গুরুত্বপূর্ণ সৃজনশীল প্রশ্ন

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৯ | ৮ কার্তিক ১৪২৬

এসএসসি

গুরুত্বপূর্ণ সৃজনশীল প্রশ্ন

বাংলা প্রথমপত্র

আবদুর রহমান ১:৫২ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ০১, ২০১৯

print
গুরুত্বপূর্ণ সৃজনশীল প্রশ্ন

বই পড়া : প্রমথ চৌধুরী
নিচের উদ্দীপকটি পড় এবং প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও:
তামিমকে মা পাঠ্যপুস্তকের বাইরে সাহিত্যের কিছু বই পড়ার পরামর্শ দেন। তামিমের বই পড়ার ইচ্ছা থাকলেও বই পাবে কোথায়। মা তাকে বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রের ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরিতে যোগাযোগ করতে বলে। সেখানে সাহিত্যের নানারকম বই আছে। যা তামিম পছন্দমতো বাছাই করে নিয়ে পড়তে পারবে। এতে তামিম অনেক আনন্দ পাবে। ফলে তার সৃজনশীলতা বৃদ্ধি পাবে।

ক) প্রমথ চৌধুরীর ছদ্মনাম কী?
খ) গণতন্ত্র বলতে কী বোঝায়?
গ) প্রমথ চৌধুরীর ‘বই পড়া’ প্রবন্ধের সঙ্গে উদ্দীপকের বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের সাদৃশ্য নির্ণয় কর।
ঘ) ‘আমরা যত বেশি লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠা করব, দেশের তত বেশি উপকার হবে’- মন্তব্যটির যৌক্তিক বিশ্লেষণ কর।
উত্তর (ক) প্রমথ চৌধুরীর ছদ্মনাম বীরবল।
উত্তর (খ) ডেমোক্রেসি বা গণতন্ত্র বলতে জনগণের মতামত অনুযায়ী পরিচালিত শাসন ব্যবস্থাকে বোঝায়। গণতন্ত্রের ইংরেজি প্রতিশব্দ Democracy যা গ্রিক শব্দ Demos এবং Kartos থেকে এসেছে। যার অর্থ যথাক্রমে জনগণ ও ক্ষমতা। তাই উৎপত্তি অনুসারে গণতন্ত্র হলো জনগণের ইচ্ছা অনুযায়ী দেশ শাসন। আমেরিকার সাবেক প্রেসিডেন্ট আব্রাহাম লিংকনের মতে, ‘গণতন্ত্র হলো জনগণের জন্য, জনগণের দ্বারা নির্বাচিত, জনগণের সরকার’।

উত্তর (গ) গ্রন্থ পাঠে মানুষের উৎসাহিত করার ক্ষেত্রে প্রমথ চৌধুরীর ‘বই পড়া’ প্রবন্ধের উদ্দেশ্যের সঙ্গে উদ্দীপকের বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের সাদৃশ্য রয়েছে। মানবসভ্যতার শ্রেষ্ঠ সম্পদ বই। বই পড়ার মাধ্যমে সব আনন্দ লাভ করা সম্ভব। কিন্তু বর্তমানে আমাদের ত্রুটিপূর্ণ শিক্ষাব্যবস্থার কারণে মানুষ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে পূর্ণাঙ্গ জ্ঞান অর্জন করতে পারছে না। তাই বেশি বেশি বই পড়ে স্বশিক্ষিত হওয়া প্রয়োজন। কারণ সুশিক্ষিত লোক মাত্রই স্বশিক্ষিত। যথার্থ শিক্ষিত হতে হলে মনের প্রসার দরকার, তার জন্য আমাদের বই পড়ার অভ্যাস বাড়াতে হবে। ‘বই পড়া’ প্রবন্ধের লেখকের উদ্দেশ্যই হচ্ছে মানুষকে মানসম্পন্ন গ্রন্থ পাঠে উৎসাহিত করে তাদের স্বশিক্ষিত রূপে গড়ে তোলা।

আপরদিকে উদ্দীপকের বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র মনে করে বই-ই মানুষকে মুক্তির পথ দেখাবে। তাই তারা ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরির দ্বারা স্কুল-কলেজ মানবসভ্যতার শ্রেষ্ঠ বইগুলো পড়িয়ে তাদের চেতনাজগৎ বিকশিত করে।

তাদের উদ্দেশ্য বর্তমান প্রজন্মের মধ্যে বই পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলে তাদের হৃদয়কে সজীব, উৎকর্ষময় আলোকিত করে সমৃদ্ধ উন্নত মূল্যবোধ সম্পন্ন হিসেবে গড়ে তোলা। তাই বলা যায় উদ্দীপকের বিশ^সাহিত্য কেন্দ্রের উদ্দেশ্য ও ‘বই পড়া’ প্রবন্ধের লেখক উভয়ই গ্রন্থ পাঠে মানুষকে উৎসাহিত করে মুক্তির আনন্দ দিতে চান।

উত্তর (ঘ) প্রশ্নোক্ত মন্তব্যটি উদ্দীপকের ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরি মূল উদ্দেশ্যকে স্পর্শ করে। প্রতিটি মানুষকে তার স্বীয় শক্তি ও রুচি অনুসারে নিজের চেষ্টায় জ্ঞানের রাজ্যে নিয়ে যেতে পারে বই। আর মানুষের এই বই পড়ার সর্বশ্রেষ্ঠ স্থান হলো লাইব্রেরি।

কারণ এখানে মানুষ স্বেচ্ছায় স্বাচ্ছন্দ্যচিত্তে স্বশিক্ষিত হওয়ার সুযোগ পায়। মানুষকে যথার্থ শিক্ষিত করে গড়ে তোলার জন্য মনের প্রসার দরকার। তার জন্য সবার প্রয়োজন বই পড়া। এর জন্য প্রয়োজন লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠা করা।

অপরদিকে উদ্দীপকের ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরি বই পড়ে মানুষ নিজেকে পূর্ণাঙ্গ রূপে গড়ে তুলতে পারে। সবার মধ্যে বই পড়ার অভ্যাস গড়ে তোলা প্রয়োজন। বই পড়ে হৃদয়কে আলোকিত করা সম্ভব। এর জন্য সবার আগে প্রয়োজন লাইব্রেরি। কারণ লাইব্রেরিতে মানুষ সব ধরনের বই আনন্দের সঙ্গে পাঠ করার সুযোগ পায়। তাই বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র হাজির হয় পাঠকের দোরগোড়ায়।

বই পারে আমাদের পূর্ণাঙ্গরূপে গড়ে তুলতে। উদ্দীপকের ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরি ও ‘বই পড়া’ প্রবন্ধের বক্তব্যও তাই।

সে জন্য মানুষের মধ্যে জ্ঞানের আলো ছড়াতে লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠা করা আবশ্যক। তাই এ কথা বলা যায়, নগরের পাশাপাশি গ্রামেও লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠা করে জ্ঞানের আলো বিকশিত করা আমাদের কর্তব্য।

আবদুর রহমান
সহকারী অধ্যাপক, একেএম রহমত উল্লাহ কলেজ, ঢাকা।