ফুটপাত মৃত্যুফাঁদের নাম

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৪ আশ্বিন ১৪২৬

ফুটপাত মৃত্যুফাঁদের নাম

কঠোর পদক্ষেপ নিন

সম্পাদকীয়-১ ৯:৫১ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০৭, ২০১৯

print
ফুটপাত মৃত্যুফাঁদের নাম

নগর ব্যবস্থাপনায় রাস্তার পাশে পথচারীদের নিরাপদ যাতায়াতের সুবিধার্থে ফুটপাত তৈরি করা হয়। উন্নত বিশ্বে সবাই আইন মেনে ফুটপাত দিয়ে চলাচল করলেও আমাদের দেশে পথচারীদের ফুটপাত ব্যবহার করার ক্ষেত্রে অনীহা কাজ করে। আবার ফুটপাত দিয়ে যে পথচারীরা চলাচল করবে সে অবস্থাটিও অনেক রাস্তায় নেই। দেখা যায় ফুটপাত দখল করে অবৈধভাবে দোকান বসানো হয়েছে।

আবার বেআইনিভাবে ফুটপাতে মোটরসাইকেল রাখা এবং চালানো হয়। শুধু তাই নয়, ফুটপাতে নির্মাণাধীন বাড়ির সামগ্রী রাখাসহ অনেক সময় কেটে ছোট করা হয়। সেই সঙ্গে ফুটপাত বন্ধ করে সারা বছর উন্নয়ন সংস্থাগুলোর খোঁড়াখুঁড়ি তো রয়েছেই।

খোলা কাগজে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, ফুটপাতে দোকান বসানো, নির্মাণাধীন ভবনের ইট-পাথর-বালুসহ সরঞ্জামাদি রাখা, বেপরোয়া মোটরসাইকেল চালানো, দুটি বাস পাল্লা দিয়ে ফুটপাত ঘেঁষে বেপরোয়াভাবে চালানোয় পথচারীদের হাঁটাচলার জায়গাটিও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে, ঘটছে হতাহতের ঘটনা। ফলে ফুটপাতও একটি মৃত্যুফাঁদের নাম হয়ে উঠেছে।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সড়ক দুর্ঘটনা গবেষণা ইনস্টিটিউটের (এআরআই) এক গবেষণায় দেখা গেছে, ২০১৮ সালের ১ জুলাই থেকে চলতি বছরের ১ জুলাই পর্যন্ত ঢাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছেন ২৯৭ জন। নিহত ব্যক্তিদের প্রায় ৩৮ শতাংশই পথচারী। আর ২০১৭ সালে নিহত হন ২৭৬ জন। অর্থাৎ ২০১৭ সালের চেয়ে ২০১৮ সালে রাজধানীতেই ২১ জন বেশি নিহত হন। নিহত ৩৮ শতাংশ পথচারীর মধ্যে কেউ রাস্তার পাশে ফুটপাত দিয়ে হাঁটছিলেন বা কেউ গাড়ির জন্য রাস্তার পাশে ফুটপাতে দাঁড়িয়েছিলেন বা কেউ ফুটপাত দিয়ে রাস্তা পারাপার হচ্ছিলেন।

জাপানের আন্তর্জাতিক সহায়তা সংস্থা জাইকা ২০০৯ সালে ঢাকা আরবান ট্রান্সপোর্ট নেটওয়ার্ক ডেভেলপমেন্ট স্টাডি (ডিএইচটিইউএস) নামে একটি সমীক্ষা করে। ওই সমীক্ষা অনুযায়ী, ঢাকা মহানগরের মানুষের ৩৭ দশমিক ২ শতাংশ বাসা বা কর্মস্থল থেকে হেঁটে যাতায়াত করে। বেসরকারি সংস্থা ডব্লিউবিবি ট্রাস্ট পরিচালিত ২০১১ সালের এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, ঢাকার ৪৪ শতাংশ এলাকায় হাঁটার মতো ফুটপাতই নেই।

যেসব এলাকায় ফুটপাত আছে তারও ৫৫ শতাংশ বালু-ময়লার জন্য চলাচলের অনুপযোগী। ১৮ শতাংশ চলাচলের জন্য খুবই ভালো। বাকি ফুটপাতে কোনো রকমে চলা যায়। বাসাবাড়ি বা অফিস থেকে গাড়ি বের করার সুবিধার্থে অনেক স্থানে ফুটপাতের কিছু অংশ নিচু করে রাখা কিংবা কেটে ফেলা হয়েছে।

আমরা নগরে চলাচলের ক্ষেত্রে এমন বিশৃঙ্খলা দেখতে চাই না। এক্ষেত্রে ফুটপাত ব্যবহারের জন্য পথচারীদের সচেতনতা যেমন প্রয়োজন, তেমনি সরকারকেও ফুটপাত চলাচলের উপযোগী রাখার জন্য কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।