার ডাক ও মুক্তিযুদ্ধের দিকনির্দেশনা দিয়েছিলেন। সেই বজ্রকণ্ঠ ভাষণেই শুরু হয়ে যায় সর্বস্তরের মানুষের রণপ্রস্তুতি। ৩০ লাখ বাঙালির রক্তে, ২ লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতার যে বিজয় মুকুট পরেছে বাংলাদেশ তার বীজ অঙ্কুরিত হয়েছিল সেই ভাষণে। ঐতিহাসিক এই দিনে স্বাধীনতার মহানায়ক, বাঙালি জাতির জনককে জানাই আমাদের অকুণ্ঠ শ্রদ্ধা।

শহীদ সুখরঞ্জন সমাদ্দার ছাত্র-শিক্ষক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের পরিচালক প্রফেসর মো. হাসিবুল আলম প্রধান সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপাচার্য প্রফেসর এম আব্দুস সোবহান ও উপ-উপাচার্য প্রফেসর চৌধুরী মো. জাকারিয়া ছাত্র-উপদেষ্টা প্রফেসর লায়লা আরজুমান বানু, জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক প্রভাষ কুমার কর্মকার, প্রক্টর প্রফেসর মো. লুৎফর রহমানসহ বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক ও পাঁচ শতাধিক শিক্ষার্থী।