৩৪ ও ৩৫তম বিসিএসের ২৮ জনকে নিয়োগে হাইকোর্টের রায়

ঢাকা, বুধবার, ১ এপ্রিল ২০২০ | ১৮ চৈত্র ১৪২৬

৩৪ ও ৩৫তম বিসিএসের ২৮ জনকে নিয়োগে হাইকোর্টের রায়

নিজস্ব প্রতিবেদক ২:৩৫ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৮, ২০২০

print
৩৪ ও ৩৫তম বিসিএসের ২৮ জনকে নিয়োগে হাইকোর্টের রায়

বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (বিসিএস) পরীক্ষার ৩৪ ও ৩৫তম-তে চূড়ান্তভাবে উত্তীর্ণ ২৮ জনকে নিয়োগ দেওয়ার নির্দেশ দিয়ে রায় ঘোষণা করেছেন হাইকোর্ট। রায় পাওয়ার ৬০ দিনের মধ্যে দুই বিসিএসে অন্যদের নিয়োগ পাওয়ার তারিখ থেকে তাদেরও নিয়োগ দিতে হবে।

আদালতের রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ওয়ায়েস আল হারুনী বলেছেন, দুই বিসিএসে সুপারিশপ্রাপ্ত ২৮ জনকে নিয়োগের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আদেশে এই ২৮ জনকে ৩৪ ও ৩৫তম বিসিএসে নিয়োগ পাওয়ার সময় থেকে সকল সুবিধা দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে।

এ সংক্রান্ত পৃথক তিনটি রিটের চূড়ান্ত শুনানি শেষে মোট ২৮ জনের বিষয়ে জারি করা রুল যথাযথ ঘোষণা করে মঙ্গলবার হাইকোর্টের বিচারপতি মো.আশরাফুল কামাল ও বিচারপতি রাজিক-আল–জলিলের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করেন।

আদালতে আবেদনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী সালাহ উদ্দিন দোলন, মো. ছিদ্দিক উল্যাহ মিয়া, অ্যাডভোকেট আব্দুস সাত্তার পালোয়ান, মো. মনিরুল ইসলাম রাহুল ও সোহরাওয়ার্দী সাদ্দাম। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ওয়ায়েস আল হারুনী।

রায়ের পরে আব্দুস সাত্তার পালোয়ান সাংবাদিকদের বলেন, সুপারিশ করার পরেও তাদেরকে নিয়োগ না দেওয়ার মূল কারণ হচ্ছে তাদের চাকরির বয়সসীমা পার করে দেওয়া। আদালত রুল অ্যাবসুলেট করে তাদেরকে নিয়োগ দিতে বলেছেন। যেই সময়ে তার (আবেদনকারী) সাথে অন্যরা নিয়োগ পেয়েছেন সেই তারিখে তাকেও নিয়োগ দিতে হবে। আর এটা করতে হবে আদালতের রায় পাওয়ার ৬০ দিনের মধ্যে।

৩৪তম ও ৩৫তম বিসিএসে সুপারিশপ্রাপ্ত হওয়ার পরও নিয়োগ না পেয়ে তারা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন। এরপর আদালত রুল জারি করেন।

রুলে সুপারিশকৃত আবেদনকারীদের নিয়োগ দিতে নিষ্ক্রিয়তা কেন অবৈধ হবে না এবং তাদের নিয়োগ দিতে ও গেজেটে নাম প্রকাশ করার পদক্ষেপ নিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না তা জানতে চেয়েছিলেন। শুনানি শেষে মঙ্গলবার রায় ঘোষণা করেন আদালত।

৩৫তম বিসিএসে পিএসসি সর্বমোট ২ হাজার ১৫৮ জন প্রার্থীকে সুপারিশ করে। পরে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় বিভিন্ন সময়ে প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে ২ হাজার ১১৮ জন প্রার্থীকে নিয়োগ দিলেও রিটকারী ১৭ জনকে নিয়োগ দেওয়া হয়নি। ওই নিয়োগ চ্যালেঞ্জ করে সুপারিশ কারীদের নিয়োগ প্রদানের নির্দেশনা চেয়ে প্রার্থীরা হাইকোর্টে রিট করেন।

৩৫তম বিসিএস এর সুপারিশ প্রাপ্ত ও রিট আবেদনকারীরা হলেন, রীনা খানম, মোহাম্মদ ফয়সাল আকবর, জান্নাতুন নেছা, এস.এম আশিকুর রহমান শিমুল, সাদিয়া আফরীন সুমাইয়া, মো. আবদুল্লাহ তারেক, মো. আবদুল্লাহ আল জোবাইর, মুসানাহ আশফাক, ফয়সাল আহমেদ চৌধুরী, খালেদ সাইফুল্লাহ, মো. আবু রোহানী পারভেজ রনি, মো. সাইদুল ইসলাম, মো. আবদুস সালাম, মো. আবু বকর, মুহসিনুল ইসলাম, রিয়াজ উদ্দিন ও মো. ফরহাদ হোসেন।

অন্যদিকে ৩৪তম বিসিএসে রাকিবুল আলম। বাকিদের নাম জানা যায় নি।