দুর্ভোগ কাটছে সাত কলেজের

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

দুর্ভোগ কাটছে সাত কলেজের

শাকিল মিয়া, ঢাকা কলেজ ১:৩৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৯, ২০১৯

print
দুর্ভোগ কাটছে সাত কলেজের

দুর্ভোগ কমাতে ঢাকার সরকারি সাত কলেজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অধিভুক্ত করা হয়। কিন্তু শুরু থেকে দুর্ভোগ না কমলেও এখন কিছুটা কমে আসছে। শিক্ষার্থীরা আস্তে আস্তে বেরিয়ে আসছেন সেশনজটের কবল থেকে।

জানা যায়, শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কাউন্ট করা হয় ফিঙ্গারিং প্রক্রিয়ার মাধ্যমে। এতে শিক্ষার্থীরা বাধ্য হচ্ছেন ক্লাস করতে। এ ডিজিটাল শিক্ষা ব্যবস্থার কারণে পড়াশোনায় মনোনিবেশ করছেন শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীরা খোলা কাগজকে বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হওয়ার আগে আমাদের অনার্স মাস্টার্স করতে প্রায় ৮-৯ বছর লেগে যেত। কিন্তু অধিভুক্ত হওয়ার পর অনেকটাই কমে এসেছে সেশনজট। তাছাড়া এখন নিয়মিত ক্লাস করতে হয়, কমপক্ষে ৭৫ শতাংশ উপস্থিত থাকতে হয়। এতে করে ফলাফল ভালো হচ্ছে।

তারা বলেন, ২০১৭-১৮ সেশনের আগের শিক্ষার্থীরা সেশনজটের সম্মুখীন হয়েছেন। তাছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এখন অধিভুক্ত সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের কঠোর নজরদারিতে রেখেছেন ভালো ফলাফল করাতে।

বদরুন্নেসা কলেজের শিক্ষার্থী সঞ্জু আশা বলেন, অধিভুক্ত হওয়ার আগে সেশনজট ছিল নিত্য-নৈমির্ত্তিক ব্যাপার। এটা সত্যি হতাশাজনক বিষয়। তবে ঢাবির অধিভুক্ত হওয়ার পর সেশনজট কমে এসেছে এবং ডিজিটাল শিক্ষা ব্যবস্থার পাশাপাশি শিক্ষার মান উন্নত হচ্ছে।

এ বিষয়ে ঢাকা কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর নেহাল আহমেদ বলেন, সেশনজট পুরোপুরি কমেনি। তবে আগামী ৭-৮ মাসের মধ্যে সেশনজটকে সম্পূর্ণভাবে নির্মূল করা হবে। ইতোমধ্যেই ঢাবি অধিভুক্ত হওয়ার পর কলেজগুলোতে সেশনজট কমে এসেছে।