মাধ্যমিকে ঝরে গেল ৪ লাখ শিক্ষার্থী

ঢাকা, বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ৭ ফাল্গুন ১৪২৬

মাধ্যমিকে ঝরে গেল ৪ লাখ শিক্ষার্থী

নিজস্ব প্রতিবেদক ১০:২৬ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ১৮, ২০২০

print
মাধ্যমিকে ঝরে গেল ৪ লাখ শিক্ষার্থী

মাধ্যমিকে গত দুই বছরে ৩ লাখ ৯২ হাজার ৩০০ শিক্ষার্থী ঝরে পড়েছে। দুই বছর আগে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় অংশ নিতে নবম শ্রেণিতে ১১টি শিক্ষা বোর্ডে মোট ২০ লাখ ৭৩ হাজার ৯৮৮ জন রেজিস্ট্রেশন করে। তাদের মধ্যে এবার পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে ১৬ লাখ ৮১ হাজার ৬৮৮ জন।

আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হতে যাচ্ছে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। ২৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চলবে তত্ত্বীয় পরীক্ষা। পরে ব্যবহারিক পরীক্ষা চলবে ৯ মার্চ পর্যন্ত।

নিয়মিত-অনিয়মিত মিলে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় মোট ২০ লাখ ৪৭ হাজার ৭৭৯ জন অংশ নেবে। এর মধ্যে ১০ লাখ ২২ হাজার ৩৩৬ জন ছাত্র ও ১০ লাখ ২৩ হাজার ৪১৬ জন ছাত্রী।

গত বছরের তুলনায় এবার পরীক্ষার্থীর সংখ্যা কমেছে। গত বছর মোট পরীক্ষার্থী ছিল ২১ লাখ ৩৫ হাজার ৩৩৩ জন। সে হিসাবে এবার মোট ৮৭ হাজার ৫৫৪ পরীক্ষার্থী কমে গেছে। এবার সারা দেশে ৩ হাজার ৫১২টি কেন্দ্রে মোট ২৮ হাজার ৮৮৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা অংশ নেবে। তবে গত বছরের তুলনায় এবার ২০২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও ১৫টি কেন্দ্র বেড়েছে।

গত বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন, অন্যান্য বারের মতো এবারও পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে শিক্ষার্থীদের কেন্দ্রে প্রবেশ করতে হবে। অনিবার্য কারণে কোনো পরীক্ষার্থীর দেরি হলে তার বিস্তারিত তথ্য পরীক্ষা শেষে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা বোর্ডে পাঠাতে হবে। ট্রেজারি থেকে নির্দিষ্ট তারিখের পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের সব সেট কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হবে। পরীক্ষা শুরুর ২৫ মিনিট আগে এমএমএসের মাধ্যমে প্রশ্নপত্রের সেট কোড জানিয়ে দেওয়া হবে। কেন্দ্র সচিব ছাড়া অন্য কেউ পরীক্ষাকেন্দ্রে মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন না।

তিনি বলেন, এবার এসএসসি পরীক্ষায় বাংলা ২য় পত্র এবং ইংরেজি ১ম ও ২য় পত্র ছাড়া সব বিষয়ে সৃজনশীল প্রশ্নে পরীক্ষা নেওয়া হবে। নিয়মিত পরীক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে শারীরিক শিক্ষা, স্বাস্থ্য বিজ্ঞান ও খেলাধুলা এবং ক্যারিয়ার শিক্ষা বিষয়ে ধারাবাহিক মূল্যায়নে প্রাপ্ত নম্বর অনলাইনে বোর্ডে পাঠাতে হবে।

এদিকে পরীক্ষা সামনে রেখে এবারও সব ধরনের কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী ২৫ জানুয়ারি থেকে ২৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সব ধরনের কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে।