অজ্ঞাতনামা লাশ

ঢাকা, বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ | ৪ পৌষ ১৪২৫

অজ্ঞাতনামা লাশ

নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন

সম্পাদকীয়-১ ১০:০৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২২, ২০১৮

print
অজ্ঞাতনামা লাশ

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে সম্প্রতি ধরে নিয়ে যাওয়ার পর সাতজনের লাশ পাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। একটি স্বাধীন দেশে এভাবে মানুষ হত্যা মোটেও সমর্থন করা যায় না। পত্রিকায় প্রকাশিত খবর থেকে জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ ও রাজধানী ঢাকায় গত রোববার সাত যুবকের লাশ পাওয়া গেছে। নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে একসঙ্গে চারজন, রূপগঞ্জে একজন এবং রাজধানী ঢাকার দিয়াবাড়িতে দুজনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এর মধ্যে নারায়ণগঞ্জ থেকে উদ্ধার হওয়া লাশগুলো গুলিবিদ্ধ ও মাথা থেঁতলানো ছিল।

তাদের প্রত্যেকের বয়স ৩০ থেকে ৪০-এর মধ্যে। প্রাথমিক ময়নাতদন্তে জানা গেছে আড়াইহাজারে পাওয়া চার যুবককে একই শটগানের গুলি দিয়ে মারা হয়েছে। তাদের মাথায় শটগানের গুলি পাওয়া গেছে।

অপরদিকে দিয়াবাড়ি থেকে উদ্ধার হওয়া লাশগুলো সম্পর্কে পুলিশ বলেছে নিহত ব্যক্তিদের কয়েকদিন আগে হত্যা করে কাশবনে ফেলে রাখা হয়েছে। লাশে পচন ধরেছে। রাজউকের উত্তরা আবাসিক এলাকার ১৬ নম্বর সেক্টরের ফাঁকা জায়গা থেকে লাশ দুটি উদ্ধার করা হয়।

আমরা অতীতেও এভাবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে ধরে নিয়ে যাওয়ার পর লাশ পাওয়ার ঘটনা দেখেছি। তখন এভাবে হত্যা বন্ধের ক্ষেত্রে একটি পদক্ষেপ হিসেবে সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সাদা পোশাকে কাউকে গ্রেপ্তার না করার বিষয়ে নির্দেশনা জারি করেছিল। কিন্তু এ নির্দেশ তখন মানা হলেও পরবর্তীতে মানা হচ্ছে কি না সেটি তদারকি করা এখন সংশ্লিষ্টদের জরুরি কর্তব্য হয়ে দাঁড়িয়েছে। কারণ এমন ঘটনার ফলে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে ও বিরোধীরা সরকারকে খুব সহজেই দোষারোপ করতে পারছে।

এদিকে ভুয়া ডিবি পুলিশ গ্রেপ্তারের ঘটনাও নিয়মিত ঘটছে। তাই এ ক্ষেত্রে সরকারের নাম ব্যবহার করে কোনো স্বার্থান্বেষী মহল সরকারকে বিপাকে ফেলতে এমনটি করছে কী না, সেটি সরকারকে কঠোরভাবে যাচাই করে দেখতে হবে। নইলে নির্বাচনের সময় ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে সরকারকে আরও কঠিন পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যেতে হতে পারে।

তাই এভাবে অজ্ঞাতনামা লাশের বিষয়টি সরকারের মোটেও অবহেলা করার সুযোগ নেই। কোনো মানুষ এভাবে লাশ হয়ে রাস্তার পাশে পড়ে থাকবে, এটা আমাদেরও কাম্য না। আমরা প্রত্যাশা করি, সরকার অজ্ঞাতনামা লাশের বিষয়ে যথাযথ তদন্ত করবে এবং এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি বন্ধে প্রকৃত দোষীদের শনাক্ত করে তাদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে।