রাজধানীতে জোড়া খুন

ঢাকা, শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯ | ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

রাজধানীতে জোড়া খুন

দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হোক

সম্পাদকীয়-১ ৮:৩৭ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০৩, ২০১৯

print
রাজধানীতে জোড়া খুন

নিজ বাসগৃহে আঁততায়ীর হাতে অপমৃত্যুর ঘটনা আমাদের জন্য আতঙ্কের। কেননা ব্যস্ত নগরে সারা দিন শেষে ফ্ল্যাটবাড়িতে যেখানে নিশ্চিন্তে বাকি সময়টুকু কাটার কথা, সেখানে যদি খুনির নির্মম আঘাতে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়তে হয় এর চেয়ে নিষ্ঠুর সময় আর কিছুই হতে পারে না। অথচ মানুষ হয়ে মানুষকে অন্যায়ভাবে মেরে ফেলার এ ধারা আজও অব্যাহতভাবে চলছে।

পত্রিকায় প্রকাশ, রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকায় শিল্পপতি মনির উদ্দিনের বাসা থেকে গত শুক্রবার দুই নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। লাশ দুটির শরীরে ছুরির একাধিক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

হত্যার রহস্য উদঘাটনে পুলিশ ইতোমধ্যে বেশ কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে, জব্দ করা হয়েছে বাসার সিসি ক্যামেরার ফুটেজ। কিন্তু কে বা কারা হত্যার সঙ্গে জড়িত তা এখনো জানা যায়নি। তবে সন্দেহের তীর নতুন গৃহকর্মীর দিকে। তাকে এখনো আটক করা সম্ভব হয়নি। পুলিশ তাকে আটকের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। নতুন ওই গৃহকর্মীকে বাসায় এনেছিলেন শিল্পপতি মনির উদ্দিনের পিএস বাচ্চু। তাকে পুলিশ আটক করেছে। রাজধানীর অভিজাত এলাকা ধানমন্ডিতে নিজ বাসায় গৃহকর্মীসহ ষাটোর্ধ্ব নারীর এ খুনের ঘটনাটি দেশজুড়ে বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।

হত্যাটি পরিকল্পিত নাকি বাসায় ডাকাতি করতে এসে কেউ হত্যা করেছে তা এখনো নিশ্চিত করতে পারেনি পুলিশ। তবে রহস্য উদঘাটনে পুলিশ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। হত্যার শিকার দুই নারীর লাশের ময়নাতদন্ত ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। এতে দেখা যায় গৃহকর্মীকে গলা কেটে হত্যা করা হয় আর গৃহকর্ত্রী মারা যান ছুরির আঘাতে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে। পুলিশ ও সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

পুলিশ জানায়, জোড়া খুনের ঘটনাটি ঘটে শিল্পপতি মনির উদ্দিনের বাসায়। মনির উদ্দিন তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএর একজন পরিচালক। আফরোজা বেগম সম্পর্কে তার শাশুড়ি। পুলিশ আরও জানায়, খুনের ঘটনার পর আশপাশের লোকজনের কাছ থেকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে ফ্ল্যাটের দরজা ভেঙে ভেতরে ঢোকে পুলিশ। ফ্ল্যাটের দুটি আলাদা কক্ষে দুজনের লাশ পাওয়া গেছে।

ঘটনার তদন্ত কর্মকর্তা বলেছেন, ‘আমরা ধারণা করছি, এটা একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ডে। যদিও ওই বাসায় গিয়ে আমরা আলমারি ও ড্রয়ার ভাঙা অবস্থায় পেয়েছি। ডাকাতির কারণে দুজনকে গলা কেটে হত্যার বিষয়টি চিন্তার। সে জন্য আমরা পুরো বিষয়টি আরও ভালোভাবে খতিয়ে দেখার চেষ্টার করছি।’ জোড়া খুনের ঘটনায় আমরা মর্মাহত, ফ্ল্যাটবাড়িতে এ ধরনের হত্যাকাণ্ডের পুনরাবৃত্তি রোধে প্রকৃত অপরাধীদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান করা হোক, আমরা সরকারের কাছে সে প্রত্যাশা জানাই।