চামড়া শিল্পনগরীর প্রস্তুতি

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯ | ৩ কার্তিক ১৪২৬

চামড়া শিল্পনগরীর প্রস্তুতি

এলডব্লিউজি অর্জনের পথে দেশ

সম্পাদকীয়-১ ১০:১০ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ০৯, ২০১৯

print
চামড়া শিল্পনগরীর প্রস্তুতি

চামড়া শিল্প নিয়ে চলতি বছর আমাদের চিন্তার অন্ত ছিল না। বিশেষ করে এবার কোরবানির ঈদে মধ্যস্বত্বভোগীদের দৌরাত্ম্যে চামড়া ক্রয় নিয়ে যে নৈরাজ্য তৈরি হয়েছে, তা চামড়া শিল্পের উন্নতির জন্য খুবই উদ্বেগজনক। অন্যদিকে সাভারে চামড়া শিল্পনগরী স্থাপনের যে প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল সেটি সফল না হওয়াটাও নেতিবাচক একটি দিক ছিল। তবে আশার কথা হচ্ছে চামড়া শিল্পের ট্যানারি সাভারে যথাসময়ে স্থানান্তরের প্রক্রিয়াটি এখন ঠিক পথেই আছে।

পত্রিকায় প্রকাশ, লেদার ওয়ার্কিং গ্রুপের (এলডব্লিউজি) সনদ অর্জনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে সাভার চামড়া শিল্পনগরী। শিল্প মন্ত্রণালয় আশা করছে, আগামী বছরের শুরুর দিকে চামড়া শিল্পের জন্য বাংলাদেশ এলডব্লিউজি সনদ অর্জনে সক্ষম হবে। সাভার (ঢাকা) চামড়া শিল্প নগরীর কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগারসহ (সিইটিপি) এ প্রকল্পের সার্বিক বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় এ কথা জানানো হয়। প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান বলেছেন, চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে সাভার (ঢাকা) চামড়া শিল্পনগরীর কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগারসহ (সিইটিপি) অন্য সব কাজ সম্পন্ন হবে। এ শিল্পনগরীর সব কাজ শেষ করার পর লেদার ওয়ার্কিং গ্রুপের (এলডব্লিউজি) সনদ অর্জনের লক্ষ্যে নিরীক্ষার আমন্ত্রণ জানানো হবে। যেভাবে চামড়া শিল্প নগরীর কাজ এগোচ্ছে তাতে আমরা সন্তুষ্ট।

তিনি বলেন, আমরা যদি এলডব্লিউজি সনদটা পেয়ে যাই, তাহলে আমাদের চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য রপ্তানিতে যে সমস্যা হচ্ছে সে সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে এবং আশা করি আমরা তখন এ খাত থেকে বড় ধরনের রপ্তানি করতে পারব। এসব ব্যাপারে আমরা নির্দেশনা দিয়েছি এবং এটা রিভিউ করার জন্য আমরা আবার মন্ত্রীর নেতৃত্বে ছয় সপ্তাহ পরে এসে সরেজমিন দেখব সিদ্ধান্তগুলো কতদূর বাস্তবায়িত হয়েছে। আমি মনে করি, আমরা ঠিক পথেই আছি এবং আমরা আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে সনদটা পাওয়ার পথে অনেক দূর এগিয়ে যাব। এ ছাড়াও সভায় চামড়া শিল্পনগরীর উন্নয়ন কাজের সর্বশেষ অবস্থা বিস্তারিত মূল্যায়ন করা হয়। এ সময় জানানো হয়, ইতিমধ্যে কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগারের (সিইটিপি) কাজ শতকরা ৯৮ ভাগ সম্পন্ন হয়েছে। বর্তমানে সিইটিপির চারটি মডিউল চালু রয়েছে এবং এগুলো বর্জ্য পরিশোধনের কাজ করছে।

সভায় এলডব্লিউজি সনদ অর্জনের লক্ষ্যে এখন থেকে অডিট পরিচালনার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এ অডিটের ফলাফলের ভিত্তিতে বিভিন্ন সূচকে ধারাবাহিক গুণগত পরিবর্তনের জন্য সময়াবদ্ধ কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের নির্দেশনা দেওয়া হয়। এতে কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য বাই-প্রোডাক্ট উৎপাদনকারীদের অনুকূলে জায়গা বরাদ্দ দেওয়ারও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। আমরা আশা করি সরকারের গঠনমূলক সিদ্ধান্তে চামড়া শিল্প যথাযথভাবে উন্নতির দিকে ধাবিত হতে সক্ষম হবে।