ডেঙ্গুর প্রকোপ দূর হয়নি

ঢাকা, রবিবার, ৯ আগস্ট ২০২০ | ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭

ডেঙ্গুর প্রকোপ দূর হয়নি

সতর্কতার বিকল্প নেই

সম্পাদকীয় ৯:৪০ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০৩, ২০১৯

print
ডেঙ্গুর প্রকোপ দূর হয়নি

চলতি বছর ডেঙ্গু মহামারী আকার ধারণ করে অতীতের সব রেকর্ড ভঙ্গ করেছে। ডেঙ্গুজ্বরের প্রভাবে জনজীবনে যে ভোগান্তি নেমে এসেছিল তা জনমনে নিদারুণ আতঙ্ক ছড়িয়েছে। এর প্রভাব এখনো থামেনি, এমনিতেই শীতকালে মশার আক্রমণ বেশি থাকে তার ওপর ডেঙ্গু আতঙ্ক না কমায় জনগণের মাঝে এখনো স্বাভাবিক স্বস্তি নেমে আসেনি। পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ থেকে জানা যায়, সারা দেশে ডেঙ্গুর প্রভাব ধীরে ধীরে কমলেও এখনো আক্রান্ত হচ্ছে সাধারণ মানুষ।

২৪ ঘণ্টায় (১ ডিসেম্বর সকাল ৮টা থেকে গত সোমবার সকাল ৮টা) সারা দেশের সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ৮১ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী ভর্তি হয়েছেন। স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশনস সেন্টারের সহকারী পরিচালক ডা. আয়েশা আক্তার স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সারা দেশের সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে গত রোববার সকাল ৮টা থেকে সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় মোট ৮১ জন নতুন ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে রাজধানী ঢাকার হাসপাতালে ৪৫ জন ও ঢাকার বাইরের বিভিন্ন হাসপাতালে ৩৬ জন ভর্তি হয়েছেন।

হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশনস সেন্টারের তথ্য মতে, এ বছর ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা এক লাখ ছাড়িয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ৮১ জনসহ সোমবার পর্যন্ত ১ লাখ ২৮২ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন ৯৯ হাজার ৬২৪ জন, চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৩৯৪ জন। আর ডেঙ্গু সন্দেহে ২৬৪টি মৃত্যুর মধ্যে ২০৪টি তথ্য পর্যালোচনা করে ১২৯ জনের এই রোগে মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করেছে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইসিডিআর)।

আমরা ডেঙ্গু জ্বরের প্রকোপ থেকে রেহাই চাই, এজন্য সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপের আলোকে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে আমরা নাগরিক হিসেবে সেটিই প্রত্যাশা করি। এক্ষেত্রে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও সিটি করপোরেশন ও পৌরসভাগুলো তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করবে এবং মশা যেন না জন্মাতে না পারে সেরকম সুস্থ পরিবেশ নিশ্চিত করতে প্রশাসনের পাশাপাশি নাগরিকরাও নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করে নাগরিক দায়িত্ব পালন করবেন, এটিই আমাদের কাম্য।