জাবিতে পাল্টাপাল্টি লাঞ্ছনার অভিযোগ

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৮ কার্তিক ১৪২৬

ভিসিবিরোধী আন্দোলন

জাবিতে পাল্টাপাল্টি লাঞ্ছনার অভিযোগ

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি ১০:৩৭ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ৩১, ২০১৯

print
জাবিতে পাল্টাপাল্টি লাঞ্ছনার অভিযোগ

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) উপাচার্যের অপসারণের দাবিতে ধর্মঘট চলাকালে লাঞ্ছনার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল বুধবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরাতন কলাভবনের সামনে এ ঘটনায় জাবি ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সহকারী প্রক্টর লাঞ্ছিত হয়েছেন বলে দাবি করেছেন। ছাত্র ইউনিয়ন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সংসদের সভাপতি নজির আমিন চৌধুরী জয়কে সহকারী প্রক্টর মহিবুর রৌফ শৈবাল লাঞ্ছিত করেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

অন্যদিকে সহকারী প্রক্টর ও নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মহিবুর রৌফ শৈবাল অভিযোগ করেন জয়কে টেনে সরানোর সময় আন্দোলনকারীরা লাঞ্ছিত করেন তাকে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নে সরকারের বরাদ্দ দেওয়া এক হাজার ৪৪৫ কোটি ৩৬ লাখ টাকা নিয়ে দুর্নীতির তদন্তের দাবিতে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারে উপাচার্যের অপসারণের দাবিতে করছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের একাংশ। সেই দাবিতেই অবরোধ ও ধর্মঘটের ঘোষণা ছিল আন্দোলনকারীদের। ছাত্র ইউনিয়ন বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি জয় বলেন, পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী অবরোধ ও ধর্মঘটের সমর্থনে আমি সকালে পুরাতন কলাভবনের কলাপসিবল গেটের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলাম। সাড়ে ১০টার দিকে কিছু উত্তেজিত শিক্ষার্থী এসে আমাকে ধরে টানাটানি করতে থাকে।

এ সময় শৈবাল স্যারও এসে আমার ঘাড় ও কলার ধরে জোরে টানতে থাকে। এতে প্রথমে আমি কলাপসিবল গেটের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে হাতে আঘাত পাই। পরে স্যার ঘাড় ও কলার ধরে ফের টান দিলে নিচে পড়ে গিয়ে আবার আঘাত পাই।

জয়কে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ অস্বীকার করে সহকারী প্রক্টর মহিবুর রৌফ শৈবাল উল্টো তাকে মারধরের পাল্টা অভিযোগ তুলে বলেন, আমি তাদের ওপর কোনো হামলা করিনি।

ছাত্র ইউনিয়ন সভাপতি জয়কে কলার নয়, ঘাড় ধরে গেট থেকে সরিয়ে আনছিলাম। এ সময় নিচে থেকে কেউ একজন আমার তলপেটে ৮-১০টি লাথি মারলে গুরুতর আহত হই। আমি সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা নিচ্ছি।

জয়ের ওপর হামলার প্রতিবাদে তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ করেছেন আন্দোলনকারী শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।