ঢাকায় বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা

ঢাকা, বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯ | ১ কার্তিক ১৪২৬

ঢাকায় বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা

নগরবাসীর চেনা দুর্ভোগ

সম্পাদকীয় ১০:০৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ০২, ২০১৯

print
ঢাকায় বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা

রাজধানী ঢাকায় অল্প বৃষ্টি হলেই রাস্তায় পানি জমে যায়, এটা খুব স্বাভাবিক ঘটনায় পরিণত হয়েছে। অথচ এর ফলে মানুষকে যে পরিমাণ ভোগান্তির সম্মুখীন হতে হয়, তা এক কথায় অবর্ণনীয়। প্রতিবারই এমন দুর্ভোগের পর নানা রকম আশাবাদ শোনা যায়, কিন্তু সে আশার বাণীগুলো বাস্তবে আলোর মুখ আর দেখে না। এভাবেই ভোগান্তিকে সঙ্গী করে নগরবাসী বৃষ্টির দিনগুলো অতিবাহিত করে যাচ্ছেন।

পত্রিকায় প্রকাশিত খবর থেকে জানা যায়, একটুখানি বৃষ্টি হলেই তলিয়ে যায় ঢাকা। টানা কয়েক ঘণ্টার বর্ষণে রাজধানীর বুকে নেমে আসে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ। যানজট আর জলাবদ্ধতায় কোটি মানুষের এই শহরজুড়ে শুরু হয় ত্রাহি মধুসূদন দশা। পানির নিচে থাকা খানাখন্দে পড়ে আহত হয় স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থী, নারী, শিশু ও বৃদ্ধরা। ভেঙে পড়ে ট্রাফিক সিস্টেম। গত মঙ্গলবারের ঝুম বৃষ্টিতেও হুবহু এই চিত্রনাট্যের দৃশ্য মিলল। এদিন টানা দুই ঘণ্টার তুমুল বৃষ্টিতে তলিয়ে যায় ঢাকার অনেক সড়ক। বিশেষ করে ব্যস্ততম এলাকা মতিঝিল, গুলিস্তান, জিরো পয়েন্ট, পল্টন, বিজয়নগর, ফকিরাপুল, শান্তিনগর, কারওয়ানবাজারসহ বিভিন্ন এলাকার প্রধান সড়ক তলিয়ে যায়।

জলমগ্ন সড়কে ব্যাহত হয় যান চলাচল, যাতে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়। দিনভর থেমে থেমে চলেছে বিভিন্ন যানবাহন। দীর্ঘ যানজটে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বাসে বসে গন্তব্যের অপেক্ষায় থেকেছেন যাত্রীরা। ঘরমুখো শিক্ষার্থীরা ভিজে বাড়ি ফেরার পথে রাস্তায় পড়ে আহতও হয়েছেন। অনেক এলাকার দোকান এমনকি বাসা-বাড়িতেও পানি উঠে যায়। প্রশাসনের প্রাণকেন্দ্র সচিবালয় এলাকায়ও হাঁটুপানি জমে যায়।

টানা বৃষ্টিতে বিপাকে পড়েন কর্মজীবী মানুষ। অফিসের কাজে বের হওয়া ব্যক্তিরা সময়মতো অফিসে হাজির হতে পারেননি। হাজার হাজার দিনমজুর কাজে বেরিয়েও খালি হাতে ঘরে ফিরেছেন। নারী পথচারী ও বৃদ্ধরাও তীব্র ভোগান্তির শিকার হন। অনেক রিকশাচালক যানজটে আটকে যাত্রী নিয়ে বৃষ্টিতে ভিজেছেন ঘণ্টার পর ঘণ্টা। ভোগান্তি সবচেয়ে বেশি ছিল যেসব সড়কে বিভিন্ন উন্নয়নকাজ চলছে সেখানে। এসব সড়কের পথচারী-যাত্রীরা অপরিকল্পিত খোঁড়াখুঁড়ি নিয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন। অল্প সময়ের বৃষ্টিতে এ ধরনের জলাবদ্ধতার কারণ হিসেবে ড্রেনগুলো ঠিকমত কাজ করে না, এ অভিযোগ তোলা হয়। অভিযোগ যাই হোক না কেন, এসবের দেখভাল করার দায়িত্ব নগর কর্তৃপক্ষের। এক্ষেত্রে তাদের দায়িত্বশীল ভূমিকাসহ আমরা ড্রেন পরিষ্কার রাখার স্বার্থে নাগরিকদেরও সচেতনতা প্রত্যাশা করি।