হিসাববিজ্ঞান গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ

ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ আগস্ট ২০২০ | ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭

এইচএসসি ২০২০

হিসাববিজ্ঞান গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ

মুহাম্মদ আরিফুর রহমান ৭:৩৫ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১২, ২০২০

print
হিসাববিজ্ঞান গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ

হিসাববিজ্ঞান পরীক্ষায় কোনো একটি অঙ্ক না মিললে হতাশ হবে না। বরং পরের অঙ্কটি ভালো করে করার জন্য মনোযোগী হবে। মনে রাখবে পরীক্ষার হলে মনোবল ও আত্মবিশ্বাস একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

প্রিয় এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা, আজ তোমাদের ব্যবসায় শিক্ষা শাখার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ হিসাববিজ্ঞান বিষয়ের কিছু পরামর্শ তুলে ধরা হলো।

১। হিসাববিজ্ঞান প্রথমপত্রের নবম অধ্যায় এবং দ্বিতীয়পত্রের পঞ্চম অধ্যায় থেকে বাধ্যতামূলকভাবে উত্তর করতে হয় এমন দুটি প্রশ্ন (আর্থিক বিবরণী) থাকে। এ আর্থিক বিবরণী যেহেতু উত্তর করতেই হবে অর্থাৎ কোনো বিকল্প নেই, তাই এ অধ্যায়ের জন্য তোমদের ব্যাপক প্রস্তুতি থাকতে হবে। আর্থিক বিবরণী সঠিকভাবে উত্তর করার জন্য তোমার কলেজে পড়ানো নির্ধারিত বইয়ের পাশাপাশি চলতি বছরের টেস্ট পেপার থেকে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কলেজের নির্বাচনী পরীক্ষার প্রশ্নগুলো প্র্যাকটিস করবে। বিশেষ করে বিভিন্ন কলেজের নির্বাচনী পরীক্ষার আর্থিক বিবরণীর ওপর প্রণীত প্রশ্নগুলোর সমন্বয়গুলো ভালো করে দেখবে, বুঝবে এবং শিখবে। এ ছাড়া বিগত ২০১৯, ২০১৮, ২০১৭, ২০১৬, ২০১৫ ও ২০১৪ সালের এইচএসসি বোর্ড পরীক্ষার প্রশ্ন দেখতে পার।
২। হিসাববিজ্ঞান প্রথমপত্রে পঞ্চম ও নবম অধ্যায় ব্যতীত বাকি অধ্যায়গুলো (৮টি অধ্যায়) থেকে মোট ৯টি সৃজনশীল প্রশ্ন হবে। এর মধ্য থেকে ৫টি সৃজনশীল প্রশ্নের উত্তর করতে হবে। এ জন্য তোমরা গাণিতিক সৃজনশীল প্রশ্ন উত্তর করার জন্য যে কোন ৬টি অধ্যায় খুব ভালো করে পড়বে এবং প্রস্তুতি গ্রহণ করবে। প্রথমপত্রের দ্বিতীয় অধ্যায় থেকে দুটি প্রশ্ন হওয়ার সম্ভাবনা বেশি রয়েছে। তবে বহুনির্বাচনী অংশে ভালো করার জন্য সব অধ্যায়ই ভালো করে পড়তে হবে।
৩। হিসাববিজ্ঞান দ্বিতীয়পত্রে পঞ্চম অধ্যায় ছাড়া বাকি অধ্যায়গুলো (৯টি অধ্যায়) থেকে মোট ৯টি সৃজনশীল প্রশ্ন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এর মধ্য থেকে ৫টি সৃজনশীল প্রশ্নের উত্তর করতে হবে। এ জন্য তোমরা গাণিতিক সৃজনশীল প্রশ্ন উত্তর করার জন্য যে কোনো ৬টি অধ্যায় খুব ভালো করে পড়বে এবং প্রস্তুতি গ্রহণ করবে। সপ্তম অধ্যায় থেকে দুটি প্রশ্ন হওয়ার সম্ভাবনা বেশি রয়েছে এবং নবম অধ্যায় থেকে সৃজনশীল প্রশ্ন হওয়ার সম্ভাবনা কম।
৪। পরীক্ষার হলে প্রশ্ন হাতে পাওয়ার পর প্রথমেই পুরো প্রশ্নটি মনোযোগ দিয়ে পড়বে। অতঃপর যে প্রশ্নটি ভালো পারবে সেটি সবার আগে উত্তর করবে। এভাবে পর্যায়ক্রমে অন্যান্য প্রশ্নের উত্তর করবে।
৫। যেসব অঙ্কে ফলাফল আসে সেগুলোর ক্ষেত্রে অবশ্যই অঙ্কের শেষে উত্তর লিখতে হবে।
৬। হিসাববিজ্ঞান পরীক্ষায় কোনো একটি অঙ্ক না মিললে হতাশ হবে না। বরং পরের অঙ্কটি ভালো করে করার জন্য মনোযোগী হবে। মনে রাখবে পরীক্ষার হলে মনোবল ও আত্মবিশ্বাস একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।
মান বণ্টন : সৃজনশীল প্রশ্ন - ৭০ নম্বর
(১) মোট ১১টি প্রশ্ন থাকবে। তার মধ্যে ৭টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। প্রত্যেকটি প্রশ্নের পূর্ণমান ১০ (দশ) নম্বর। (২) ‘ক’ অংশে আর্থিক বিবরণীর ২টি সৃজনশীল প্রশ্ন থাকবে এবং খ অংশে সিলেবাসের বাকি অংশ থেকে ৯টি প্রশ্ন থাকবে।
(৩) ‘ক’ অংশের ২টি প্রশ্ন বাধ্যতামূলক এবং খ অংশ থেকে ৫টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে।
হিসাববিজ্ঞান বিষয়ের সব সৃজনশীল প্রশ্ন গাণিতিক কিংবা প্রায়োগিক সমস্যা সমাধান সংক্রান্ত হবে। প্রতিটি প্রশ্নে ক, খ ও গ ৩টি অংশ থাকবে। প্রশ্নের ‘ক’ অংশ সহজ, ‘খ’ অংশ মধ্যম এবং ‘গ’ অংশ কঠিন মানের হবে।
বহুনির্বাচনী প্রশ্ন - ৩০ নম্বর: মোট ৩০টি প্রশ্ন থাকবে। সব প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। প্রত্যেকটি প্রশ্নের মান ০১ (এক) নম্বর। জ্ঞান স্তর ২৫-৩৫%, অনুধাবন স্তর ২৫-৩৫%, প্রয়োগ স্তর ১৫-২৫%, উচ্চতর দক্ষতা স্তর ১৫-২৫%। বহুনির্বাচনী প্রশ্নপত্রে জ্ঞান ও অনুধাবন স্তরের ৬০ শতাংশ এবং প্রয়োগ ও উচ্চতর স্তরের ৪০ শতাংশ প্রশ্ন অন্তর্ভুক্ত থাকবে। হিসাববিজ্ঞানের বহুনির্বাচনী প্রশ্নের জটিল গাণিতিক সমস্যা সমাধানমূলক প্রশ্ন ব্যবহার না করে তাত্ত্বিক বিষয় জানার জন্য প্রশ্ন করা হবে।

মুহাম্মদ আরিফুর রহমান
সহকারী অধ্যাপক, উদয়ন স্কুল ও কলেজ, ঢাকা।