উৎসবমুখর নির্বাচনের প্রত্যাশা

ঢাকা, বুধবার, ১ এপ্রিল ২০২০ | ১৮ চৈত্র ১৪২৬

উৎসবমুখর নির্বাচনের প্রত্যাশা

সম্পাদকীয়-১ ৯:০৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৮, ২০২০

print
উৎসবমুখর নির্বাচনের প্রত্যাশা

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রচারণা একেবারে শেষের দিকে। প্রায় ২০ দিন ধরে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। এবারের নির্বাচনী প্রচারণা প্রকৃত অর্থেই রাজধানীতে একটি নির্বাচনী আবহ ও পরিবেশ সৃষ্টি করেছে বলে অনেকেই মনে করছেন। মেয়র প্রার্থীরা ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন, দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতি, কাউন্সিলর প্রার্থীরাও ভোটারদের খুশি করতে এবং তাদের মনজয়ে সব ধরনের চেষ্টা চালাচ্ছেন।

এবারের নির্বাচনী প্রচারণা দুএকটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া বেশ নির্ঝঞ্ঝাট হয়েছে। তবে যে ঘটনাগুলো ঘটেছে সে ব্যাপারে ইসির কাছ থেকে যে ধরনের পদক্ষেপ আসা উচিত ছিল তা আসেনি, তাদের কথাবার্তায়ও ছিল না তেমন কোনো কঠোর বার্তা বরং এসব হামলার ব্যাপারে হামলার শিকার প্রার্থী ও তাদের রাজনৈতিক দল যথেষ্ট সহিষ্ণুতার পরিচয় দিয়েছে, তারা এ নিয়ে পানি ঘোলা করার চেষ্টা করেননি, আবার তাদের প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক দলও এসব হামলাকে কোনো উসকানি দেয়নি বা প্রশ্রয় দেয়নি বরং তাদের অবস্থান ও বক্তব্য ছিল এ ধরনের হামলার বিপক্ষে। আমাদের রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে এটি একটি ইতিবাচক অগ্রগতি।

আমরা মনে করি, ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রচারণার আর যে সময়টুকু রয়েছে তা আরও বেশি নির্ঝঞ্ঝাট, নিরাপদ ও উৎসবমুখর হবে। ভোটকে উৎসব মনে করে দেশের মানুষ। নানা সময় সে উৎসবে ছেদ পড়েছে, তবে দেশের মানুষের ভেতরে ভোট দেওয়ার যে আকাক্সক্ষা তা মোটেও কমেনি, বিষয়টি আরও স্পষ্ট হয়েছে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের নির্বাচনী প্রচারণাকালে।

ভোটারসহ সর্বস্তরের মানুষ সব দলের প্রার্থীদেরই স্বাগত জানিয়েছেন, তাদের সঙ্গে স্বতঃস্ফূর্তভাবে কথা বলেছেন, নিজেদের আশা, আকাক্সক্ষা আর প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন, দাবি-দাওয়া তুলে ধরেছেন। সবমিলিয়ে ভোটার-প্রার্থী মিথষ্ক্রিয়া এবার যথেষ্ট হয়েছে যা একটি গ্রহণযোগ্য ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের ক্ষেত্রে খুবই প্রয়োজন।

আমরা আশা করি, নির্বাচনের এ পরিবেশ ভোটের দিনটিকে প্রকৃত অর্থেই একটি ভোটারের দিনে পরিণত করবে। জনতার রায়েই নির্বাচিত হোক জনপ্রতিনিধি। নির্বাচন কমিশন, সরকার, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী সবপ্রার্থী আর সংশ্লিষ্ট রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে আমাদের প্রত্যাশা নির্বাচনী প্রচারণার মাধ্যমে দেশে যে উৎসবের পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে, তাকে ভোট উৎসব আর ভোটারের উৎসবে রূপান্তরিত করুন।