পানির দাম বৃদ্ধি সুবিবেচনাপ্রসূত হবে না

ঢাকা, শুক্রবার, ৩ এপ্রিল ২০২০ | ২০ চৈত্র ১৪২৬

পানির দাম বৃদ্ধি সুবিবেচনাপ্রসূত হবে না

সম্পাদকীয় ৯:৪৮ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০২০

print
পানির দাম বৃদ্ধি সুবিবেচনাপ্রসূত হবে না

কথায় আছে, পানির অপর নাম জীবন। শহর জীবনে এ উক্তি আরও গভীরভাবে প্রযোজ্য। পুকুল, নদী, খাল তথা জলাশয়হীন ইট-পাথরের নগরীতে ওয়াসার পানিই একমাত্র ভরসা। সেই পানিও নগরবাসীকে কিনে নিতে হয় ওয়াসা থেকে। ওয়াসার পানির বিরুদ্ধে নানা রকম অভিযোগ থাকলেও নগরবাসী সয়ে নিয়েছে সব। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে যখন নগরবাসীর জীবনে ত্রাহি অবস্থা এ সময় মিলল আরেকটি দুসংবাদের আলামত। গতকাল খোলা কাগজে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, রাজধানীতে পানির দাম দ্বিগুণেরও বেশি করার জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠিয়েছে ঢাকা ওয়াসা। পানির দাম বাড়ানোর এ প্রস্তাব ঢাকা ওয়াসার আইনের পুরোপুরি লঙ্ঘন হলেও তা অনুমোদন করাতে মরিয়া সংস্থার চেয়ারম্যান তাকসিম এ খান।

ওয়াসা সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র বলেছে, ওয়াসার বিদেশি ঋণ পরিশোধ করতেই পানির দাম বাড়ানোর চেষ্টা চলছে। যদিও স্থানীয় সরকারমন্ত্রী সাফ জানিয়েছেন, পানির দাম বাড়ানোর প্রস্তাব আসতে পারে, এ সরকার জনবান্ধব সরকার, যা করবে ভেবেচিন্তে করবে। এদিকে ঢাকা ওয়াসা ভূগর্ভস্থ পানি ব্যবহার করবে না মর্মে বিদেশ থেকে ঋণ নিয়ে মেগা প্রকল্পের মাধ্যমে নদী থেকে পাইপের সাহায্যে পানি এনে নগরবাসীকে সেবা দেওয়ার কথা। কিন্তু বাস্তবে করা হচ্ছে উল্টো। বিদেশি ঋণের টাকায় পানি শোধনসহ বিভিন্ন প্রকল্পের উন্নয়ন কাজ করা হচ্ছে। এ ঋণের টাকার ভার নগরীতে বসবাসরত জনগণের কাঁধে চাপানো হচ্ছে।

গত ১৬ জানুয়ারি স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবরে ঢাকা ওয়াসার বাণিজ্যিক ও আবাসিক পানি অভিকর বাড়ানোর বিষয় ঢাকা ওয়াসার এমডি তাকসিম এ খান স্বাক্ষরিত একটি আবেদন করা হয়েছে। বর্তমানে ওয়াসার আইনের ২২নং ধারায় ১০০০ হাজার লিটার আবাসিক পানি অভিকর ১১.৫৭ টাকার স্থলে এক লাফে ২০ টাকা এবং বাণিজ্যিক ব্যবহারে অভিকর ৩৭.০৪ টাকার স্থলে ৬৫ টাকা নির্ধারণের জন্য মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন চেয়েছে সংস্থাটি।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, হুট করে এক ধাক্কায় পানির দাম দ্বিগুণ করা হলে মানুষের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দেবে। পানির দাম বাড়ানো হলে সে অজুহাতে ঘরভাড়াও বাড়াবেন বাড়িওয়ালারা যা নগরবাসীর জীবনকে দুর্বিসহ করে তুলবে। আমরা মনে করি, ওয়াসার পানির মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্তটি সুবিবেচনাপ্রসূত নয়। বাস্তবতার নিরিখে এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট আরও ভাববেন বলেই প্রত্যাশা।