প্রাথমিক শিক্ষক বদলি শুরু ১ জানুয়ারি

ঢাকা, বুধবার, ৫ আগস্ট ২০২০ | ২১ শ্রাবণ ১৪২৭

প্রাথমিক শিক্ষক বদলি শুরু ১ জানুয়ারি

নিজস্ব প্রতিবেদক ১০:৩১ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯

print
প্রাথমিক শিক্ষক বদলি শুরু ১ জানুয়ারি

প্রতি বছরের মতো ২০২০ শিক্ষাবর্ষে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক বদলি কার্যক্রম শুরু হচ্ছে। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের তত্ত্বাবধানে আবেদন কার্যক্রম ১ জানুয়ারি শুরু হয়ে ৩১ মার্চ পর্যন্ত চলবে। ঢাকাসহ সারা দেশের ৬১ জেলায় পর্যায়ক্রমে আবেদনকারী শিক্ষকদের বদলি নির্দেশনা জারি করা হবে। তবে এ বছর অনলাইনে নয়, পুরনো বিধিতেই ৩১ মার্চ পর্যন্ত শিক্ষক বদলি কার্যক্রম চলবে।

এটি রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি এবং বান্দরবান জেলার জন্য প্রযোজ্য হবে না। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বদলি কার্যক্রমে নানা জটিলতা সৃষ্ট হয়। নানা অনিয়ম, বদলি বাণিজ্যসহ বিভিন্ন অভিযোগ ওঠে। বদলির জন্য নানা মহলের তদবিরে বিপাকে পড়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর। নির্ধারিত তিন মাস পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। এসব কারণে বদলি কার্যক্রম বছরজুড়ে অনলাইনভিত্তিক করার নীতিগত সিদ্ধান্ত হলেও নির্ধারিত সময়ে নীতিমালায় সংশোধন ও এ সংক্রান্ত সফটওয়্যার তৈরি না হওয়ায় এবার পুরোনো পদ্ধতিতে শিক্ষক বদলি হবে।

জানা গেছে, বছরজুড়ে প্রাথমিকের শিক্ষক বদলিতে নীতিমালা সংশোধন কাজ শুরু হয়েছে। এজন্য প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব বদরুল হাসান বাদলকে প্রধান করে চার সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। এ কার্যক্রম অনলাইনভিত্তিক করতে নতুন করে সফটওয়্যার তৈরি করা হচ্ছে। ২০২১ সাল থেকে অনলাইনে শিক্ষক বদলি কার্যক্রম শুরু হবে।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা জানান, অনলাইনভিত্তিক সহকারী শিক্ষক বদলির ক্ষেত্রে নীতিমালায় বেশ কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে। প্রয়োজনভিত্তিক বছরজুড়ে শিক্ষক বদলি করা হবে। তবে অনলাইনভিত্তিক জানুয়ারি-মার্চ পর্যন্ত এ কার্যক্রম পরিচালনার প্রস্তাব করা হয়েছে।

এতে দেখা গেছে, বদলির জন্য ন্যূনতম তিন বছর নির্ধারণ করা হয়েছে। শূন্য থাকা আসনে মোট তিনটি বিদ্যালয়ে বদলির জন্য আবেদন করা যাবে। জেলা সদর ও সিটি করপোরেশন এলাকায় সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরিরত স্বামী-স্ত্রীর কর্মস্থলে বদলি হওয়ার সুযোগ রাখা হয়েছে। তবে এ সুবিধা চাকরিকালীন একবার গ্রহণ করা যাবে। উপজেলা-সিটি করপোরেশনের বাইরে থেকে সর্বাধিক ২০ শতাংশ শূন্যপদে সংশ্লিষ্ট স্থানে বদলি হওয়া যাবে।

এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা তার উপজেলাধীন বিদ্যালয়ের বাইরে থেকে বদলিকৃত শিক্ষকদের হালনাগাদ তালিকা রেজিস্টারে সংরক্ষণ করতে বলা হয়েছে। তবে বৈবাহিক কারণে বদলির ক্ষেত্রে এ শর্ত প্রযোজ্য হবে না। প্রতিবন্ধী শিক্ষক এবং শিক্ষকের ওপর নির্ভারশীল প্রতিবন্ধী সন্তান, নদীভাঙন অথবা অন্য কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে শিক্ষকের বসতভিটা বিলীন হলে ও বিভাগীয় অথবা জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ শিক্ষকদের বদলির ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। তবে বিধবা, তালাকপ্রাপ্ত শিক্ষিকা, বিবাহ বিচ্ছেদজনিত মামলা চলমান হলে একবার এ সুবিধা গ্রহণের প্রস্তাব করা হয়েছে।

এছাড়াও প্রশাসনিক কারণে বদলি, সমন্বয়, পারস্পরিক সমঝোতা, সংযুক্তি, বিশেষ কারণে বছরজুড়ে সুবিধামতো যেকোনো স্থানে বদলি হওয়া যাবে। নতুন নিয়োগ পাওয়া শিক্ষকদের উপজেলার তফসিলভুক্ত দুর্গম এলাকার স্কুলে কমপক্ষে ছয় মাস চাকরি করতে হবে ও এসব এলাকায় চাকরির অভিজ্ঞদের বদলির ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষকদের বদলির ক্ষেত্রেও এ নিয়ম প্রযোজ্যের প্রস্তাব রয়েছে। তবে পার্বত্য তিন জেলার জন্য উপযোগী নীতিমালা প্রণয়ন করতে পারবে। সফটও্যায়ারের সঙ্গে সমন্বয় করে প্রস্তাবিত বদলি নীতিমালার আরও পরিবর্তন আনা হতে পারে।

সার্বিক বিষয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব বদরুল হাসান চৌধুরী বলেন, শিক্ষক বদলি নীতিমালা সংশোধনের কাজ শুরু হয়েছে। এ কার্যক্রম অনলাইনভিত্তিক করতে একটি সফটও্যায়ার তৈরি করা হচ্ছে। সফটও্যায়ারের মাধ্যমে বদলির সব কার্যক্রম করা হবে। আগামী বছর থেকে অনলাইন বদলির কার্যক্রম শুরু হবে। তবে বদলির ক্ষেত্রে আগামী বছর (২০২০ শিক্ষাবর্ষ) পুরনো পদ্ধতি অনুসরণ করা হবে।

তিনি আরও বলেন, বদলি কার্যক্রম আরও সহজীকরণ ও ভোগান্তিমুক্ত, বদলি বাণিজ্য ও তদবির বন্ধে এটি অনলাইনভিত্তিক করা হচ্ছে। এর মাধ্যমে বছরজুড়ে শিক্ষক বদলি করা হবে।