রাত পোহালেই এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯ | ৭ কার্তিক ১৪২৬

রাত পোহালেই এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা

নিজস্ব প্রতিবেদক ১০:০০ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০১৯

print
রাত পোহালেই এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা

রাত পোহালেই এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা। শুক্রবার (১১ অক্টোবর) রাজধানীসহ সারাদেশের ১৯টি কেন্দ্রের ৩২টি ভেন্যুতে সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজের এমবিবিএস প্রথম বর্ষ ভর্তির এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের অধীনে কেন্দ্রীয়ভাবে অনুষ্ঠিত এবারের এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় সরকারি চার হাজার ৬৮টি ও বেসরকারি ছয় হাজার ৩৩৬টিসহ ১০ হাজার ৪০৪টি আসনের বিপরীতে মোট ৭২ হাজার ৯২৮ জন ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করবেন। গত বছরের চেয়ে এ বছর ৭ হাজার ৯ জন বেশি পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করছেন।

১০০ নম্বরের নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্নে সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত এক ঘণ্টার এ ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ভর্তি পরীক্ষায় পদার্থবিদ্যায় ২০, রসায়নে ২৫, জীববিজ্ঞানে ৩০, ইংরেজিতে ১৫ এবং বাংলাদেশের ইতিহাস ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সাধারণ জ্ঞানে ১০ নম্বর থাকবে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদের কাছে বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) রাত ৮টায় সার্বিক প্রস্তুতি সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সুষ্ঠু ও সুন্দর ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে এবারের ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণে সার্বিক প্রস্তুতি ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে।’

আজ দুপুর থেকে ঢাকার বাইরের বিভিন্ন মেডিকেল কলেজে সংশ্লিষ্ট কলেজের প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে প্রশ্নপত্র সিলগালা করে পুলিশি পাহারায় পাঠানোর কাজ শুরু হয়। সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত ১৪টি মেডিকেল কলেজের মধ্যে ৯টিতে প্রশ্নপত্র ট্রেজারিতে পৌঁছে গেছে। বাকিগুলোও রাতে পৌঁছে যাবে। সকালবেলা ট্রেজারি থেকে পুলিশি পাহারায় প্রশ্নপত্র কেন্দ্রে পৌঁছাবে। রাজধানীর পাঁচটি কেন্দ্রে সকালবেলা পুলিশি পাহারায় সরাসরি প্রশ্নপত্র পৌঁছে দেয়া হবে।

মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ বলেন, বিশেষ ধরনের সফটওয়্যারের মাধ্যমে স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে প্রশ্নপত্র বহনকারী প্রতিটি যানবাহনের গতিবিধি মনিটরিং করা হচ্ছে। কোথাও গাড়ি থামলেই এখানে সংকেত বেজে উঠছে। যেখানে প্রশ্ন রাখা আছে সে সিলগালা বাক্স কেউ খোলার চেষ্টা করলেই তাতে সংকেত বেজে উঠবে।

এবার মাস দেড়েক আগে থেকেই মেডিকেল কোচিং বন্ধ ছিল। কেউ যেন প্রশ্নপত্র ফাঁসের গুজব ছড়াতে না পারে সে ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা তৎপর বলে জানান স্বাস্থ্য মহাপরিচালক। তিনি বলেন, আমাদের একটাই লক্ষ্য- সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা সম্পন্ন করা।

জানা গেছে, এ বছর পরীক্ষার প্রশ্ন ও উত্তরপত্রে কোনো সেলাই থাকবে না। বিগত বেশ কয়েক বছর ধরে ভর্তি পরীক্ষায় মোট আট পৃষ্ঠার সেলাই করা প্রশ্ন ও উত্তরপত্র থাকত। তবে স্বাস্থ্য অধিদফতর প্রথমবারের মতো এবার এক পাতার (দুই পৃষ্ঠার) মধ্যে প্রশ্ন ও উত্তরপত্র ছাপিয়েছে।