বিদেশে হত্যার শিকার বাংলাদেশি

ঢাকা, রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯ | ৫ কার্তিক ১৪২৬

বিদেশে হত্যার শিকার বাংলাদেশি

কূটনৈতিক তৎপরতা জোরদার করুন

সম্পাদকীয় ৯:০০ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ০৩, ২০১৯

print
বিদেশে হত্যার শিকার বাংলাদেশি

দক্ষিণ আফ্রিকায় বিগত চার বছরে ৪০০ বাংলাদেশি খুন হওয়ার বিষয়টি ভীষণ উদ্বেগজনক। হিসাব অনুযায়ী ওই দেশে প্রতি বছর একশ’ মানুষ খুন হচ্ছে। ব্যবসা ও টাকা নিয়ে বিরোধ, বিয়েবহির্ভূত সম্পর্ক, ব্যক্তিগত বিবাদ ইত্যাদি কারণেই বেশিরভাগ খুনের ঘটনা ঘটে। তবে, দক্ষিণ আফিকায় নিযুক্ত বাংলাদেশি কর্মকর্তা ৪০০ খুন হওয়ার তথ্য দিলেও এই সংখ্যাটি আরও বেশি। কেননা, দু-চারদিন পরপরই সেদেশে বাংলাদেশি খুনের ঘটনা ঘটছে। এই পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হলে দুই দেশের মধ্যে কূটনৈতিক তৎপরতা বাড়ানোর বিকল্প নেই।

খোলা কাগজে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশের দূতাবাস জানিয়েছে, চলতি বছর এখন পর্যন্ত ৮৮ জন বাংলাদেশির লাশ দেশে পাঠানো হয়েছে। আর ২০১৫ সালের জানুয়ারি থেকে বর্তমান পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা মোট ৪৫২। দক্ষিণ আফ্রিকায় যারা মারা গেছেন তাদের প্রায় ৯৫ শতাংশই হত্যার শিকার হয়েছেন। অনেককেই তাদের দোকানে গুলি করা হয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে দক্ষিণ আফ্রিকায় বিদেশি শ্রমিকদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। বাংলাদেশিদের দোকানেও হামলা হয়েছে। এসব হামলা অনাকাক্সিক্ষত হলেও অস্বীকার করার উপায় নেই, নিরাপত্তার ঘাটতি থাকাতেই এত খুনের ঘটনা ঘটেছে।

মাত্র চার বছরের ব্যবধানে চার শতাধিক মানুষ প্রবাসী হত্যার বিষয়টি নিছক ছেড়ে দেওয়ার মতো নয়। দক্ষিণ আফ্রিকায় বসবাসরত অভিবাসী বাংলাদেশিরা জানান, স্থানীয়রা তাদের প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে দেখে থাকে। তাদের নিয়ন্ত্রণাধীন থেকে চাকরি করার পরও হামলার ঘটনা ঘটে। গুলি করে বাংলাদেশি হত্যার ঘটনাও রয়েছে এ তালিকায়। এই পরিস্থিতিতে প্রবাসীদের রক্ষা করতে হলে দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশি দূতাবাস থেকে সেদেশের সরকারের সঙ্গে আলোচনা সাপেক্ষে নিরাপত্তা শক্তিশালী করতে হবে। অন্যদেশের মাটিতে গিয়ে হত্যার শিকার হওয়ার বিষয়টি আদৌ কোনো সুখকর বিষয় নয়।

আমরা চাই, বিষয়টি আমাদের সরকার সংশ্লিষ্টদের মাথায়ও আসবে। যাদের প্রেরিত রেমিটেন্সে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক সুফল পাচ্ছে তাদের দেখভাল করাও একটি দায়িত্ব। অচিরে দক্ষিণ আফ্রিকার সরকারের সঙ্গে আমাদের সরকারকে বাংলাদেশি হত্যার বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করতে হবে। খুন তো নয়ই, হামলার ঘটনাও যেন শূন্যে নেমে আসে সে পদক্ষেপ নিতে হবে। এক্ষেত্রে দক্ষিণ আফ্রিকার বাংলাদেশি দূতাবাসকে প্রথমে পদক্ষেপ নিতে হবে। আমরা চাই, প্রবাসে গিয়ে যেন খুনের ঘটনা না ঘটে। এজন্য সরকারের হস্তক্ষেপে নিরাপদ রাখতে হবে দক্ষিণ আফ্রিকাসহ অন্য দেশের প্রবাসী বাঙালিদের।