গুরুত্বপূর্ণ সৃজনশীল প্রশ্নোত্তর

ঢাকা, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

জেএসসি

গুরুত্বপূর্ণ সৃজনশীল প্রশ্নোত্তর

বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়

সুধীর বরণ মাঝি ২:৫৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ০৯, ২০১৯

print
গুরুত্বপূর্ণ সৃজনশীল প্রশ্নোত্তর


উদ্দীপক : সংস্থা-১ : প্যারিসে সদর দফতর। বর্তমান সদস্য সংখ্যা ১৮৯টি রাষ্ট্র?
সংস্থা-২ : ১৯৪৮ সালের ৭ এপ্রিল গঠিত হয় । জেনেভা শহরে সদর দফতর অবস্থিত।
ক) UNFPA কীভাবে কার্যক্রম পরিচালনা করে?
খ) বাংলাদেশে UNDP-এর কার্যক্রম ব্যাখ্যা কর?
গ) বাংলাদেশে ‘সংস্থা-২’-এর কার্যক্রম ব্যাখ্যা কর।
ঘ) ‘সংস্থা-১ বাংলাদেশের ঐতিহ্য সংরক্ষণে ভূমিকা রাখে’ বিশ্লেষণ কর।
ক) উত্তর : UNFPA বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে আঞ্চলিক অফিসের মাধ্যমে কার্যক্রম পরিচালনা করে।

খ) উত্তর : UNDP ১৯৬৫ সালে গঠিত হয়। বিশ্ব থেকে দারিদ্র্য দূরীকরণ ও উন্নয়নশীল দেশগুলোর উন্নয়নে সহায়তা করা UNDP-র প্রধান কাজ। ১৯৭২ সাল থেকে বাংলাদেশের উন্নয়নে UNDP সহায়তা করে আসছে। বাংলাদেশ থেকে দারিদ্র্য দূরীকরণ, গ্রামাঞ্চলে আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন, নারী উন্নয়ন, সুশাসন ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা, পরিবেশের উন্নয়ন ইত্যাদি বিভিন্ন ক্ষেত্রে সাহায্য ও সহযোগিতা করছে।

গ) উত্তর : সংস্থা-২ হলো বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। বাংলাদেশের জনস্বাস্থ্য উন্নয়নে সংস্থাটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জনস্বাস্থ্য রক্ষায় একটি সমন্বয়কারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করে। ১৯৪৮ সালের ৭ এপ্রিল এটি গঠিত হয় এবং সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় এর সদর দফতর। বাংলাদেশেও এই সংস্থাটি নানা কার্যক্রম পরিচালনা করছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন সংক্রামক ব্যাধি দূর করতে সাহায্য করছে। শিশুদের ৬টি ঘাতক রোগ (হাম, ডিপথেরিয়া, টিটেনাস, যক্ষ্মা, পোলিও ও হুপিংকাশি) প্রতিরোধেও সংস্থাটি অবদান রাখছে। এছাড়া দেশ থেকে ম্যালেরিয়া দূরীকরণ, বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা, পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থার উন্নতি, মাতৃ ও শিশুমৃত্যুর হার কমানোর জন্যও এই সংস্থাটি কাজ করছে। তাছাড়া কলেরা ও ডাইরিয়া নিয়ন্ত্রণেও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অবদান উল্লেখযোগ্য। সুতরাং বলা যায়, বাংলাদেশে জনস্বাস্থ্য রক্ষায় সংস্থাটির অবদান অনস্বীকার্য।

ঘ) উত্তর : সংস্থা-১ জাতিসংঘের ইউনেস্কো সংস্থাটিকে নির্দেশ করে। ইউনেস্কোর প্রধান লক্ষ্য হলো শিক্ষা, বিজ্ঞান, সংস্কৃতি ও যোগাযোগ ক্ষেত্রে বিভিন্ন জাতির মধ্যে সহযোগিতা সৃষ্টির মাধ্যমে বিশ্বে শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা। বাংলাদেশ ১৯৭২ সালের ২৭ অক্টোবর ইউনেস্কোতে যোগ দেয়। ১৯৭৩ সালে বাংলাদেশ সরকার ইউনেস্কো কমিশন গঠন করে। সদস্যপদ লাভ করার পর থেকেই সংস্থাটি বাংলাদেশে নানা ধরনের কার্যক্রম পরিচালনা করছে। তবে বাংলাদেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে সংরক্ষণে সংস্থাটির ভূমিকা অনন্য। ইউনেস্কোর উদ্যোগেই আমাদের ভাষা শহীদ দিবস ২১ ফেব্রুয়ারি ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ হিসেবে সারা বিশ্বে স্বীকৃতি লাভ করেছে এবং ৭ মার্চের বঙ্গবন্ধুর ভাষণকে ঐতিহাসিক ভাষণ হিসেবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দিয়েছে। এছাড়া বাংলাদেশের প্রাকৃতিক ঐতিহ্য সুন্দরবন ও বিভিন্ন সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য (বাগেরহাটের ষাটগম্বুজ মসজিদ ও নওগাঁর পাহাড়পুর বা সোমপুর বৌদ্ধবিহার) ইত্যাদি সংরক্ষণেও সংস্থাটি সহায়তা করছে। উপরের আলোচনা থেকে বলতে পারি, ইউনেস্কো বাংলাদেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে সংরক্ষণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

সুধীর বরণ মাঝি, শিক্ষক
হাইমচর সরকারি মহাবিদ্যালয় চাঁদপুর।